Tuesday, February 18Welcome khabarica24 Online

সংবাদ শিরোনাম

সুপ্রিমকোর্টে আইনজীবীরা অবরুদ্ধ, গ্রেপ্তার আতঙ্ক

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির নেতারাসহ বিএনপি ও জামায়াতপন্থি বেশকিছু আইনজীবী সমিতির কার্যালয়ে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। যেকোনো সময় তাদের আটক করা হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা।পুলিশ-ডিবি-এনএসআইসহ অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যারা তাদের আটকের চেষ্টা চালাচ্ছে। ইতিমধ্যে পুলিশের সমন্বয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আইনজীবী সমিতি ভবনের তালা খোলার চেষ্টা করেছেন।অবরুদ্ধ বার কাউন্সিলের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘আমরা এখানে অবরুদ্ধ আছি,

সুপ্রিম কোর্টের ফটক খুলে আইনজীবীদের ওপর চড়াও

সুপ্রিম কোর্টের বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের ওপর আজ রোববার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে চড়াও হয় ক্ষমতাসীন দলের কর্মীরা। এ সময় রেহানা পারভীন নামের এক আইনজীবী আহত হন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা বেলা ১১টার দিকে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান ফটকের সামনে ভেতরের দিকে অবস্থান নিয়ে মিছিল ও স্লোগান দিচ্ছিলেন। ওই সময় ফটকটি বন্ধ ছিল। আগে থেকেই ফটকের বাইরে সড়কে অবস্থান করছিল পুলিশ। আইনজীবীরা ফটকের বাইরে বের হওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় একটি ইট এসে পুলিশের দিকে পড়ে। এরপরই পুলিশ রঙিন পানি ছুড়ে ও সাউন্ড গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আইনজীবীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।আইনজীবীরা আবারও সেখানে জড়ো হলে রঙিন পানি ছুড়ে ও সাউন্ড গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটায় পুলিশ। বেলা তিনটা পর্যন্ত এ অবস্থা চলে।বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা প্রেসক্লাব হয়ে কয়েকটি মিছিল নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের একটি গেটের সামনে জড়ো হন। পরে তাঁরা
আসুন বিভেদ ভুলে শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাই : শেখ হাসিনা

আসুন বিভেদ ভুলে শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাই : শেখ হাসিনা

  যুদ্ধাপরাধীদের রায় কার্যকরের পর আগামীতে এ বিচার বানচালের ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিচারের প্রতিশ্র“তি দিয়েছে আওয়ামী লীগ। সেই সঙ্গে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও সাম্প্রদায়িকতা দূর করে রাষ্ট্র ও সমাজজীবনের সর্বক্ষেত্রে শান্তি, শৃংখলা ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার করেছে দলটি। ঘোষিত ইশতেহারে কোরআন ও সুন্নাহ পরিপন্থী কোনো আইন প্রণয়ন না করার অঙ্গীকারও করা হয়েছে। প্রধান বিরোধী দল বিএনপিবিহীন নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে শনিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ইশতেহার ঘোষণা করেন। আওয়ামী লীগের ঘোষিত এ ইশতেহারে আগামী পাঁচ বছরে দেশের প্রতিঘরে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা, একই সময়ে দ্বিতীয় যমুনা ও দ্বিতীয় পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু, ফোর-জি চালু, বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানে পেনশন ব্যবস্থা প্রচলনের উদ্যোগ, প্রাথমিক শিক্ষার স্তর পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীতে উন্ন

একটি গুলির জবাবে ১০টি গুলি করবে ছাত্রলীগ

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম বলেছেন, ২৯শে ডিসেম্বর বিএনপির আন্দোলনে জামায়াত-শিবিরকে প্রতিহত করতে বরাবরের মতো এবারও ছাত্রলীগ মাঠে থাকবে। তারা যদি একটি গুলি করে, ছাত্রলীগ ১০টি গুলি করবে। এ প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে থাকবে ছাত্রলীগ। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ছাত্রলীগ ঢাকা মহানগরের এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি। সিদ্দিকী নাজমুল আলম আরও বলেন, বিএনপি যে সাংঘর্ষিক আন্দোলনের ডাক দিয়েছে আমরা জানি সে আন্দোলনে বিএনপি নয় মাঠে থাকবে জামায়াত-শিবির। তাই তাদের সম্পূর্ণ প্রতিহত করা হবে। ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সভাপতি আনিসুর রহমান আনিস বলেন, বিএনপির কর্মসূচি কিভাবে প্রতিহত করতে হয় ছাত্রলীগ মাঠে থেকে তা বুঝিয়ে দেবে। প্রত্যেক এলাকায় পাহারা বসানো হবে। ছাত্রলীগ ঢাকা মহানগরী উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক রানা বলেন, রাজাকারের হাতে জাতীয় পতাকা তুলে দিতে দেবো না।
খালেদা গৃহবন্দি

