শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

মীরসরাইয়ে বন্যার পানিতে তলিয়ে আছে কাঁচা পাকা আউশ ধান ও আমন ধানের বীজতলা

ওমর ফারুক ইমন : মীরসরাইয়ে বন্যার পানিতে তলিয়ে আছে প্রায় ১ হাজার হেক্টর আমন বীজতলা ও প্রায় ৭হাজার ৫শ হেক্টর কাচা পাকা আউশ ধান। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষক। দ্রুত পানি সরে না গেলে আমন বীজতলার বেশি ক্ষতি হতে পারে বলে আশংকা করছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা। এছাড়া বন্যার পানিতে ডুবে গেছে উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন গ্রামীণ সড়ক।
এই সময় কৃষকদের মধ্যে আউশ ধান কাটা এবং আমন ধান রোপনের ধুম পড়ে যায়। কিন্তু টানা বৃষ্টিতে পাহাড়ী ঢলে বন্যায় আউশ ধান এবং আমন ধানের বীজতলা পানির তলিয়ে যাওয়ায় কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার করেরহাট, ওসমানপুর, ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের খাজুরিয়া, বড় কমলদহ, সাতবাড়িয়া, খৈয়াছরা, আমবাড়িয়া, দুর্গাপুর, জোরারগঞ্জ, ইছাখালী, সাহেরখালী, বামনসুন্দর, দূর্গাপুর, হাইতকান্দির কুরুয়া সহ বিভিন্ন এলাকার বিলে ফসলী জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। বীজতলা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় কৃষকদের মাঝে আমন ধান রোপনে হতাশা দেখা দিয়েছে। অনেক কৃষক দেনা করে বীজতলা তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছে। এই সময়টা আমন ধান রোপনের মৌসুম কিন্তু বীজতলা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় পুনরায় বীজতলা তৈরি করে আমন ধান রোপনে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। এতে করে কৃষকদের মাঝে আমন ধান রোপন নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানান, বন্যার পানি নেমে না যাওয়ায় ফসলী জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে আউশ ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এবং আমন ধানের নষ্টকৃত বীজতলা আবার নতুন ভাবে রোপন করারও সময় অতিবাহিত হয়ে যাচ্ছে। ফলে তাদের না খেয়ে থাকার মতো দশা হবে বলে তারা জানান।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের কর্মকর্তা কাজী নুরল আলম জানান, উপজেলার প্রায় ১ হাজার হেক্টর আমন বীজতলা ও প্রায় ৭হাজার ৫শ হেক্টর আউশ ধান বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়ে আছে। বৃষ্টিবন্ধ না হলে এবং দ্রুত পানি সরে না গেলে আমন বীজতলার বেশি ক্ষতি হতে পারে।
Pic ous... dan