শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১, ৩০ আশ্বিন ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

বগুড়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগুন দিলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত শিক্ষক

6221_b3

নির্বাচনী সহিংসতায় সরকারি অনুদান পাওয়ার আশায় বগুড়ার শাজাহানপুরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেঞ্চে আগুন ধরিয়ে দেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত এক প্রধান শিক্ষক। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় শাহজাহানপুর উপজেলার ১০৬ নং নির্বাচনী কেন্দ্র সুজাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এ ঘটনায় স্থানীয় গ্রামবাসী ওই প্রধান শিক্ষককে বিদ্যালয়ে অবরুদ্ধ করে মারমুখো অবস্থান নিলে খবর পেয়ে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেন। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঘটনাস্থলে পৌঁছান এবং প্রধান শিক্ষককে আটকের নির্দেশ দেন। এ ঘটনায় শাজাহানপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সারা দেশে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত সকল কেন্দ্রের সরকারি অনুদান দেয়ার ঘোষণায় প্রভাবিত হয়ে অবৈধ ভাবে অর্থনৈতিক লাভবান হওয়ার আশায় নিজ বিদ্যালয়ের বেশ কিছু বেঞ্চে আগুন ধরিয়ে দেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রধান শিক্ষক আলহাজ আব্দুল মান্নান। বেঞ্চগুলো দপ্তরি ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ভয় দেখিয়ে বহন করে বিদ্যালয়ের পাশে দপ্তরি বাবু মিয়ার বাড়ির আড়ালে নিয়ে গিয়ে আগুন ধরিয়ে দেন তিনি। ঘটনাটি স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে কারণ জিজ্ঞাসা করতে গেলে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নান। নিজে অগ্নিসংযোগ করে নিরপরাধ গ্রামবাসীদের হয়রানির মধ্যে ফেলতে পারে এমন ভয়ে ভীত হয়ে গ্রামবাসীরা একত্রিত হয়ে ওই প্রধান শিক্ষককে বিদ্যালয়ে অবরুদ্ধ করে। খবর পেয়ে থানার ওসি আবদুল মান্নান সঙ্গীয় ফোর্স সহ ঘটনাস্থলে যান। এর পরপরই নির্বাচনে উপজেলা ক্যাম্পের দায়িত্বে থাকা সেনাবাহিনীর এক মেজরের নেতৃত্বে একদল সেনা সদস্য সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেন। এর পর দুপুর সোয়া ১২টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুর রহমান ঘটনাস্থলে পৌঁছান এবং প্রত্যক্ষদর্শী, সহকারী শিক্ষক ও দপ্তরির দেয়া জবানবন্দিতে প্রধান শিক্ষককে আটকের নির্দেশ দেন। পুলিশ প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নানকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। আটক প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নান বলেন, আমি কেন নিজ স্কুলের আসবাবপত্রে আগুন দিবো? এটা অন্য কেউ করেছে। কিন্তু ওই স্কুুলের দপ্তরি বাবু মিয়া জানান, প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে আমি আগুন দিয়েছি। আগুন দেয়ার জন্য আমাকে ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে। সুজাবাদ গ্রামের আজাদুর রহমান জানান, প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নান একজন আওয়ামী লীগ সমর্থক। বিভিন্ন সময় তাকে আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে দেখা গেছে। শাহজাহানপুর থানার ওসি আবদুল মান্নান জানান, প্রাথমিক ভাবে আগুন লাগার ঘটনায় প্রধান শিক্ষকের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। এব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুর রহমান বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। প্রধান শিক্ষকের পক্ষ থেকে সন্তোষজনক জবাব না পাওয়ায় তাকে আটকের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তদন্তসাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

উৎস-মানবজমিন

Leave a Reply