Friday, July 12Welcome khabarica24 Online

সুস্বাস্থ্য

কচুর মুখির স্বাস্থ্য উপকারিতা

কচুর মুখির স্বাস্থ্য উপকারিতা

কচুর ছরা বা কচুর মুখি Aroid পরিবারের অন্তর্গত উদ্ভিদ। এটি ভুগর্ভস্থ মাংসল মূল। বৃহত্তম এশিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ, পশ্চিম আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন অঞ্চলের জনপ্রিয় সবজি কচুর মুখি। এর পাতা হার্টের আকৃতির এবং গন্ধ বাদামের মত। কচুর মুখির স্বাস্থ্য উপকারিতার বিষয়ে জেনে নিই চলুন। ১। ক্লান্তি হ্রাস করে কচুর মুখি এনার্জি ধরে রাখতে ও ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে। এর গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম থাকে বলে অ্যাথলেটদের জন্য এটি ভালো খাবার। ২। ওজন কমায় যারা ওজন কমাতে চান তাদের জন্য একটি ভালো খাবার হচ্ছে কচুর ছরা। কারণ এর ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম। ৩। হজম সহায়ক এই সবজিতে প্রচুর ফাইবার থাকে বলে পরিপাক প্রক্রিয়ার জন্য খুবই উপকারী। এটি দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা রাখতে সাহায্য করে। ৪। পাকস্থলী পরিষ্কার করে ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে পরিপাক প্রক্রিয়ায় সাহায্য করার পাশাপাশি পাকস্থলীর বর্জ্য পদা
যে ৫ খাবার বেশি খেলে ত্বক নষ্ট হয়ে যেতে পারে

যে ৫ খাবার বেশি খেলে ত্বক নষ্ট হয়ে যেতে পারে

খাদ্য গ্রহণে খুব সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। খাবার যেমন শরীর গঠনে সহায়ক, তেমনি এমন কিছু খাবার আছে যা বেশি খেলে শরীরের নানা রকম সমস্যা হতে পারে। লবণ : বেশি লবণ খেলে মুখ ফোলা দেখাতে পারে। চোখের চারপাশের চামড়া খুবই পাতলা ও নরম হয়। দ্য ন্যাশনাল হার্ট লাং অ্যান্ড ব্লাড অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, দিনে ৫০০ মিলিগ্রামের বেশি লবণ খেলে চোখের নিচের অংশ ফুলে যেতে পারে। দুগ্ধজাত খাবার : এই ধরনের খাবার থেকে অনেক উপকার পাই আমরা। কিন্তু দুগ্ধজাত খাবার বেশি খেলে চোখের নিচের অংশ ভারী হয়ে যায়,ব্লাকহেডসের সমস্যা দেখা দেয়। চিনি : অতিরিক্ত চিনিযুক্ত বা মিষ্টি খাবার শুধু যে শরীরের মেদ বাড়ায় তাই নয়, ত্বক শুষ্ক করে দেয়। ফলে চোখের কোল, কপালে বলিরেখা দেখা দিতে পারে। অ্যালকোহল : অতিরিক্ত অ্যালকোহলের নেশায় ত্বকে বলিরেখা দেখা দিতে পারে। চোখের নিচের অংশে
পড়াশোনায় মনোযোগ বাড়ানোর ৭ উপায়

