বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

রাষ্ট্রপতিকে সংলাপের উদ্যোগ নেয়ার অনুরোধ সুজনের

bodial__62860

 

বাংলাদেশের অভিভাবক হিসেবে সংলাপের উদ্যোগ নিতে রাষ্ট্রপতির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার।শনিবার দুপুরে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে তিনি এ আহ্বান জানান। দেশের চলমান সঙ্কট নিরসনে উদ্যোগ গ্রহণের দাবিতে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন এর সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে সাবেক নির্বাচন কশিনার অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এম সাখাওয়াত হোসেন ও সুজনের নির্বাহী সদস্য ড. হামিদা হোসেন।ড. বদিউল আলম বলেন, ‘মৃত্যুর কাফেলা দিনদিন ভারি হচ্ছে। ইতোমধ্যে আমরা প্রায় ৯০ জন নিরীহ জনগণকে হারিয়েছি। চারদিকে লাশের গন্ধ পাই। একদল বোমাবাজির মাধ্যমে লাশ ফেলার রাজনীতি করছে, অন্যদল লাশের রাজনীতি করছে। যারা এ সকল কর্মে লিপ্ত তারা সকলেই অপরাধী এবং তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।’এসময় সুজন সম্পাদক বিরাজমান সঙ্কট নিরসনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান। তবে প্রধানমন্ত্রী উদ্যোগ গ্রহণ না করলে রাষ্ট্রের অভিভাবক হিসেবে রাষ্ট্রপতিকে সংলাপের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য তিনি অনুরোধ জানান।এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘সাধারণ মানুষ যারা রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয় তারাই এই অবরোধ ও সহিংসতায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’তিনি রাজনীতিবিদদের উদ্দেশে বলেন, ‘রাজনীতি আজ রাজনীতিবিদদের হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে, যা দেশ ও জাতির জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর হতে পারে।’ড. হামিদা হোসেন বলেন, ‘প্রতি পাঁচ বছর পরপর আমরা ক্ষমতার পালাবদল দেখি, কিন্তু এতে আমাদের রাজনীতির গুণগত মানে তেমন কোনো পরিবর্তন দেখতে পাই না। প্রতিনিয়তই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ জনগণ। এই অবরোধে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ ও ভোগান্তি আজ চরমে পৌঁছেছে। বিশ্বাস না হলে আপনারা ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে গিয়ে দেখতে পারেন।’সুজন সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খান বলেছেন, ‘সংলাপ ছাড়া এ সঙ্কটের সমাধান সম্ভব নয়। সমস্যার রাজনৈতিক সমাধানও রাজনৈতিক দলগুলোকেই করতে হবে। এ রাজনৈতিক সঙ্কটের টেকসই সমাধানে জাতীয় সনদ প্রণয়ন করে অবিলম্বে জাতীয় সংলাপের আয়োজন করতে হবে।’মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন- সুজন সহ-সম্পাদক জাকির হোসেন, জাতীয় কমিটির সদস্য মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, নাজমা হাসিন, হুমায়ূন কবির হিরু, আতাউল করিম ফারুক, সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার, আবুল হাসনাত, কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের সম্পাদক নাছিমা আক্তার জলি, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী, ক্যামেলিয়া চৌধুরী, মোহাম্মদ সেলিম, জাহাঙ্গীর যুবরাজ, শামীম আরা নীপা, রওশন আরা ডেইজি ও জাভেদ জাহান প্রমুখ।