মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

৯ মিনিটে ৫ গোল!

bayern-munich-image

ডাগ আউটেই বসেছিলেন। পেশির চোটের কারণে উলফসবার্গের বিপক্ষে বায়ার্নের প্রথম একাদশে ছিলেন না রবার্ট লেভোনডোফস্কি।
কিন্তু দলের বিপর্যয়কর পরিস্থিতিতে মাঠে নেমে কী জাদুই না দেখালেন পোল্যান্ড জাতীয় দলের এই অধিনায়ক। মাত্র নয় মিনিটের মধ্যে ৫ গোল করে গড়লেন নতুন এক ইতিহাস। ১-০ গোলে পিছিয়ে থাকায় বায়ার্ন মিউনিখ বুন্দেসলিগায় উলফসবার্গের বিপক্ষে পেল ৫-১ গোলের দারুণ তৃপ্তির এক জয়।
হ্যাটট্রিকটি তিনি পূরণ করেছেন মাত্র ৩ মিনিটের ব্যবধানে। তাঁর প্রথম গোলটি আসে ৫১ মিনিটে। পরের মিনিটেই (৫২) তিনি পেয়ে যান তাঁর দ্বিতীয় গোল। জোড়া গোলের আনন্দের রেশ কাটতে না কাটতেই ৫৫ মিনিটে লেভোনডোফস্কি পেয়ে যান তাঁর হ্যাটট্রিকটি। এইটুকু কীর্তিই যেখানে যথেষ্ট হতে পারত, সেখানে এই পোলিশ স্ট্রাইকার এগিয়ে গেলেন আরও বড় কীর্তির দিকেই। ৫৭ মিনিটে করলেন তাঁর চতুর্থ গোলটি। আর পঞ্চম গোল করে গোটা আলিয়াঞ্জ অ্যারেনাকে বিহ্বল করে দেন তিনি ম্যাচের ৬০ মিনিটে। বায়ার্ন মিউনিখের ইতিহাসে প্রথম বদলি খেলোয়াড় হিসেবে লেভোনডোফস্কি গড়লেন এক ম্যাচে পাঁচ গোলের অনন্য এই কীর্তিগাথা।

সর্বকালের রেকর্ডটা অবশ্য অল্পের জন্য অধরাই থেকে গেছে লেভোনডোফস্কির। আর একটি গোল করলেই (ছয়টি) তিনি ছুঁয়ে ফেলতেন কোলন স্ট্রাইকার ডিয়েটার মুলারের ১৯৭৭ সালের গড়া রেকর্ডটি। আজ থেকে ৩৮ বছর আগে ভ্রেদার ব্রেমেনের বিপক্ষে কোলনের ৭-২ গোলে জেতা ম্যাচে মুলার একাই করেছিলেন ৬ গোল।

লেভোনডোফস্কির এমন কীর্তি তো এটাই প্রথম নয়! ২০১৩ সালের চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের হয়ে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে এই লেভোনডোফস্কিই করেছিলেন চার-চারটি গোল। তাঁর সেই কীর্তি চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসেরই অন্যতম সেরা হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে।

নয় মিনিটে পাঁচ গোলের এই কীর্তি যেন নিজেরই বিশ্বাস হচ্ছে না লেভোনডোফস্কির। ম্যাচে শেষে সংবাদমাধ্যমকে তিনি কী বলবেন সেটাই ভেবে পাচ্ছিলেন না। কোনো মতে নিজেকে সামলে নিয়ে এই অনন্য অর্জনে নিজের উচ্ছ্বাসটাই কেবল প্রকাশ করলেন, ‘ব্যাপারটা অচিন্তনীয়। কোনো দিন ভাবিনি যে এমন কিছু করতে পারব। অবিশ্বাস্য এক কাণ্ড ঘটালাম আমি। তবে আমি খুশি। আমি সন্তুষ্ট। সবচেয়ে বড় কথা আমার এই অর্জন দলকে এনে দিয়েছে দুর্দান্ত এক জয়।

ম্যাচে শেষে ঘোরের মধ্যে ছিলেন বায়ার্ন কোচ পেপ গার্দিওলাও। তিনি আসলেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না চোখের সামনে কিছুক্ষণ আগে তিনি যা দেখেছেন তা সত্যি কি না, ‘আমার চোখের সামনে এমন কিছু ঘটবে, সেটার জন্য প্রস্তুত ছিলাম না আমি। আমার কোচিং জীবনে এমন অনন্য ঘটনার মুখোমুখি আমি আগে কখনো হইনি। উফ্! নয় মিনিটে পাঁচ গোল!! তবে রবার্ট (লেভোনডোফস্কি) কিন্তু আমার দৃষ্টিতে এই দুনিয়ারই অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার।

লেভোনডোফস্কি মাত্র ৩ মিনিটের ব্যবধানে হ্যাটট্রিক করে ভেঙে দিয়েছেন ডুয়েসবার্গের মিচেল টোয়েন্নিয়েসের রেকর্ড। ১৯৯১ সালে এই টোয়েন্নিয়েস বুন্দেসলিগার এক ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছিলেন ছয় মিনিটের ব্যবধানে।
লেভোনডোফস্কির এই কীর্তির দিন তাঁকে অভিনন্দিত করতে ভোলেননি টোয়েন্নিয়েস নিজে, ‘রবার্ট এই রেকর্ড নিজের করে নিয়েছে, সে জন্য ওকে অভিনন্দন। আমি ২৪ বছর ধরে রেকর্ডটি দখলে রেখেছিলাম। সেই দখল হারিয়ে খারাপ যে লাগছে না সেটা বলব না। তবে আমার তৃপ্তি আমি রবার্টের মতো একজন দারুণ স্ট্রাইকারের কাছে হার মানলাম। সে যা করেছে, তা সত্যিই অবিশ্বাস্য।