শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

মীরসরাইতে পুলিশ পরিচয়ে কমান্ডো ষ্টাইলে প্রবাসীর ১লক্ষ ২০ হাজার টাকা ছিনতাই

mirsori chintai picমীরসরাই প্রতিনিধি : মীরসরাই পৌর সদর থেকে গতকাল মঙ্গলবার (১১নভেম্বর) বিকাল সাড়ে ৪টায় প্রকাশ্য দিবালোকে জনতার সামনে থেকে পুলিশ সেজে কমান্ডো ষ্টাইলে ১লক্ষ ২০ হাজার টাকা সহ প্রবাসী হারুন অপহরণ করে নিয়ে যায়। এর দেড় ঘন্টা পর আহত অবস্থায় তাকে এক কিলোমিটার দূরে মহাসড়কের পাশ এলাকাবাসী উদ্ধার করে। ছিনতাইকারীরা টাকা ও স্যামসাং গ্যালাক্সি মোবাইল সেট নিয়ে তাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে ফেলে দিয়ে যায়। পুরো রহস্যজনক ঘটনায় হতবাক সর্বমহল।

সরেজমিনে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায় মীরসরাই উপজেলার পশ্চিম খৈয়াছরা গ্রামের সিরাজ উদ্যোল্লাহর প্রবাসী পুত্র হারুনুর রশিদ গত একমাস পূর্বে দুবাই থেকে আসে। তার বাড়ীতে অসমাপ্ত কিছু ঘরের কাজের জন্য স্ত্রী শামীমা আক্তারের নামে ইপসা মীরসরাই সদর শাখা থেকে ১লক্ষ ২০হাজার টাকা ঋণ নেয়। গতকাল বিকেল ৪টায় স্বামীস্ত্রী দুজনে ইপসা অফিস থেকে ঋনের টাকা তুলতে এলে স্ত্রী ইপসা অফিসে বসে আর স্বামী চেক নিয়ে পূর্ব থেকে বলে রাখা ন্যাশনাল ব্যাংক মীরসরাই শাখা থেকে টাকা তুলে স্ত্রীকে তুলে নিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পার্শ্বের ইপসা অফিসের সামনে সিএনজি থেকে নেমে দাঁড়াতেই সাদা রংয়ের একটি মাইক্রো এসে পাশে দাঁড়ায় এবং গাড়ী থেকে কয়েকজন লোক দ্রুত নেমে প্রবাসী হারুনকে পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাদের সাথে যেতে হবে বলে জোরপূর্বক ধাক্কা দিয়ে কারে তুলে নিয়ে মহাসড়ক দিয়ে দক্ষিন দিকে চলে যায়। এই ঘটনা তখন আশেপাশের প্রত্যক্ষদর্শিরা ও দেখছিল । প্রত্যক্ষদর্শিরা জানায় মাইক্রোটিতে পুলিশ লিখা ছিল এবং লোকগুলোর হাতে হ্যান্ডকাপ এবং ওয়ারলেস ও ছিল। পুলিশ ভেবে কেউ এগিয়ে আসেনি। এরপর সময় পার হতে লাগল স্ত্রী শামীমা আর তাকে মোবাইলে ও পাচ্ছে না। মোবাইল ও বন্ধ দেখে সকলে দুশ্চিন্তা পড়ার কিছুক্ষন পর লোকজন এসে জানালো একটু আগে তো এখান থেকে পুলিশ একজনকে মাইক্রোতে তুলে নিয়ে গেছে। স্থানীয় ইপসা ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ উল্লাহ বিষয়টি মীরসরাই থানাকে জানালে মীরসরাই থানা পুলিশের এসআই আলী আক্কাস সহ পুলিশ দল মহাসড়ক এলাকায় খুঁজতে শুরু করে উক্ত কমান্ডো ছিনতাইকারী আর প্রবাসীকে । ঘটনার দেড় ঘন্টা পর এলাকাবাসী পূর্ব খৈয়াছরা মহাসড়কের পাশে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বাড়ী নিয়ে যায়। আহত প্রবাসী হারুন কান্না জড়িত কন্ঠে জানায় লোকগুলো ধরে নিয়ে যাবার সময় মাইক্রো থেকে বার বার লাফ দেবার চেষ্টা করায় ওরা তাকে লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করে। আবার টাকা না দিলে এবং ঝামেলা করলে পিস্তল ঠেকিয়ে মেরে ফেলবে বলে হুমকী দেয়। এই রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত হারুনের পরিবার বাড়িতে চিকিৎসক নিয়ে আহতকে সারিয়ে তুলছে। এই বিষয়ে ঘটনার তদন্তকারী এস আই আলী আক্কাস জানায় আমরা এই ঘটনায় নিজেরা ও হতবাক। অপরাধীদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।