Tuesday, November 20Welcome khabarica24 Online

সুস্বাস্থ্য

ব্রণ থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়

ব্রণ থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়

বয়ঃসন্ধিকালীন সময়ে কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীদের মুখে ব্রণ একটি স্বাভাবিক ব্যাপার। তবে ব্রণ খুবই বিরক্তিকর। মুখের সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। মুখে তেল চিপচিপে ভাব হওয়ায় ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণের ফলে ব্রণের তৈরি হয়। কে চায় না কোমল, সুন্দর ও পরিস্কার ত্বক পেতে? তবে পরিস্কার ও ব্রণ মুক্ত ত্বক পেতে ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করলে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। খুব সহজেই এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। আসুন জেনে নিই ঘরোয়া পদ্ধতিতে ব্রণ থেকে মুক্তির উপায়। সরিষা বীজ ব্রণ দূরীকরণে খুবই কার্যকর। কারণ সরিষা বীজে রয়েছে স্যালিলাইক এসিড, যা মুখমন্ডলে ব্যাকটেরিয়া জমতে দেয় না। ব্রণ হলে সরিষা বীজ মধুর সাথে মিশিয়ে পেস্ট করে কটন দিয়ে ব্রণের উপর হালকা ভাবে লাগিয়ে দিন। এরপর ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের যত্নে টমেটো সবচেয়ে ভাল ফল দেয়। কারণ টমেটোতে রয়েছে অ্যান্টিসেফটিক এসিড। পরিমান মতো টমেটো নিয়ে কুচি
ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি : উপাচার্য

ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি : উপাচার্য

ডেস্ক প্রতিবেদন: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বলেছেন, চিকিৎসা ক্ষেত্রে রোগীর সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. মিল্টন হলে আয়োজিত ‘একিউট এন্ড ক্রনিক পেইন ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। উপাচার্য বলেন,চিকিৎসা পেশার সাথে অন্য কোনো পেশার তুলনা হয় না।রোগীর সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে ডাক্তার-রোগীর সম্পর্কের উন্নয়ন জরুরি। চিকিৎসক ও রোগীর মাঝে সুন্দর সম্পর্কের মাধ্যমে চিকিৎসা পেশার সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধি করার পাশাপাশি রোগীদের আস্থা অর্জন করা সম্ভব বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এনালজেশিয়া এন্ড ইনটেনসিভ কেয়ার মেডিসিন (আইসিইউ) বিভাগের অধ্যাপক ডা. একেএম আখতারুজ্জামান অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন এবং এতে বক্তব্য রাখেন ব
এক গ্লাস আখের রসে যা হয়

এক গ্লাস আখের রসে যা হয়

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রবল গরম, ঘামে ভিজে গেছেন! অস্থির হয়ে উঠেছেন? এক গ্লাস আখের রস পান করুন। মহুর্তেই ক্লান্তি মিলিয়ে যাবে। চাইলে আখের রসের সঙ্গে লেবু, আদা কিংবা পুদিনা পাতা মিশিয়ে নিতে পারেন। প্রাকৃতিক গুণে সমৃদ্ধ মিষ্টি আখ পুষ্টিগুণের দিক দিয়ে অনন্য পানীয়। এক গ্লাস আখের রস আপনার যে সকল উপকারগুলো করবে : আখের রসের ফ্লেভোনস মানুষের শরীরে ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি ও ছড়ানো প্রতিরোধ করতে সক্ষম। এটা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রোস্টেট ও স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। জার্নাল অফ ফাইটোকেমিস্ট্রি প্রকাশিত এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। আখের রসে ডায়াবেটিস চিনির চেয়েও কম মাত্রায় গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকে। কৃত্রিম চিনির তুলনায় এটা বেশ স্বাস্থ্যকর। আখের রস প্রাকৃতিক অ্যাল্কালাইন যা অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে। কিডনির সুস্থতা নিশ্চিত করতে সহায়তা করে। এছাড়া নিয়মিত আঁখের রস পানের বুক জ্বালা-পোড়া এবং মুত্র ন
ঘুম ভাঙার পরও মাথাব্যথা হওয়ার কারণ

