বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৭ মাঘ ১৪২৯খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

বেতার শিল্পীদের পেনশন চালুর ঘোষণা

image_163426.pm (7)

 

বেতারের শিল্পীদের জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালুসহ তাদের সম্মানির হার বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ সোমবার বাংলাদেশ বেতারের হীরকজয়ন্তী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এ ঘোষণা দেন। এসময় তিনি বলেন, এটা আমি জানি, বেতারের কলাকুশলীরা নানা সমস্যার মধ্যে আছে। তাদের সব সমস্যা সমাধান করতে বর্তমান সরকার কাজ করছে। শিল্পী ও কলাকুশলীদের পদোন্নতির একটা সমস্যা বাংলাদেশ বেতারে আছে বলেও জানি। অচিরেই এসবের সমাধান করা হবে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তাদের সম্প্রচার ক্যাডার নামে স্বতন্ত্র ক্যাডার সার্ভিস প্রদানের দাবি দীর্ঘ দিনের। সম্প্রচার ক্যাডারের বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
মুক্তিযুদ্ধকালে বেতারের ভূমিকার কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতাযুদ্ধে রণাঙ্গনে যারা যুদ্ধ করত তাদের কাছে বেতার নানা ধরনের খবর প্রচার করত। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমি ও শেখ রেহানা ট্রানজিস্টার হাতে নিয়ে বসে থাকতাম মুক্তিযুদ্ধের খবর শোনার জন্য। তখন বেতারের চরমপত্র খুবই জনপ্রিয় ছিল। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের প্রচারণা শুনতাম। সারা বাংলার অবরুদ্ধ মানুষকে প্রেরণা দিয়েছে বেতার।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে হত্যা করার পর বাংলাদেশ বেতারের নাম হয়ে যায় রেডিও বাংলাদেশ। আওয়ামী লীগ ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসে বেতারের গৌরব ফিরে আনার জন্য কাজ করেছে। আমরা ক্ষমতায় এসে রেডিও বাংলাদেশের নাম বদলে বাংলাদেশ বেতার দিয়েছি। তিনি আরো বলেন, আমাদের কৃষ্টি-কালচার, সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রচার আমরা বেতারের মাধ্যমেই পাই। এ কারণে বেতারকে আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন করে গড়ে তুলতে চাই।স্বাধীনতার পর পরই জাতির পিতা বহির্বিশ্বের ছয়টি ভাষায় বেতারের প্রচার কার্যক্রম হাতে নিয়েছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯৬ সালে আমরা ক্ষমতায় আসার পর কবিরপুরে অত্যন্ত আধুনিক প্রযুক্তির টান্সমিটার স্থাপন করেছি। যার ফলে আজকের বেতার ছয়টি ভাষায় অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। ২০০৬ সালে ঢাকার অদূরে ধামরাইয়ে আরেকটি অধিক ক্ষমতা সম্পন্ন টান্সমিটার স্থাপন করি। ইতিমধ্যে স্যাটেলাইট বসানোর উদ্যোগ নিয়েছি। বাংলাদেশ বেতারও স্যাটেলাইটের মাধ্যমে প্রচার কার্যক্রম চালাতে পারবে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে মোবাইল ফোনেও বেতারের কার্যক্রম চালানো হবে। এ ছাড়া বর্তমান সরকার বেসরকারি খাতে ২৮টি এফএম রেডিও চালুর অনুমোদন দিয়েছে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।