শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

দিনক্ষণ ঠিক করে আন্দোলন হয় না: খালেদা জিয়া

khalana20141006133921_156681
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, আন্দোলনের সময় আসছে। দিনক্ষণ ঠিক করে আন্দোলন হয় না। সময় আসলেই আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে। তখন জনগণ স্বতস্ফূর্তভাবে তাতে সাড়া দেবে। পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে সোমবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিশিষ্ট নাগরিক, বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক ও সর্বসাধারণের সঙ্গে ঈদের কুশল ও শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে তিনি এ কথা বলেন।
ক্ষমতসীন আওয়ামী লীগ সরকারকে ‘ব্যর্থ’ আখ্যা দিয়ে তাদের পদত্যাগ ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি অর্থবহ নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু করার আহবান জানান বিএনপি চেয়ারপারসন। তিনি বলেন, ঈদের আনন্দেও মানুষ শান্তিতে নেই। স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে যাত্রাপথে মানুষ স্বাচ্ছন্দ্যে বাড়ি যেতে পারেনি। দুর্ভোগ, যানজট, রাস্তাঘাটের বেহাল দশায় তারা শান্তিতে ছিল না। জনগণের প্রতিনিধিত্বহীন সরকার হওয়ায় এসব সমস্যা সমাধানে কোনো চেষ্টাও নেই।দেশে গ্যাস, বিদ্যুতের সংকট চলছে দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, একের পর এক গার্মেন্টস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। শিপমেন্ট নেই। অর্থনীতি মুখ থবড়ে পড়েছে। নতুন শিল্প কারখানা হচ্ছে না, বরং আরো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ নেই। কর্মসংস্থান কমছে, বেকারত্ব বাড়ছে। ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, কুইক রেন্টাল থেকে হাজার কোটি টাকা লুট করেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অরাজকতা আর সন্ত্রাস চলছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শিক্ষা প্রক্রিয়া ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পাসের হার বাড়িয়ে দেখানো হচ্ছে। কাকে খুশি করতে এমন করা হচ্ছে?
এর আগে বেলা ১১টায় বিশিষ্ট নাগরিক, বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক ও সর্বসাধারণের সঙ্গে ঈদের কুশল ও শুভেচ্ছা বিনিময় শুরু করেন খালেদা জিয়া। এ সময় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আর এ গনি, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, এম কে আনোয়ার, নজরুল ইসলাম খান, আ স ম হান্নান শাহ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিন আহমেদ, ইনাম আহম্মেদ চৌধুরী, শওকত মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।এ ছাড়া বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরন ছাড়াও আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, কানাডা, চীন, সৌদি আরব, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাসহ ৪২টি দেশের প্রতিনিধি শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।প্রায় সোয়া এক ঘণ্টাব্যাপী কুশল বিনিময় শেষে খালেদা জিয়া দলের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করতে আগারগাঁওয়ে যান। এ সময় দেশ ও জাতির শান্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনায় মোনাজাত করা হয়।