রবিবার, ৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

সরকারকে বিদায় না করা পর্যন্ত গণতন্ত্র ফিরবে না: খালেদা

kha_102875

আওয়ামী লীগ সরকার র‌্যাবকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করলেও আমরা কোন দিন তা করিনি মন্তব্য করে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশে শান্তি ফেরাতে র‌্যাব গঠন করা হয়েছিল। এখন সরকার র‌্যাব ও আইনশৃংখলা বাহিনীকে ব্যবহার করে গুম খুন চালাচ্ছে। রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। বর্তমান সরকারকের বিদায় না করা না পর্যন্ত দেশে শান্তি ও গণতন্ত্র ফিরে আসবেনা।
শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী সমিতি আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। পুলিশি বাধায় সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে পূর্বঘোষিত মহাসমাবেশ পণ্ড হওয়ার জাতীয় প্রেসক্লাবে সমাবেশ করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম।
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, যুবদলের সভাপতি এডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, আসিফা আশরাফি পাপিয়াসহ প্রমুখ আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।
বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, রাজনৈতিকভাবে দেশে গুম খুন অপহরণের দায়ে আওয়ামী লীগকে ভবিষ্যতে আইনের আওতায় আনা হবে। বেশি বাড়লে আল্লাহরও একটা বিচার আছে। এই দিন দিন নয়, আরো দিন আসবে। হাসিনাকেও একদিন বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।
খালেদা জিয়া বলেন, এই অবৈধ সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই। এজন্য তারা শান্তিপূর্ণ সমাবেশও করতে দেয় না। এই সরকার অবৈধভাবে বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছে। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভোটে নির্বাচিত।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ বেশি বাড়ার কারণে এখন নিজেরাই নিজেদের মারছে। তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। অবৈধ সরকারের অবৈধ মন্ত্রীরা যেসব কথা বলছে তা গণতন্ত্রের ভাষা নয়।
বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, বাংলাদেশের সুনাম-সুখ্যাতি বলতে আজ আর কিছু নেই। সারা দেশে গুম আর খুন। চার দিকে কান্নার রোল। মা-বোনদের এই কান্না বৃথা যাবে না।
আওয়ামী লীগের উদ্দেশে তিনি বলেন, বেশি বাড়া ভালো নয়। কথায় আছে- অতি বড় হয়ো না ঝড়ে পড়ে যাবে, অতি ছোট হয়ো না ছাগলে মুড়ে খাবে।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছে। এককভাবে নির্বাচন করে গণতন্ত্রকে নস্যাৎ করেছে। তারা এখন মানুষকে ভয় পায়। তাই তারা বিরোধীদের কোন সভা-সমাবেশ, আন্দোলন করতে দিচ্ছে না। আইনজীবীদের সমাবেশেও বাধা দিচ্ছে।
এর আগে সুপ্রিম কোর্টে পুলিশি বাধায় আইনজীবীদের সমাবেশ পণ্ড হয়। সকাল ১০টায় এ কর্মসূচিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল। সকাল থেকে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান ফটকসহ সব ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়। আশপাশ এলাকায় ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। আদালত চত্বর ও আশপাশ এলাকা থেকে অন্তত ১৫ জন আইনজীবীকে আটক করা হয়।
এরপর আইনজীবী সমিতি তাৎক্ষণিকভাবে প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে তাদের সমাবেশ করার ঘোষণা দিলে বিএনপি চেয়ারপার্সন সেখানে যোগ দিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।
এর আগে সকাল ১০টার দিকে কোর্টে প্রবেশের চেষ্টা করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, কর্মসূচি পালন করতে এসে কোর্টে প্রবেশ করতে পারছি না। কোথায় আইনের শাসন।
রমনা জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার শিবলী নোমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, মহাসমাবেশের কোনো অনুমতি নেই। ফটকগুলোতে কোর্ট কর্তৃপক্ষ তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। যাচাই বাছাইয়ের পর তাদের ছেড়ে দেয়া হবে।
প্রসঙ্গত, সারাদেশে অব্যাহত খুন, গুম, অপহরণ ও বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে শনিবার সকাল ১০টায় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সমাবেশ করার কথা ছিল। কিন্তু অনুমতি না থাকার অজুহাতে সেখানে সমাবেশে বাধা দেয় পুলিশ।