বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ভারতে

image_71544.t-20

 

বাংলাদেশে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম পর্ব খেলে মূল পর্ব সুপার টেনে খেলতে হয়েছিল স্বাগতিক বাংলাদেশকে। র‌্যাঙ্কিংয়ে এগোতে না পারলে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও একই ভাবে প্রথম পর্ব খেলে মূল পর্বে খেলতে হতে পারে বাংলাদেশকে। ২০১৬ সালে ভারতে হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। বাংলাদেশে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো ‘প্রথম পর্ব’ ও ‘সুপার টেন’ ফরম্যাটেই ষষ্ঠ আসরটি আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আইসিসি। দুবাইতে বৃহস্পতিবার আইসিসির সভা শেষে জানানো হয়, ২০১৬ সালের আসরের মূল পর্বের আট দল বেছে নেওয়া হবে ২০১৪ সালের ৩০ এপ্রিলের টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিং অনুযায়ী। এই র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ আট পূর্ণ সদস্য দেশই মূল পর্বে সরাসরি খেলার সুযোগ পাবে। সহযোগী কোনো দেশ আটের মধ্যে থাকলেও তাকে বাছাইপর্ব খেলে আসতে হবে। আর টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের পূর্ণ সদস্য দেশগুলোর মধ্যে নবম ও দশম দলগুলো সরাসরি খেলবে ‘প্রথম রাউন্ডে’।
প্রথম রাউন্ডের বাকি ছয়টি দল আসবে এবারের মতোই বাছাই পর্ব খেলে। আগামী ৯ জুলাই থেকে ২ আগস্টে আয়ারল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডে হবে ১৪টি দলের আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাই টুর্নামেন্ট। এবার কোনো মতে শ্রেয়তর রান রেটের হিসেবে নেপালকে হটিয়ে দেশের মাটিতে মূল পর্বে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ।বর্তমানে টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ আছে দশম অবস্থানে। আর আইসিসির পূর্ণ সদস্যদের মধ্যে তারা নবম। ২০১৪ সালের ৩০ এপ্রিলের মধ্যে র‌্যাঙ্কিংয়ে এক ধাপ এগোতে না পারলে বাংলাদেশকে পরের বিশ্বকাপেও প্রথম রাউন্ডের বাঁধা পেরিয়েই মূল পর্বে খেলতে হবে। টেস্ট খেলুড়ে দেশ বাংলাদেশ এবার প্রথম পর্বে হেরে গিয়েছিল হংকংয়ের কাছে। আর আয়ারল্যান্ডের কাছে হেরে তো প্রথম পর্ব পেরুতেই পারেনি অরেক পূর্ণ সদস্য জিম্বাবুয়ে।