মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

নতুন ইতিহাসে শেখ রাসেল

23041_s1

‘সি’ গ্রুপে একটি দল কম থাকায় জটিল সমীকরণে পড়েছিল বাংলাদেশের শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। চূড়ান্ত পর্বের টিকিট পেতে ভুটান উজ্ঞান ফুটবল একাডেমির সঙ্গে হারলে চলবে না ট্রেবল জয়ীদের। ড্র কিংবা জয় এমন ম্যাচে জিতেই এএফসি প্রেসিডেন্টস কাপের চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিত করলো শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। তাও ৪-০ গোলের বড় ব্যবধানে। এই জয়ের সুবাদে তিন ম্যাচে সাত পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ সেরা শেখ রাসেল। অপর খেলায় কেআরএলকে হারিয়ে শেখ রাসেলের সঙ্গী শ্রীলঙ্কান এয়ারফোর্স। আগের ম্যাচের সঙ্গে গতকালের গোলদাতার নাম অনেকটা এক। এ ম্যাচেও জোড়া গোল করেছেন স্ট্রাইকার মিঠুন চৌধুরী। বাকি গোল দুটি এসেছে শাকিল আহাম্মেদ ও প্যাসকেল মিলিয়ানের পা থেকে। শ্রীলঙ্কা এয়ার ফোর্সের বিরুদ্ধে পঞ্চম গোলটি করেছিলেন সবুজ বিশ্বাস। এটি এএফসি প্রেসিডেন্টস কাপে বাংলাদেশী কোন ক্লাবের সেরা সাফল্য। চলতি বছর শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবও চমক দেখিয়েছিল ভারতের প্রাচীন ফুটবল টুর্নামেন্ট আইএফএ শীল্ডে। ওই টুর্নামেন্টে কলকাতা মোহামেডানের বিপক্ষে টাইব্রেকারে হেরে রানার্সআপ ট্রফি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল বাংলাদেশের ক্লাবটিকে। এর আগে এএফসি প্রেসিডেন্টস কাপের বাছাই পর্বে পাঁচবার অংশ নেয় আবাহনী লিমিটেড। কিন্তু কোন বারই বাছাই পর্বের গন্ডি পেরুতে পারেনি আকাশী-হলুদরা।
এবার বাংলাদেশের পেশাদার লীগ চ্যাম্পিয়নরা পাকিস্তানের কেআরএল ফুটবল ক্লাবের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র দিয়ে ‘এ’ গ্রুপে যাত্রা শুরু করে। দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কান ক্লাব এয়ারফোর্স এফসিকে ৫-০ গোলে হারিয়ে চূড়ান্ত পর্বে খেলার আশা জাগায় গত মওসুমের ট্রেবল জয়ীরা। শেষ ম্যাচে হারলে চলবে না, এমন সমীকরণের ম্যাচে গতকাল মিডফিল্ডার রবিনের বদলে সবুজ বিশ্বাসকে একাদশে জায়গা দেন মন্টিনেগ্রোর কোচ দ্রাগান দুকানিভিচ। ম্যাচের শুরু থেকে উজ্ঞান একাডেমির বিপক্ষে আক্রমণাত্মক খেলতে থাকে শেখ রাসেল। প্রথম ১০ মিনিটেই দুইটি সহজ গোলের সুযোগ নষ্ট করেছেন হাইতিয়ান মিডফিল্ডার প্যাসকেল ও ফরোয়ার্ড মিঠুন চৌধুরী। এরপরও ম্যাচের ১৪ মিনিটেই গোলে দেখা পেয়েছে ব্লুজরা। মিঠুনের থ্রু বক্সের ভেতর দাঁড়ানো প্যাসকেলের শট দেয় শেখ রাসেলকে (১-০)। রাইট উইংয়ে আত্মবিশ্বাসী প্যাসকেলের সাজানো বলে ২১ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেছেন মিঠুন। এটি এ আসরে মিঠুনের তৃতীয় গোল। ২৮ মিনিটে শেখ রাসেলের হয়ে তৃতীয় গোলটি করেছেন শাকিল আহমেদ। মিঠুনকে পাহারায় ব্যস্ত থাকা উজ্ঞান ডিফেন্সকে বোকা বানিয়ে, ডানপ্রান্ত থেকে প্যাসকেলের ক্রসে দারুণ প্লেসিংয়ে স্কোরলাইন ৩-০ করেন শাকিল আহাম্মেদ। দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই মিডফিল্ডের দখল নিয়ে নেয় শেখ রাসেল। অন্যদিকে গোলের আশায় থাকা উজ্ঞান বল দখল করতেই হিমশিম খাচ্ছিল। এরই মধ্যে দুই একবার যাও বল পেয়েছে দূরপাল্লার শটেই গোলের চেষ্টা করেছে। শেখ রাসেলের গোলরক্ষক বিপ্লব ৩টা ভাল সেভও করেছেন। শেখ রাসেল আক্রমণে গিয়েছে বুঝেশুনে। গোল করার চাইতে বল পজিশন নিজেদের দখলে রাখতেই মনোযোগী ছিল তারা। ৮৮ মিনিটে উজ্ঞানের পরাজয়ের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকেছেন মিঠুন চৌধুরী। ৪-০ গোলে জয় দিয়ে ৭ পয়েন্ট নিয়ে চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে শেখ রাসেল। এদিকে গ্রুপের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের কেআরএলকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে স্থানীয় শ্রীলঙ্কান এয়ারফোর্স। দল দু’টি আগামী সেপ্টেম্বরে অংশ নিবে চূড়ান্ত পর্বে, যেখানে অংশ নিবে তিন গ্রুপের সেরা ৬ দল।