রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

জয়পুরহাটে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত ৪

ni340ptk_162040
জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার শিমুলতলী শহীদ রেলগেট এলাকায় গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তেলবাহী মাল ট্রেনের ইঞ্জিন থেকে বগি বিচ্ছিন্ন হয়ে চারজন নিহত ও অন্তত ১৭ জন আহত হয়েছে। আহতদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় জেলা আধুনিক হাসপাতাল ও বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ সুপার আবু কালাম সিদ্দিক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এ ঘটনায় ছয় সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।নিহতরা হলো চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার জুয়েল, জয়পুরহাটের পুরানাপৈল এলাকার সাদেকুল, খঞ্জনপুর এলাকার আজাহার আলী। অন্যজনের পরিচয় গতকাল রাতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।আহতদের মধ্যে রয়েছে সাদেক, রবিউল, আবদুল মজিদ, সেকেন্দার, হৃদয়, আজাহার শেখ, ইমরান, রাজিয়া, বাবু, বাদল, সোহেল, বাচ্চু, সাদেকুল, খালেক, আবুজার শেখ।প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বিকেল ৫টার দিকে খুলনা থেকে ছেড়ে আসে পার্বতীপুরগামী তেলবাহী মাল ট্রেন। এরপর ট্রেনটি জয়পুরহাট রেলস্টেশন ছেড়ে পাঁচবিবি উপজেলার খাসবাগুড়ি এলাকায় এলে হঠাৎ ইঞ্জিনের পেছনের পাঁচ-ছয়টি বগি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে ট্রেনের ড্রাইভারকে মোবাইল ফোনে জানায় এক গার্ড। এরপর ড্রাইভার খাসবাগুড়ির মীর শহীদ রেল গেটে ট্রেনটি দাঁড় করান। কিন্তু পেছনের চলন্ত বগি দাঁড়ানো ইঞ্জিনে গিয়ে ধাক্কা লাগে। এতে তেলবাহী লরির ফাঁকে বসে থাকা লোকজন ছিটকে পড়ে ব্যাপক হতাহত হয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই একজন দ্বিখণ্ডিত হয়ে মারা যায়। তার বাড়ি চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায়। সে মানিকের ছেলে জুয়েল (১৪)। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস দ্রুত আহতদের জয়পুরহাট জেলা হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানে আরো তিনজন মারা যায়।ঘটনাস্থল খাসবাগুড়ি গ্রামের প্রত্যক্ষদর্শী শুভ হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে হঠাৎ করেই মাল ট্রেনের পেছনের পাঁচ-ছয়টি বগি বিচ্ছিন্ন অবস্থায় ইঞ্জিন থেকে আলাদা হয়ে যায়। এর কিছুক্ষণ পরই সামনের ট্রেনটি দাঁড়ানোমাত্র পেছনের বগিগুলো এসে সজোরে ধাক্কা দিলে বগি থেকে লোকজন ছিটকে পড়ে হতাহতের ঘটনা ঘটে।রাজশাহী পশ্চিম রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক আবদুল আওয়াল জানান, ঘটনা তদন্তে পার্বতীপুর রেলওয়ের ওপারেটিং ম্যানেজার শাহ আলমকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।
সান্তাহার রেলওয়ে পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সাঈদ ইকবাল জানান, ‘ওই দুর্ঘটনায় চারজন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছে বলে তাঁরা জেনেছেন। ঘটনার পর সান্তাহার রেলওয়ে থানার (জিআরপি) এসআই আবদুর রাজ্জাকসহ চারজন ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেছেন। এ বিষয়ে এখনো কোন মামলা হয়নি।