খালেদা গৃহবন্দি

গৃহবন্দি বিরোধী নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ‘গণতন্ত্রের অভিযাত্রা’ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে তার বাসভবন ঘিরে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। পুলিশ প্রটোকল প্রত্যাহার করে নিয়েছে সরকার। ব্যারিকেড সরিয়ে খালেদা জিয়া আজকের কর্মসূচিতে যাওয়ার চেষ্টা করলেও তা আটকে দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। তার বাসভবনের সামনের দু’দিকের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে দু’টি বালুভর্তি ট্রাক। বিরোধীদলীয় নেতার প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা লে. কর্নেল (অব.) আবদুল মজিদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিরোধীদলীয় নেতার মর্যাদা অনুসারে প্রাপ্য পুলিশি প্রটোকল প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। তার নিরাপত্তায় নিয়োজিত সমস্ত প্রটোকল ও পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করে তাদের বদলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ, মহিলা পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি অবস্থান নিয়েছে। অফিস অভিমুখে যাওয়ার রাস্তা দু’টি বন্ধ করে সেখানেও অসংখ্য র‌্যাব ও বিজিবি অবস্থান করছে। এছা
গণপরিবহন বন্ধে ভোগান্তি চরমে

গণপরিবহন বন্ধে ভোগান্তি চরমে

বিরোধী দলের গণতন্ত্রের অভিযাত্রা কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে রাজধানীকে সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ গণপরিবহনও বন্ধ করে দেয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে নগরবাসী। শনিবার সকালে ঘর থেকে বের হয়েই এ নিয়ে বিপত্তিতে পড়েছে কর্মজীবী মানুষ। গন্তব্যে যেতে মানুষকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। অনেকে হেঁটেই চলাফেরা করেন। সুযোগ বুঝে কয়েকগুণ বেশি ভাড়া আদায় করেছে অটোরিকশা ও রিকশা চালকরা। রাজধানীর বাইরে থেকে নিজ কাজে আসা লোকজন কোনো হোটেলেই ঠাঁই পাচ্ছে না। হোটেলগুলো থেকে সাফ বলা হচ্ছে, নতুন বোর্ডার নেয়া যাবে না। ভুক্তভোগী বিক্ষুব্ধ মানুষ এইপরিস্থিতির জন্য সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছে।সকালে নগরীর যাত্রাবাড়ী, পোস্তগোলা, উত্তরা, আবদুল্লাহপুর, গাবতলী, মিরপুর ১০ নম্বর, মোহাম্মদপুর, বাড্ডাসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে রাস্তায় হাজার হাজার মানুষ। কোনো গণপরিবহন তথা বাস, মিনিবাস, হিউম্যান হলার

রাজধানীতে আট স্থানে অবস্থান নেবে আওয়ামী লীগ

বিরোধী দলের আজকের মার্চ ফর ডেমোক্রেসি কর্মসূচিকে ঘিরে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকবে আওয়ামী লীগ। রাজধানী ঢাকায় প্রবেশের আটটি পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে নাশকতা প্রতিরোধ করবে তারা। এছাড়া পাড়া-মহল্লায় স্ব স্ব এলাকার নেতাকর্মীরা পতাকা মিছিল করবেন। বিকাল তিনটা থেকে রাত বারোটা পর্যন্ত তাদের লাঠির মাথায় পতাকা নিয়ে অবস্থা করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া রাজধানীর প্রত্যেক সংসদ সদস্যকে নেতাকর্মীদের নিয়ে নিজ নির্বাচনী এলাকায় সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি সহযোগী সংগঠনের নেতারাও এসব কর্মসূচি পালন করবেন। দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতারাও অবস্থান নেবেন।এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া যুগান্তরকে বলেন, তারা জনগণের জানমাল রক্ষার্থে রাজপথে থাকবেন। তিনি বলেন, নেতাকর্মীরা স্ব স্ব ওয়ার্
জনগণের বিরুদ্ধে অঘোষিত হরতাল দিয়েছে সরকার: মির্জা ফখরুল

জনগণের বিরুদ্ধে অঘোষিত হরতাল দিয়েছে সরকার: মির্জা ফখরুল

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, “দেশব্যাপী যেন সরকারের অঘোষিত হরতাল বা ১৪৪ ধারা চলছে। সরকার প্রশাসনযন্ত্রের সাহায্যে অনির্দিষ্টকালের জন্য জনগণের বিরুদ্ধে নিজেরাই অবরোধ সৃষ্টি করেছে।শনিবার দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ফখরুল এসব কথা বলেন। রাজধানী ঢাকায় সমবেত হওয়ার জন্য খালেদা জিয়া ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ নামে যে কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন তা বানচালে সরকারের অপকৌশল ও দেশব্যাপী সরকারের নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করছে বলে অভিযোগ করেন ফখরুল। এর ফলে জনজীবনে সৃষ্ট নৈরাজ্য ও অস্থিরতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব।বিবৃতি ফখরুল বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিকে বানচাল করার লক্ষ্যে বর্তমান আওয়ামী ফ্যাসিস্ট সরকার বরাবরের মতো এবারো আগামীকালের ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচিকে সামনে রেখে সারাদেশ থেকে আগত লক্