বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

তিন দফা দাবিতে রোড মার্চ করবে গণজাগরণ মঞ্চ

imran-H-sharkar

 

নির্বাচন পরবর্তী সহিংস হামলায় হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষের ওপর সাম্প্রদায়িক হামলা এক বীভৎস রুপ ধারণ করেছে বলে জানিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ। এ লক্ষ্যে আক্রান্ত পরিবারগুলোকে সহায়তা দেয়ার লক্ষ্যে গণজাগরণ মঞ্চ আগামী ১০ ও ১১ জানুয়ারি ঢাকা থেকে যশোর মালোপাড়া পর্যন্ত “সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে রোডমার্চ” করবে বলেও জানিয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার।

তিনি বলেন, “দেশব্যাপী জামায়াত-শিবিরের সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানাই। গণজাগরণ মঞ্চ সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে শাহবাগে একটি সমন্বয় সেল গঠন করেছে। এই সেল থেকে সারাদেশের দরিদ্র নির্যাতিত পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দেয়ার জন্য শাহবাগে ত্রান সংগ্রহ করা হবে।”

ইমরান এইচ সরকার বলেন, “এই সেলের মাধ্যমে ত্রাণ সহায়তা করার জন্য আমরা দেশবাসীকে আহ্বান জানাচ্ছি। কেন্দ্রীয় সেলের পক্ষ থেকে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা সারাদেশে আক্রান্ত এলাকা পরিদর্শন করবে। আক্রান্ত পরিবারগুলোকে আমরা প্রয়োজনীয় সকল সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করবো। এই লক্ষ্যে গণজাগরণ মঞ্চ আগামী ১০ ও ১১ জানুয়ারি ঢাকা থেকে যশোর মালোপাড়া পর্যন্ত “সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে রোডমার্চ” করবে।”

কর্মসূচীতে জানান হয়, সারাদেশের যেসব এলাকায় এমন হামলা হচ্ছে এবং হামলার আশংকা আছে সেই এলাকাগুলোর জনসাধারণ বিশেষ করে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল তরুণদের নিয়ে আমরা স্থানীয় পর্যায়ে ‘সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি’ গঠন করা হবে। সারাদেশের আগ্রহী তরুণদেরকে সমন্বয় সেলের সাথে যোগাযোগ করবার অনুরোধ জানান হয়। যার ফোন নাম্বার ০১৭৮১-৬২৮১১১।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র বলেন, “আমরা সকল তরুণ সমাজের কাছে উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে বলতে চাই এই মহান দেশে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের সহাবস্থান নিশ্চিত করার যে স্বপ্ন আমাদের পূর্বপুরুষরা দেখেছিলেন, আসুন, আমরা সবাই মিলে সেরকম দেশ গড়ে তুলতে এগিয়ে আসি। আমাদের প্রত্যেকের তিলতিল শ্রম আর ত্যাগে একটি সুন্দর সুখী অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ে উঠবে। আমাদের সেই স্বপ্নে শামিল হতে আমি সকলের কাছে উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।”

তিনি বলেন, “বর্তমান অশান্ত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলা প্রতিরোধে সারাদেশে প্রশাসনের ব্যর্থতায় আমরা ক্ষুব্ধ। এক গভীর বেদনা, উদ্বেগ-উৎকন্ঠা এবং ক্ষোভ বুকে নিয়ে আজকে আমরা, গনজাগরণ মঞ্চের তরুণরা আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলা প্রতিরোধে সারাদেশে প্রশাসনের ব্যর্থতায় আমরা ক্ষুব্ধ। আক্রান্ত মানুষরা প্রশাসন থেকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা পাননি। এই ধরনের হামলার হুমকির বিষয়ে প্রশাসনকে অবগত করা সত্ত্বেও প্রশাসন অনেক ক্ষেত্রেই ছিল আগাম ব্যবস্থা নিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ। এমনকি হামলার পরে দায়ী ব্যক্তিদেরকে চিহ্নিত করে গ্রেফতার করারও কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। আমরা এসব প্রতিটি হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং পাশাপাশি প্রশাসনিক ব্যর্থতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি।”

ইমরান এইচ সরকার বলেন, “সহিংসতারোধে নাগরিকসমাজ এবং রাষ্ট্রকে নিজ নিজ জায়গা থেকে তাদের দায়িত্ব পালনে এগিয়ে আসতে হবে। এই লক্ষ্যে আমরা সরকারের কাছে নিম্নোক্ত দাবিগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের জোর দাবি জানাচ্ছি।”

দাবিগুলো হলো-

১. সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস রোধে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিত করে আলাদা আইন প্রণয়ন করতে হবে।

২. সাম্প্রতিক প্রতিটি নির্যাতনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি ও গোষ্ঠিকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

৩. সারাদেশে আক্রান্ত পরিবারগুলোর ক্ষতি নিরূপন করে তাঁদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে।

এছাড়া গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে এ দাবিগুলো পূরণ সরকারকে আগামী ১ মাসের মধ্যে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানানো হয়েছে।

 

উৎস-পরিবর্তন.কম

Leave a Reply