বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

এএসপিকে শামীমের হুমকি, জিডি

29757_f3

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপনির্বাচনে জাল ভোট দিতে বাধা দেয়ায় দায়িত্ব পালনরত এএসপি বশির উদ্দিনকে হুমকি দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমান। এ ঘটনায় শঙ্কিত হয়ে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করেছেন তিনি। গতকাল উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের কেওঢালা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। সাংবাদিকদের কাছে এএসপি বশিরউদ্দিন যখন এ ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছিলেন তখন কেন্দ্রের বাইরে থেকে শামীম ওসমানের ক্যাডাররা ইশারায় ‘ভাল হবে না’ হুমকি দিচ্ছিলেন। এসব দৃশ্য দেখা গেছে টেলিভিশনের সচিত্র সংবাদে। শামীম ওসমানের হুমকির বিষয়ে এএসপি বশির উদ্দিন বলেন, মদনপুর ও ধামকুর ইউনিয়নের নিরাপত্তা ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলাম আমি। দায়িত্ব পালনের অংশ হিসেবে মদনপুর ইউনিয়নের কেওঢালা কেন্দ্রে যাই। সেখানে প্রিজাইডিং অফিসার ও পুলিশ ইনচার্জ আমাকে জানান, স্থানীয় সালাম চেয়ারম্যান (মদনপুর ইউনিয়ন) এসে বলেছেন, পুলিশের কেউ এখান থেকে মাথা নিয়ে যেতে পারবে না। যদি আমাকে এখানে কাজ করতে দেয়া না হয় তাহলে আনসার, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ- আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কেউ বেঁচে থাকবে না এবং একটাও এখান থেকে যেতে পারবে না। এখানে আমার মতো করে কাজ করতে দিতে হবে। আমি একথা শোনার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ পাঠিয়েছি চেয়ারম্যানকে নিয়ে আসার জন্য, যে তার সঙ্গে আমি কথা বলবো। কিন্তু চেয়ারম্যান আসেননি। তারপর চেয়ারম্যান আরেকজনের ফোনে আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। আমি তাকে জিজ্ঞেস করেছি, আপনি ভোট দিয়েছেন কিনা। তিনি বললেন যে, হ্যাঁ ভোট দিয়েছেন। তারপর আমি বললাম, আপনি আজকের দিনের জন্য শুধু একজন ভোটার, এর বেশি কিছু নন। আপনি ভোট দিয়ে চলে যান। আপনাকে কেউ ডিস্টার্ব করবে না, আপনিও কাউকে ভোট দিতে ডিস্টার্ব করবেন না। এ কথা বলার পর তিনি বলেন- আপনি কি আমাকে থ্রেট দিচ্ছেন? আমি বললাম- আমি তো থ্রেট দিচ্ছি না। থ্রেট তো আপনি দিলেন। তখন উনি বললেন, আপনি কে? আপনার পরিচয় কি? আপনি থাকেন আমি আপনাকে দেখাচ্ছি। এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে এই ঘটনা আমি আমার পুলিশ সুপারকে জানাই। পুলিশ সুপার নির্দেশ দিলেন, তাকে (সালাম চেয়ারম্যান) অ্যারেস্ট করো। আমি ফোর্স পাঠাচ্ছি। তুমি দ্রুত তাকে গ্রেপ্তারের আওতায় নিয়ে আসো। সঙ্গে সঙ্গে আমি র‌্যাবকে, বিজিবিকে কল করলাম। তারাও পৌঁছলো। আমার ফোর্সের সংখ্যাও বাড়লো। আমি যখন তার বাড়ির আশপাশে রেড দিয়ে গ্রেপ্তারের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম তখন শামীম ওসমান আমাকে ফোন দিলেন। তিনি আমাকে বললেন- আমি সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলছি। আমি বললাম আপনি কেমন আছেন? উনি বললেন- তুমি আমার চেয়ারম্যানকে অ্যারেস্ট করার প্রিপারেশন নিচ্ছো কেন? তখন আমি বললাম, আপনার চেয়ারম্যান কেন্দ্র দখল করতে এলে আমি তাকে গ্রেপ্তার করবো না? তখন তিনি আমাকে বললেন, প্লিজ, আমি শামীম ওসমান বলছি। আমি কাউকে প্লিজ বলি না। প্লিজ, আমি বলছি- তুমি কেন্দ্রটা ছেড়ে দাও। তুমি তোমার মতো চলে যাও। সময় দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে বিকাল ৪টার মধ্যে ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ভোট দিতে হবে। তুমি কেন্দ্রটি ছেড়ে দিয়ে চলে যাও। আমি তখন বললাম- আমি পারবো না। এখন আমার চাকরি নির্বাচন কমিশনের অধীনে। আমি এখানে প্রজাতন্ত্রের চাকরি করতে এসেছি। এসময় সাংবাদিক এএসপিকে প্রশ্ন করেন- উনি (শামীম ওসমান) কি আপনাকে স্যরি বলেছেন। উত্তরে এএসপি বলেন, উনি কোন স্যরি বলেননি। এর কিছু সময় পর আবার আমাকে ফোন দিলেন। আমাকে ফোনে রেখে তিনি প্রধানমন্ত্রীর এপিএস মালেক সাহেবের সঙ্গে কথা বললেন। তিনি আমাকে শুনিয়ে বলছিলেন, ‘আমি শামীম বলছি, মালেক তুমি প্রধানমন্ত্রীকে বলো আমি কি রাজনীতি করবো, নাকি করবো না।’ আমি বললাম আপনি কার সঙ্গে কথা বলছেন- এটা আমার দেখার বিষয় না। আমি একজন ছোট অফিসার। আমি এখানে দায়িত্ব পালন করতে এসেছি। আমার দায়িত্বটা আমাকে পালন করতে দিন। এ কথা বলার পর শামীম ওসমান আমাকে গালি দিয়ে বলেন, কুত্তার বাচ্চা, শুয়োরের বাচ্চা, বাস্টার্ড তুই কি করবি কর, তোকে আমি দেখে নেবো। এএসপি বলেন, আমি বিষয়টি আমার ঊর্ধ্বতন অফিসারকে জানিয়েছি। উনি যখন ফোনে কথা বলছিল- র‌্যাবের মেজর সোহেল সাহেব এখানে উপস্থিত ছিলেন। আমি লাউড স্পিকারে শুনিয়েছি। আমার বডিগার্ড, আমার ড্রাইভারও শুনেছে। এই ঘটনায় আমি শঙ্কিত। উনি আমাকে থ্রেট দিয়েছেন। উনি কেন্দ্রের ক্লিয়ারেন্স চাইছেন।এদিকে, নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের বেশির ভাগ কেন্দ্রই ছিল ভোটারশূন্য। পাশাপাশি কিছু কিছু কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়ারও অভিযোগ ওঠে। প্রথম ১ ঘণ্টায় বেশ কিছু কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায় কোন কোন বুথে একটি বা দু’টি ভোট পড়েছে। আবার কোন কোন কেন্দ্রেড়একই সময়ে মোট ভোটের মধ্যে কিছু পড়লেও তা শতকরা এক থেকে দুই ভাগের বেশি নয়। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কিছু ভোট পড়লেও ভোট গ্রহণ শেষে তা অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যায় ড়শতকরা ৪০ ভাগ থেকে ৫০ ভাগ।ড়তবে ভোটারদের ড়দীর্ঘ লাইন কোথাও দেখা যায়নি। অনেকেই একে গায়েবি ভোট ড়হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। নারায়ণগঞ্জ উপনির্বাচনে দু’টি ড়ভোট কেন্দ্রের প্রথম ঘণ্টা ও ভোটগ্রহণ শেষে সরজমিন অনুসন্ধানে এ চিত্র পাওয়া গেছে। ফুলহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার ড়৩৩১২। প্রিজাইডিং অফিসারড়এটিএম মোতালিব জানান, সকাল সোয়া ৯টা পর্যন্ত ওই কেন্দ্রের একটি বুথে মাত্র একটি ভোট পড়ে। তবে ৭টি বুথে একই সময় পর্যন্ত ৫৮টি ড়ভোট পড়েছে। একই চিত্র কুড়িপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ড়কেন্দ্রের ২ নং বুথে সকাল সাড়ে নয়টা পর্যন্ত একটি মাত্রড়ভোট পড়ে। তবে ড়কেন্দ্রে কতটিড়ভোট পড়েছে তা জানাতে অস্বীকৃতি জানান প্রিজাইডিং অফিসার আজহারুল ইসলাম। এই কেন্দ্রের ১ নং মহিলা বুথের পোলিং অফিসার ও পোলিং এজেন্টদের বসে থাকতে দেখা গেছে। জামেয়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা ড়কেন্দ্রে ড়মোট ড়ভোটার ২২৫৯। প্রিজাইডিং অফিসার তাপস কুমার সাহা জানান, প্রথম ঘণ্টায় ৩৬টি ভোট কাস্ট হয়েছে। আর বিকাল ৪টায় ভোট গ্রহণ শেষে তিনি বলেন মোট ১০৫০ ভোট কাস্ট হয়েছে। এছাড়া, জাঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১৭৬১ ভোটের মধ্যে সকাল সোয়া ১১টা পর্যন্ত ৪৪০ ভোট পড়েছে বলে প্রিজাইডিং অফিসারড়মোস্তফা মিয়া জানান। ড়বিকাল ৪টায় ভোটগ্রহণ শেষে তিনি ড়মানবজমিনকে বলেন, ওই কেন্দ্রে মোট ভোটের ড়মধ্যে ১১৫২ ভোট কাস্ট হয়েছে। নির্বাচনী এলাকার অন্যান্যড়কেন্দ্রেও ড়ভোটার উপস্থিতি বেলা ১২টা পর্যন্ত ছিল কম। তবে ড়বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ড়ভোটার উপস্থিতি কিছুটাড়বাড়লেও ভোটারদের ড়দীর্ঘ লাইন কোথাও দেখা যায়নি। প্রিজাইডিং, পোলিং অফিসার ও পোলিং এজেন্টদের নির্বাচন কমিশনে দেয়া পরিচয়পত্রে ছবিসংযুক্ত থাকার কথা থাকলেও কুড়িপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ড়কেন্দ্র, জাঙল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বেশির ভাগ কেন্দ্রে ঘুরে তা দেখা যায়নি। ড়কেন নেই পরিচয়পত্রের সঙ্গে ছবি- এ প্রশ্নে জামেয়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা ড়কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার তাপস কুমার সাহা বলেন, ড়আপনারা মনে করিয়ে দিয়ে উপকার করেছেন। আর বুনিয়াদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার বলেন, আপনারা বসুন প্লিজ, একটু আপ্যায়ন করাবো।