শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

মহানবীর রওজা জিয়ারত করলেন খালেদা-তারেক

33416_34

পরিবারের সদস্যদের নিয়ে হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর পবিত্র রওজা জিয়ারত করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সোমবার প্রথম প্রহরে (রাত ১২টা ১০ মিনিট) মসজিদে নববীতে অবস্থিত মহানবীর রওজা মোবারক জিয়ারত করেন খালেদা জিয়া, বড় ছেলে তারেক রহমান, তার স্ত্রী জোবায়দা রহমান ও কন্যা জায়মা রহমান। সেখানে তারা দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করেন। এসময় খালেদা জিয়ার সঙ্গে পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান, মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক বিশেষ সহকারী এনামুল হক চৌধুরী, তারেক রহমানের সাবেক ব্যক্তিগত কর্মকর্তা রকিবুল ইসলাম বকুল, বিএনপির তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক শরীফ শাহ কামাল তাজ, সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকিব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে রোববার সৌদি বিএনপির নেতাকর্মীদের নিয়ে মসজিদে নববীতে ইফতার করেন তারেক রহমান। তিনি প্রতি ওয়াক্ত নামাজ জামাতে আদায় করছেন এবং নফল ইবাদতের পর বিশেষ মোনাজাত করছেন। পবিত্র ওমরাহ পালনের জন্য আজ সন্ধ্যায় তারা মক্কার উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। বাদশাহ’র আমন্ত্রণে সৌদি সফররত খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান মসজিদে নববীর কাছে দারুল ঈমান হোটেলে অবস্থান করছেন। সঙ্গে রয়েছেন তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান, কন্যা জায়মা রহমান, খালেদা জিয়ার দুই ভাই মরহুম সাঈদ এস্কান্দার ও শামীম এস্কান্দারের স্ত্রী ও সন্তান।
সূত্র জানায়, রোববার ভোরে মদিনায় পৌঁছার পর খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান দুই দিনে পারিবারিক সম্মিলনের পাশাপাশি চারবার একান্ত বৈঠক করেছেন। এসব বৈঠকের আগে ও পরে তারা দলের অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন বিষয়ে তাদের পর্যবেক্ষণ এবং সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে উদ্যোগী হন। এতে সহায়তা করেন তিন ব্যক্তিগত কর্মকর্তা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, মারুফ কামাল খান ও সাবেক ছাত্র নেতা রকিবুল ইসলাম বকুল। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বৈঠকগুলোতে মূলত দলের পুনর্গঠন এবং আন্দোলনের নতুন রোডম্যাপ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। দোয়া-মোনাজাতেও স্থান পাচ্ছে আন্দোলনের সফলতা এবং সরকার পতনের আল্লাহর সহায়তা কামনা। বিএনপির প্রধান দুই নেতা খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন। দীর্ঘদিন বিদেশে পরে থাকা তারেক রহমান চাইছেন খুব সময়ের মধ্যে ফের আন্দোলন শুরু হোক। যে আন্দোলন শত বিপত্তি সত্ত্বেও স্থগিত হবে না। সৌদি আরবে ওমরাহ করতে এসে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান মদিনায় একই হোটেলে অবস্থান করছেন।
মদিনায় তারেক রহমান এখন পর্যন্ত কোনসভায় বক্তৃতা দেননি। সৌদি থাকা অবস্থায় তিনি জেদ্দাতে একটি সমাবেশে অংশ নিতে পারেন। গত রোববার মসজিদে নববীর ২২ নম্বর গেটের সামনের খোলা জায়গায় সৌদি বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে দোয়া মোনাজাত ও ইফতার করেন তারেক রহমান। মোনাজাত করেন জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের স্থানীয় সভাপতি মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানী। সেখানে সফরসঙ্গী ছাড়াও বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, জিয়ানগর উপজেলা চেয়ারম্যান মাসুদ সাঈদী, বুড়িচং উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, বিএনপি নেতা ও সৌদি আরব সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের আহ্বায়ক আব্দুুর রহমান, সৌদি পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকীব, তাঁতী দলের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, যু্‌বদলের সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক আব্দুল জলিল, জেদ্দা মহানগর বিএনপির সভাপতি কেফায়েতউল্লাহ চৌধুরী ও এম আজাদ চয়ন, সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান তপন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।