পড়াশোনায় মনোযোগ বাড়ানোর ৭ উপায়

  অনেক ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে শোনা যায় পড়াশোনায় তাদের মন বসে না। তাদের জন্য পড়াশোনায় মনোযোগ বাড়ানোর ৭ উপায় নিয়ে এবারের অ্যালবাম সাজানো হয়েছে। মনোযোগ বাড়াতে প্রথম কাজ : ‘যখন নিজেকে ক্লান্ত মনে হবে বা যথেষ্ট মনোযোগ নেই পড়াশোনায়, তখন কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পড়লে তা মনে রাখা সহজ হয়।’ টেক্সাসের একটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ৩০০ ছাত্র-ছাত্রীকে নিয়ে করা এক সমীক্ষার ফলাফল থেকে এই তথ্য জানা গেছে। দায়িত্ববোধ : শৈশব থেকেই যারা অস্থির প্রকৃতির, পড়াশোনা বা অন্য কিছুতেও তেমন আগ্রহ নেই বা মন বসাতে পারে না। তাদের ক্ষেত্রে অবশ্যই কিছুটা ভিন্ন ব্যবস্থা নিতে হবে। অর্থাৎ শিশু বা ছাত্র-ছাত্রীকে কোনো পোষা প্রাণী কিনে দেয়া যেতে পারে। ছাত্র-ছাত্রীদের চাই ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার : পড়ুয়াদের যে যথেষ্ট ভিটামিন দরকার সে কথা আর কে না জানে? তবে শুধু জানা নয়, তা কাজে পরিণত
চোখ ভালো রাখতে এই ৬টি বিষয় অবশ্যই মেনে চলুন

চোখ ভালো রাখতে এই ৬টি বিষয় অবশ্যই মেনে চলুন

ডেস্ক- নিঃসন্দেহে চোখ আমাদের অমূল্য সম্পদ। চোখে যিনি দেখেন না তিনিই বোঝেন পৃথিবীতে চোখের কী মর্ম। তাই চোখের ব্যাপারে আমাদের আরও সচেতন হওয়া উচিত। কারণ চোখ মানুষের অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের তুলনায় একটু বেশি স্পর্শকাতর। এই জন্য চোখের কিছু বাড়তি যত্নের  প্রয়োজন। জেনে নিন চোখ ভালো রাখার কিছু সহজ উপায়। ফল ও সবজি চোখ ভাল রাখতে গাজর অনেক উপকারি। গাজরের পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণে সবুজ শাক-সবজি, বাদাম, কমলালেবু খান। টাটকা শাক-সবজিতে থাকে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, ভিটামিন ‘এ’ এবং ভিটামিন ‘সি’। যা চোখের কর্নিয়া ভাল রাখতে সাহায্য করে। ছানি পড়ার হাত থেকেও বাঁচায়। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড চোখের স্নায়ুকোষগুলিকে সুস্থ রাখে। রেটিনাকে সুরক্ষিত রাখে। তাই চোখ ভাল রাখতে স্যামন, টুনা, হ্যালিবাটের মতো ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ মাছ খান। ধুমপান ছাড়ুন আমরা
ব্রণ থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়

ব্রণ থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়

বয়ঃসন্ধিকালীন সময়ে কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীদের মুখে ব্রণ একটি স্বাভাবিক ব্যাপার। তবে ব্রণ খুবই বিরক্তিকর। মুখের সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। মুখে তেল চিপচিপে ভাব হওয়ায় ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণের ফলে ব্রণের তৈরি হয়। কে চায় না কোমল, সুন্দর ও পরিস্কার ত্বক পেতে? তবে পরিস্কার ও ব্রণ মুক্ত ত্বক পেতে ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করলে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। খুব সহজেই এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। আসুন জেনে নিই ঘরোয়া পদ্ধতিতে ব্রণ থেকে মুক্তির উপায়। সরিষা বীজ ব্রণ দূরীকরণে খুবই কার্যকর। কারণ সরিষা বীজে রয়েছে স্যালিলাইক এসিড, যা মুখমন্ডলে ব্যাকটেরিয়া জমতে দেয় না। ব্রণ হলে সরিষা বীজ মধুর সাথে মিশিয়ে পেস্ট করে কটন দিয়ে ব্রণের উপর হালকা ভাবে লাগিয়ে দিন। এরপর ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের যত্নে টমেটো সবচেয়ে ভাল ফল দেয়। কারণ টমেটোতে রয়েছে অ্যান্টিসেফটিক এসিড। পরিমান মতো টমেটো নিয়ে কুচি
ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি : উপাচার্য

ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি : উপাচার্য

ডেস্ক প্রতিবেদন: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বলেছেন, চিকিৎসা ক্ষেত্রে রোগীর সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. মিল্টন হলে আয়োজিত ‘একিউট এন্ড ক্রনিক পেইন ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। উপাচার্য বলেন,চিকিৎসা পেশার সাথে অন্য কোনো পেশার তুলনা হয় না।রোগীর সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি। চিকিৎসক ও রোগীর মাঝে সুন্দর সম্পর্কের মাধ্যমে চিকিৎসা পেশার সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধি করার পাশাপাশি রোগীদের আস্থা অর্জন করা সম্ভব বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এনালজেশিয়া এন্ড ইনটেনসিভ কেয়ার মেডিসিন (আইসিইউ) বিভাগের অধ্যাপক ডা. একেএম আখতারুজ্জামান অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন এবং এতে বক্তব্য রাখেন ব
এক গ্লাস আখের রসে যা হয়

এক গ্লাস আখের রসে যা হয়

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রবল গরম, ঘামে ভিজে গেছেন! অস্থির হয়ে উঠেছেন? এক গ্লাস আখের রস পান করুন। মহুর্তেই ক্লান্তি মিলিয়ে যাবে। চাইলে আখের রসের সঙ্গে লেবু, আদা কিংবা পুদিনা পাতা মিশিয়ে নিতে পারেন। প্রাকৃতিক গুণে সমৃদ্ধ মিষ্টি আখ পুষ্টিগুণের দিক দিয়ে অনন্য পানীয়। এক গ্লাস আখের রস আপনার যে সকল উপকারগুলো করবে : আখের রসের ফ্লেভোনস মানুষের শরীরে ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি ও ছড়ানো প্রতিরোধ করতে সক্ষম। এটা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রোস্টেট ও স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। জার্নাল অফ ফাইটোকেমিস্ট্রি প্রকাশিত এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। আখের রসে ডায়াবেটিস চিনির চেয়েও কম মাত্রায় গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকে। কৃত্রিম চিনির তুলনায় এটা বেশ স্বাস্থ্যকর। আখের রস প্রাকৃতিক অ্যাল্কালাইন যা অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে। কিডনির সুস্থতা নিশ্চিত করতে সহায়তা করে। এছাড়া নিয়মিত আঁখের রস পানের বুক জ্বালা-পোড়া এবং মুত্র ন
ঘুম ভাঙার পরও মাথাব্যথা হওয়ার কারণ

ঘুম ভাঙার পরও মাথাব্যথা হওয়ার কারণ

অনলাইন ডেস্ক সকালে অনেকেই ঘুম থেকে উঠে প্রচণ্ড মাথাব্যথা অনুভব করে থাকেন। ঘুম ভাঙার পরই মাথাব্যথা শুরু হলে এর চেয়ে বিরক্তির আর কিছু নেই। কিন্তু জানেন তি ঠিক কি কারণে হয় এই মাথাব্যথা? বিভিন্ন কারণে হতে পারে এই মাথাব্যথা। চলুন তাহলে জেনে নিই সকালবেলায় মাথাব্যথা হওয়ার কারণগুলোর বিষয়ে। অনেক বেশি ঘুম প্রতিদিন একজন ব্যক্তির ৭-৮ ঘন্টা ঘুমানো প্রয়োজন। কিন্তু এর চেয়ে বেশি অর্থাৎ ৯ ঘন্টার বেশি ঘুমালে মাথাব্যথা হতে পারে। অতিরিক্ত ঘুমের ফলে মস্তিষ্কের সেরোটোনিনের মাত্রা কমে যায় বলে মস্তিস্কে রক্ত প্রবাহ কমে যায় এবং মাথাব্যথা সৃষ্টি হয়। প্রচুর অ্যালকোহল পান রাতে যদি অত্যধিক অ্যালকোহল পান করা হয় তাহলে সকালে মাথাব্যথা হতে পারে। এমনকি সামান্য ড্রিংক করলেও আপনার ডিহাইড্রেশন হতে পারে, মস্তিষ্কের রক্তপ্রবাহ কমে যায় এবং মাথাব্যথা বৃদ্ধি করে। কম ঘুম আপনার যদি পর্যাপ্ত ঘুম না হয়