ঘুম ভাঙার পরও মাথাব্যথা হওয়ার কারণ

অনলাইন ডেস্ক সকালে অনেকেই ঘুম থেকে উঠে প্রচণ্ড মাথাব্যথা অনুভব করে থাকেন। ঘুম ভাঙার পরই মাথাব্যথা শুরু হলে এর চেয়ে বিরক্তির আর কিছু নেই। কিন্তু জানেন তি ঠিক কি কারণে হয় এই মাথাব্যথা? বিভিন্ন কারণে হতে পারে এই মাথাব্যথা। চলুন তাহলে জেনে নিই সকালবেলায় মাথাব্যথা হওয়ার কারণগুলোর বিষয়ে। অনেক বেশি ঘুম প্রতিদিন একজন ব্যক্তির ৭-৮ ঘন্টা ঘুমানো প্রয়োজন। কিন্তু এর চেয়ে বেশি অর্থাৎ ৯ ঘন্টার বেশি ঘুমালে মাথাব্যথা হতে পারে। অতিরিক্ত ঘুমের ফলে মস্তিষ্কের সেরোটোনিনের মাত্রা কমে যায় বলে মস্তিস্কে রক্ত প্রবাহ কমে যায় এবং মাথাব্যথা সৃষ্টি হয়। প্রচুর অ্যালকোহল পান রাতে যদি অত্যধিক অ্যালকোহল পান করা হয় তাহলে সকালে মাথাব্যথা হতে পারে। এমনকি সামান্য ড্রিংক করলেও আপনার ডিহাইড্রেশন হতে পারে, মস্তিষ্কের রক্তপ্রবাহ কমে যায় এবং মাথাব্যথা বৃদ্ধি করে। কম ঘুম আপনার যদি পর্যাপ্ত ঘুম না হয়
বিছানার পাশে যেসব গাছ রাখলে দূর হবে অ্যালার্জি-অনিদ্রা

বিছানার পাশে যেসব গাছ রাখলে দূর হবে অ্যালার্জি-অনিদ্রা

বাগানের শখ অনেকেরই। যাদের বাড়তি জমির অভাব, অনেক সময়ে বাড়ির জানলায় বা ছাদে গাছ লাগান তারা। তবে জানেন কি, শুধু গাছ দিয়ে মনোরঞ্জনই নয়, কিছু গাছ আপনার অ্যালার্জি, অনিদ্রার মতো রোগগুলোকেও দূরে রাখে। সাম্প্রতিক এক গবেষণা জানাচ্ছে, ঘরে যদি বিছানার পাশে এই গাছগুলো রাখেন, ফল পাবেন খুবই দ্রুত। ১। স্নেক প্ল্যান্ট- খুব সহজেই এই গাছ পাওয়া যায়। নাম শুনে অবশ্য ভয় পাওয়ার কিছু নেই। এই গাছ ঘরের মধ্যে ক্ষতিকারক টক্সিন তাড়াতে সাহায্য করে। যারা অ্যালার্জিতে আক্রান্ত বা যাদের শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা রয়েছে, তাদের জন্য বিশেষ করে এই গাছ খুব ভাল। ২। ল্যাভেন্ডা- ল্যাভেন্ডার রক্তচাপ কমায়। এছাড়াও শরীরে স্ট্রেস হরমোন কমাতেও সাহায্য করে। একই সঙ্গে রক্ত চলাচলেরও উন্নতি ঘটায়। এমনকী এও দেখা গেছে যে, এই গাছ বাচ্চাদের দ্রুত ঘুমিয়ে পড়তে সাহায্য করে। ৩। স্পাইডার প্ল্যান্ট- স্নেক প্ল্যান্টের মতই স্পাইডার প্ল্যান্ট
গরম পানি পানের বিস্ময়কর ৭ উপকারিতা

