বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

সীমান্তে বিজিবি সদস্য হত্যার ঘটনায় মিয়ানমারের দুঃখ প্রকাশ

image_92882.teknaf_107916

মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বর্ডার গার্ড পুলিশ বিজিপি গত ২৮ মে নাইক্ষ্যংছড়ির পাইনছড়ি সীমান্তে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি’র নায়েক সুবেদার মিজানুর রহমানকে হত্যার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছে। সীমান্তে ওই দিনের হামলার ঘটনাটি ভুলবশত সংঘটিত হয়েছে বলে তারা স্বীকার করেছে।বৃহস্পতিবার বৃহষ্পতিবার বিজিবি ও বিজিপি’র মধ্যেকার অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠকে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা এ দুঃখ প্রকাম করেন। বৈঠকে নিহত বিজিবি সদস্য মিজানের ব্যবহ্রত অস্ত্র এবং গুলি বিজিপি ফেরৎ দিয়েছে।মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের বন্দর শহর মংডুতে আজ এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ে অনুষ্টিত বৈঠকে বাংলাদেশের ২৩ সদস্য বিশিস্ট প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন কক্সবাজারের বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল খন্দকার ফরিদ হাসান এবং সেদেশের ১৫ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন মিয়ানমারের ডিরেক্টর পুলিশ বিগেডিয়ার মিঃ থিন কো কো। মংডু থেকে ফিরে সন্ধ্যায় বিজিবি প্রতিনিধি দল টেকনাফ ফিরে এসে সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল খন্দকার ফরিদ হাসান এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, মিয়ানমার তাদের দেশের সীমান্তে সেনা মোতায়েনের কথা স্বীকার করে জানান-তারা সেদেশের সীমান্তে লুকিয়ে থাকা বিদ্রোহী সংগটন রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও) এর সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের দমনে বিজিপি’র সাথে যৌথভাবে অভিযান চালাতেই কাজ করছিল।বৈঠকে বিজিপি’র পক্ষ থেকে একথাও বিজিবি কে জানানো হয়েছে যে, তাদের সীমান্তে সেনা মোতায়েনের সাথে সীমান্ত উত্তেজনার কোন সম্পর্কই নেই। গত ২৮ মে সীমান্তে যে ভুল বুঝাবুঝির ঘটনা ঘটেছে সেই রকম ভবিষ্যতে আর কোন ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে বৈঠকে সে ব্যাপারে উভয় দেশের রক্ষীরা ঐক্যমতে পৌঁছেছেন বলে বিজিবি কর্মকর্তা জানান।