মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

বৃহস্পতিবার থেকে বিশ্বকাপ ফুটবল শুরু: অগ্নি পরীক্ষায় ব্রাজিল

world cup_110453

রাত পোহালেই বিশ্বকাপ। দীর্ঘ চার বছরের প্রতীক্ষার পর আবার এসেছে বিশ্বকাপ উৎসব। প্রথম দিনেই মাঠে নামছে স্বাগতিক ব্রাজিল।
বৃহস্পতিবার সাওপাওলোর অ্যারেনা করিন্থিয়ান্স মাঠে ২০তম বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার মুখোমুখি হবে ফুটবলের দেশ ব্রাজিল। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ সময় রাত ২টায়। আগেই শুরু হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে থাকছে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী সাম্বা নৃত্য। সর্বাধিক ৫বার বিশ্বকাপ জিতলেও নিজেদের মাটিকে জয়ের ইতিহাস নেই ব্রাজিলের। আর সেজন্য এবারের স্বাগতিক দেশ হিসেবে ব্রাজিলের জন্য রয়েছে বাড়তি চাপ। তার চেয়ে বড় কথা উদ্বোধনী ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার সাথে লড়াইয়ে কতটুকু শুভ সুচনা করতে পারবে ব্রাজিল। কারণ এর আগে সব কটি উদ্বোধনী ম্যাচেই ট্রফি জয়ী সেরা দলগুলো উদ্বোধনী খেলায় ধরাশায়ী হয়েছে।বিশ্বকাপ ফুটবলে জায়ান্ট দলগুলোর জন্য সবচেয়ে বড় আতঙ্ক হয়ে দেখা দেয় উদ্বোধনী ম্যাচ। সর্বশেষ গত বিশ্বকাপে উদ্বোধনী ম্যাচে খেলেনি কোনো বড় দল। স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা ও মেক্সিকোর মধ্যকার ওই ম্যাচটি ড্র হয় ১-১ গোলে। দু-একটি বিশ্বকাপ ছাড়া বেশির ভাগ সময় উদ্বোধনী ম্যাচে পরাজিত হয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বড় দলগুলোকে। ১৯৭৪-এ বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে যুগোশ্লাভিয়ার সঙ্গে গোলশূন্যভাবে ড্র করে ব্রাজিল।১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ জয়ী আর্জেন্টিনা ১৯৯০-এর আসরের প্রথম ম্যাচেই ক্যামেরুনের কাছে পরাজিত হয়। ২০০২ সালে একই পরিণতি হয় ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্সের। প্রায় প্রতিটি বিশ্বকাপেই উদ্বোধনী ম্যাচে বড়দের হোঁচট খেতে হয়েছে। তবে ব্রাজিলের ইতিহাসটা কিছুটা পজিটিভ। সর্বশেষ ব্রাজিল উদ্বোধনী ম্যাচ খেলেছে ১৯৯৮ সালে। ঐ ম্যাচে অবশ্য স্কটল্যান্ডকে ২-১ গোলে পরাজিত করে জয়ী হয় ব্রাজিল। এবারও স্বাগতিক দেশ হিসেবে ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে মাঠে নামতে হচ্ছে ব্রাজিলকে। নেইমারের দল ব্রাজিলের ওপর এবার বাড়তি চাপ একদিকে স্বাগতিক হিসেবে ট্রফি দেশে রাখা। সেই সাথে উদ্বোধনী ম্যাচে কোন অঘটনের শিকার না হয় এমন কামনা ব্রাজিল সমর্থকদের।