গরম পানি পানের বিস্ময়কর ৭ উপকারিতা

  ডেস্ক: আপনি হয়তো গরম পানি ও লেবুর স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে জেনে থাকবেন। কিন্তু শুধু গরম পানি পানের উপকারিতা সম্পর্কে অবগত আছেন কি? প্রাচীন চৈনিক পথ্য ব্যবস্থা এবং ভারতীয় সংস্কৃতি অনুযায়ী, দিনের শুরুতে এক গ্লাস গরম পানি পান আপনার পরিপাক প্রক্রিয়াকে সচল রাখবে এবং স্বাস্থ্যের নানারকম উপকার সাধন করবে। তার মানে এই নয় যে, পানি যত বেশি গরম, তত বেশি উপকারিতা। গরম পানির তাপমাত্রা একটি নির্দিষ্ট মাত্রা অতিক্রম করা উচিত নয়। মুখ ও গলার এপিথেলিয়াল কোষের ক্ষতি এড়াতে গরম পানির সর্বোচ্চ তাপমাত্রা হবে ১২০ ডিগ্রি ফারেনহাইট। ১. ওজন কমাতে সাহায্য করে শুধু গরম পানি পান ওজন কমায় না, কিন্তু ওজন কমানোর প্রক্রিয়াকে সাহায্য করে। পুষ্টিবিজ্ঞানী ও রেজিস্টার্ড ডায়েটিশিয়ান কারা ওয়ালশ বলেন, বিপাক প্রক্রিয়াকে অধিকতর কার্যকরী করতে গরম পানি ও লেবু দিয়ে সকাল আরম্ভ করুন, যা সারাদিন আপনার শরীরকে ব
আঙুরের যত উপকারিতা…

আঙুরের যত উপকারিতা…

আঙুর বিদেশি ফল হলেও এখন তা অনেকটা দেশি ফলের মতোই পরিচিত হয়ে গেছে। ভিটামিন এ, বি৬, বি, ফোলেট, পটাশিয়াম, আয়রন, সেলেনিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম ইত্যাদি মিনারেলসে ভরপুর এই ফলের আছে অনেক উপকারিতা। আর একারণেই প্রতিদিন মাত্র আধাকাপ পরিমাণে আঙুর দূর করার ক্ষমতা রাখে নানা শারীরিক সমস্যা। চলুন জেনে নিই আঙুরের কিছু গুণাগুণ- ১. আঙুরের পাতলা খোসায় রেসভেরাট্রোল নামক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদানের দেখা মেলে। গবেষণায় দেখা যায় এই রেসভেরাট্রোল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহে ক্যান্সারের কোষ গঠন করতে বাঁধা প্রদান করে থাকে। ২. অ্যামেরিকান সোসাইটি অফ বোন অ্যান্ড মিনারেলস রিসার্চের মতে আঙুর মাইক্রো নিউট্রিইয়েন্টস যেমন, ক্যালসিয়াম, আয়রন এবং ম্যাংগানিজে ভরপুর একটি ফল যা হাড়ের গঠন এবং মজবুত হওয়ার জন্য অত্যন্ত জরুরী। ৩. আঙুরের ফাইটোকেমিক্যাল হৃদপিণ্ডের পেশির ক্ষতি নিজ থেকেই পূরণে ব
শিশুর মেধার বিকাশে বাবা মায়ের করনীয়

শিশুর মেধার বিকাশে বাবা মায়ের করনীয়

আজকের শিশু আগামী দিনের পরিপূর্ণ মানুষ এবং জাতির ভবিষ্যৎ । এই জন্য শিশুকে জন্মের শুরু থেকে একটু বেশি দেখা-শুনা করা প্রয়োজন। কারন শিশুর জন্মের পর থেকেই প্রথম কিছু বছর তার শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য অনেক বেশি গুরুত্তপূর্ণ। এই কিছু বছরের কার্যকলাপের উপরেই শিশুর পরবর্তী জীবনের বুদ্ধিমত্তা নির্ধারণ করে। অনেকেই হইত মনে করতে পারেন, এই সময় শিশুর মেধাবিকাশের জন্য তেমন কিছুর প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই অবহেলাই শিশুর পরবর্তী জীবনের বড় কোন মানসিক সমস্যার কারন হয়ে দাড়াতে পারে। শিশুর সুন্দর শৈশব এবং অনাবিল ভবিষের জন্য দরকার সঠিকভাবে বেড়ে উঠা। লেখা-পড়া, খেলা-ধুলা এবং সুন্দরভাবে তার জীবনকে আনন্দময়  করতে স্বাভাবিক জীবন একান্ত কাম্য। এই সময়ই শিশুর মেধাবিকাশে ও পর্যাপ্ত চর্চায় আগামী দিনের পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে।  তাই শিশুর প্রথম বছরে বাবা-মা তার বিকাশের অবদান রাখতে পারেন এমন ছয়টি টিপস জে