শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

হালদা নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধের দাবীতে দুবাইয়ে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুবাই :
nnnnn
চট্টগ্রামের হাটহাজারী নাঙ্গলমোড়া হালদা নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধ প্রবাসী কমিটির উদ্যোগে নদী ভাঙ্গন রোধে কার্যকর পদক্ষেপের দাবীতে গত বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুবাইয়ের একটি হোটেলে সাংবাদিক সম্মেলন এর আয়োজন করা হয়। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্রতিরোধ প্রবাসী কমিটির সদস্য সচিব শফিউল আজম মনির।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘মৎস প্রজনন কেন্দ্র ও হাজার হাজার মানুষের জীবন জীবিকার জন্য এই হালদা নদী আমাদের জন্য আর্শীবাদ হলেও বিগত কয়েকবছর যাবৎ হালদা নদীর ভয়াবহ রুপ চীনের হুয়াংহু নদীর মতো অভিশাপ ও দুঃখের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নদীর তীব্র ভাঙ্গনে প্রায় দুইশত পরিবার বসত ভিটা হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে বিভিন্ন জায়গায় মানবেতর জীবন যাপন করছে। প্রায় আড়াই কিলোমিটার এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এলাকাবাসীর এ ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যাবে না। নাঙ্গলমোড়া ইউনিয়নের প্রধান সড়ক, প্রাইমারী স্কুল, মসজিদ, মক্তব প্রভৃতি প্রতিষ্ঠানগুলো অচিরেই নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যেতে পারে।’
তিনি আরো বলেন,  ‘দুঃখের বিষয় আমাদের হাটহাজারী উপজেলার সাংসদ বর্তমান বাংলাদেশ সরকারের পানি উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করলেও এক্ষেত্রে এলাকাবাসী কার্যকর কোন ফল লাভ হতে বঞ্চিত। আমরা আমাদের ভবিষৎ নিরাপদ রাখতে হালদা নদী ভাঙ্গন রোধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের নিমিত্তে মাননীয় মন্ত্রী ব্যারিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহামুদের দৃষ্টি আর্কষনের লক্ষ্যে এই সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেছি।আমরা বিশ্বাস করি জনবান্ধব ও জনগনের সমস্যা সমাধানে আন্তরিক বর্তমান সরকারই আমাদের দাবী পূরণ করতে পারবে।’
এসময় এলাকাবাসী ও কমিটির পক্ষে রুহুল আমিন, নেজাম উদ্দিন মিজান, মোঃ আব্দুল্লাহ নোমান সাগর, মোঃ মুছা, মোঃ রাসেল, জাহাঙ্গীর আলম, জয়নাল আবেদীন জুনু, ইয়াকুব আলী, প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। তারা উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।  দুবাই বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শৈবাল বড়ুয়া, সহঃ সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান চৌধুরী, আপ্যায়ন সম্পাদক মোঃ সেলিম উদ্দিন, সদস্য মোঃ আইয়ুব এই সম্মেলনে উপস্থিত থেকে এই দাবীর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন। পরে উপস্থিত সকলে দুবাইস্থ বাংলাদেশ কন্স্যুলেট জেনারেল এর কার্যালয়ে গিয়ে মাননীয় পানি সম্পদ মন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি হস্তান্তর করে। মান্যবর কন্স্যাল জেনারেলের পক্ষে কন্স্যুলেটের প্রথম সচিব কিরীটি চাকমা স্মারকলিপি গ্রহণ করে যথাযথ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের আশ্বাস দেন।