রবিবার, ৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

নিজেকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা থাই সেনাপ্রধানের

2_102711

থাইল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাওয়াত্রাকে শুক্রবার আটক করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে সেনাপ্রধান জেনারেল প্রায়ুথ চ্যান-ওচা নিজেকে ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন। এ পদে স্থায়ীভাবে কাউকে না পাওয়া পর্যন্ত তিনি দায়িত্ব পালন করবেন। অন্তর্বর্তী এ সময়ে প্রায়ুথ চ্যান এবং তার নিয়োগকৃত কর্মকর্তারা প্রশাসনিক কাজ সম্পাদন করবেন। থাইল্যান্ডের জাতীয় শান্তি ও শৃংখলা তত্ত্বাবধান কাউন্সিলের (এনপিওএমসি) বিবৃতি উদ্ধৃত করে দ্য ব্যাংকক পোস্ট এ তথ্য দিয়েছে।
বিবিসি, আলজাজিরা জানায়, ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাওয়াত্রাসহ শতাধিক রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে সমন জারি করে তাদের জান্তা সরকারের কাছে হাজিরা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে ইংলাক ও সর্বশেষ অন্তর্বর্তী সরকারের প্রধানমন্ত্রী নিওয়াত্তুমরং বুনসংপাইসানসহ ৩৮ জন রাজনীতিবিদ হাজিরা দিয়েছেন। এছাড়া ১৫৫ জন রাজনীতিবিদ ও আন্দোলনকারীর দেশ ত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।
রয়টার্সের খবরে বলা হয়, হাজিরা দিতে দুপুরে ইংলাক একটি সামরিক স্থাপনায় যান। সেখানে কয়েক ঘণ্টা রাখার পর বিকালে তাকে অন্য একটি সামরিক ঘাঁটিতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকেই ইংলাক সিনাওয়াত্রাসহ তার পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে আটক করা হয়। দেশটির জ্যেষ্ঠ এক সামরিক কর্মকর্তা সংবাদ মাধ্যমটিকে বলেন, ‘আমরা ইংলাককে তার বোন এবং বোনের স্বামীসহ আটক করেছি।’ ইংলাকের পরিবারের ওই দুই ব্যক্তি শীর্ষ রাজনৈতিক পদের অধিকারী। গত রাতে ইংলাকের পুয়ে থাই পার্টি এবং বিরোধী ডেমোক্র্যাট দলের কিছু নেতাকে সেনাবাহিনী মুক্তি দিয়েছে। তবে সরকারপন্থী এমপিরা আত্মগোপনে আছেন।
থাই সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে জানানো হয়, দেশটির প্রতিটি মন্ত্রণালয় পরিচালনার জন্য আলাদা আলাদা সচিব নিয়োগ দেয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এ অবস্থা বহাল থাকবে বলেও জানানো হয়। এনপিওএমসি জানিয়েছে, দেশটির সংবিধান সাময়িকভাবে স্থগিত থাকবে। কিন্তু সিনেট ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলো তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারবে। ক্ষমতা দখলের দুটি বিধান জারি ও ১৯টি বিবৃতি দিয়েছে থাই সেনাবাহিনী। দেশটির টেলিভিশন ও রেডিও চ্যানেলগুলোতে সেগুলো বারবার শোনানো হচ্ছে। পাশাপাশি সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের পক্ষে সঙ্গীত প্রচার করা হচ্ছে। তবে গণমাধ্যমে ‘ব্ল্যাক আউট’ জারি করা হয়েছে। শুক্রবার থেকে রোববার পর্যন্ত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার পাশাপাশি রেডিও ও টেলিভিশন সম্প্রচারও বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সম্প্রচার মাধ্যমগুলো শুধুমাত্র ঐতিহ্যবাহী সংগীত সম্প্রচার করতে পারবে। তবে সংবাদপত্র, ইন্টারনেট, ফোন, মোবাইলসহ অন্যান্য যোগাযোগ মাধ্যমকে এই নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
৭ মে ক্ষমতার অপব্যবহারের দায়ে প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাওয়াত্রাকে বরখাস্ত করেন দেশটির সাংবিধানিক আদালত। ১৯৩২ সালে থাইল্যান্ডে একচ্ছত্র রাজতন্ত্রের অবসান ঘটার পর থেকেই দেশটিতে এ রাজনৈতিক সংকট চলছে? তখন থেকে এ পর্যন্ত সেনাবাহিনী অন্তত ১১ বার দেশে অভ্যুত্থান ঘটিয়েছে? আলজাজিরা জানায়, আট বছরের মাথায় দেশটিতে দ্বিতীয় বারের মতো সামরিক অভ্যুত্থান ঘটল। সর্বশেষ ২০০৬ সালে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে পেউ থাই পার্টির অর্থাৎ লাল শার্টধারীদের প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাওয়াত্রার ভাই থাকসিন সিনাওয়াত্রাকে ক্ষমতাচ্যুত করে সেনাবাহিনী।