মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

ব্রাজিল তোপের সামনে আজ কলম্বিয়া

2_118564

দৃষ্টিসীমা যত দূর, শুধু হলুদ আর হলুদ। কে শত্রু আর কে মিত্র বোঝার উপায় নেই। অলিগলি থেকে রাজপথ, হলুদ জার্সিপরা লাখো হিমুর ভিড়ে গমগম করছে ফোর্তালেজা! দূর থেকে দেখলে মনে হবে যেন সর্ষেক্ষেত। ছবিটা কল্পনার চোখে দেখা। তবে বাজি ধরে বলা যায় এই দৃশ্যটাই আজ দেখা যাবে ফোর্তালেজায়। হলুদ নগরীতে হলুদ যুদ্ধ। ব্রাজিল বনাম কলম্বিয়া। দু’দলেরই জার্সির রঙ হলুদ। নেইমার বনাম জেমস রদ্রিগেজ। দু’জনেরই বয়স ২২। পরিসংখ্যান যতই একপেশে ম্যাচের পূর্বাভাস দিক না কেন, আজ আগুনঝরা এক ক্লাসিকের অপেক্ষায় গোটা ফুটবল বিশ্ব। বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় এস্তাদিও কাস্তেলাওয়ে শেষ আটের সর্বলাতিন মহারণে দেখা হচ্ছে ব্রাজিল ও কলম্বিয়ার। জিতলেই ষষ্ঠ বিশ্বকাপ শিরোপার দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে যাওয়া স্বাগতিকদের। মাঠে নামার আগেই নেইমাররা জেনে যাবেন জিতলে সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ কে হবে। সত্যি বলতে কি, আবেগ এক পাশে সরিয়ে রাখলে যে কেউ মেনে নেমে শেষ আটের সবচেয়ে জমজমাট লড়াইটা হবে প্রথম ম্যাচে। রাত ১০টায় রিও ডি জেনিরোর ফুটবল তীর্থ মারাকানায় মুখোমুখি হবে ইউরোপের দুই পরাশক্তি জার্মানি ও ফ্রান্স। থমাস মুলারের সামনে আজ করিম বেনজেমা। মারিও গোটশের সামনে পল পগবা। ডাগআউটে মুখোমুখি জোয়াচিম লো ও দিদিয়ের দেশম। আর কি চাই? রোমাঞ্চের সব রসদই থাকছে এই ম্যাচে এবং স্পেন, ইতালি, ইংল্যান্ড ও উরুগুয়ের পর আরেক সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের বিদায়ঘণ্টা বাজতে যাচ্ছে।
সেমিফাইনালে জার্মানি নাকি ফ্রান্সকে পেলে ভালো হয়? এমন প্রশ্ন করে স্কলারির রোষানলে পড়েছেন ব্রাজিলের এক সাংবাদিক। শেষ আটের বাধা না পেরিয়েই সেমিফাইনাল নিয়ে ভাবার মতো বিলাসিতা করার অবস্থায় নেই ব্রাজিল। এক কলম্বিয়াকে নিয়ে ভেবেই কূল পাচ্ছেন না স্কলারি। নিজেদের আঙিনায় বিশ্বকাপ। অথচ এখনও দেখা মেলেনি সাম্বা ছন্দের। অনেকটা খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়েই শেষ আটের সরণিতে পা রেখেছে সেলেকাওরা। দ্বিতীয় রাউন্ডে চিলিকে হারিয়েছে টাইব্রেকারের ভাগ্য পরীক্ষায়। বিপরীতে এবারের আসরের সবচেয়ে ধারাবাহিক দল কলম্বিয়া। টানা চার ম্যাচেই দাপুটে জয়। ১৬ বছর পর বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলতে এসেই হলুদ বিপ্লব। তাও আবার দলের বড় তারকা রাদামেল ফ্যালকাওকে ছাড়াই! ফ্যালকাওয়ের অভাব ভুলিয়ে প্রথমবারের মতো কলম্বিয়াকে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে নিয়ে এসেছেন জেমস রদ্রিগেজ। এই বিশ্বকাপের সেরা আবিষ্কার।চার ম্যাচে পাঁচ গোল করে এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টের টপ স্কোরার রদ্রিগেজের দুরন্ত গতি আর স্কিল ব্রাজিলের হেক্সা জয়ের পথে কাঁটা হয়ে দাঁড়াতে পারে।পরিসংখ্যান বলছে, এর আগে ২৫ দেখায় ব্রাজিলের বিপক্ষে মাত্র দুটি জয় কলম্বিয়ার। তাহলে কি কলম্বিয়ার কোনো আশা নেই? শুনুন, রদ্রিগেজ কী বলছেন, ‘ব্রাজিলের অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে। তবে আমরাও কম যাই না। আমাদের দলেও বিপজ্জনক খেলোয়াড় আছে। হারার আগে আমরা হারব না।’ রদ্রিগেজের হুংকার শুনে মুচকি হেসে ব্রাজিলের স্বপ্নসারথি নেইমার আবার বলেছেন, ‘ছেলেটা দুর্দান্ত খেলছে। অবশ্যই ওকে অভিনন্দন জানানো উচিত। তবে শুক্রবারই বিষয়টি মিটিয়ে ফেলতে চাই আমরা। আশা করি ওর জয়রথ এবার থেমে যাবে। শিরোপার পথে আরও এগিয়ে যাবে ব্রাজিল।’
নিজেদের দর্শনটাও জানিয়ে দিয়েছেন নেইমার। চোখধাঁধানো ফুটবল খেলে বিদায় নেয়ার কোনো ইচ্ছা নেই তাদের। সুন্দর ফুটবল জাদুঘরে থাকুক, জিতলেই খুশি ব্রাজিল!
দু’দিন আগে একই কথা বলেছিলেন জার্মানি ডিফেন্ডার পার মার্টেসেকার। ফ্রান্সের বিপক্ষে আজ ফলনির্ভর ফুটবলই খেলবে জার্মানিরা। জয়টা কিভাবে এলো তা নিয়ে মাথাব্যথা নেই কারও। তবে সাবেকরা বেশ উদ্বিগ্ন জার্মানির শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। প্রথম ম্যাচেই রোনাল্ডোর পর্তুগালের বিপক্ষে ৪-০ গোলের বিধ্বংসী জয়। কিন্তু পরের তিন ম্যাচে সেই দুর্বার জার্মানিকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। দ্বিতীয় রাউন্ডে আলজেরিয়াকে হারাতে ১২০ মিনিট দাঁতে দাঁত চেপে লড়তে হয়েছে। সাবেক তিন অধিনায়ক বেকেনবাওয়ার, অলিভার কান ও মাইকেল বালাক সতর্ক করে দিয়েছেন লো’কে। শেষ ষোলোতে নাইজেরিয়াকে হারাতে ফ্রান্সেরও ঘাম ছুটে গেছে। তবে প্রত্যাশার চাপ কম থাকায় জার্মানির চেয়ে আজ ফ্রান্সই বেশি নির্ভার থাকবে। আগের ২৫ ম্যাচে জার্মানির আট জয়ের বিপরীতে ফ্রান্স জিতেছে ১১ বার। তবে এসব কাগুজে হিসাব ভুলে শিষ্যদের কানে উপভোগের মন্ত্র জমে দিয়েছেন দিদিয়ের দেশম। দিন শেষে বিশ্বকাপতো উপভোগেরই!