রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে বাংলাদেশের জয়

bangladesh-cricket_165117
দ্বিতীয় ইনিংসে জিম্বাবুয়েকে ১১৪রানে অলআউটের পর মনে হয়েছিল বাংলাদেশ হেসেখেলেই জিতবে। কিন্তু ম্যাচ জিততে ঘাম ঝরাতে হয় টাইগারদের। কোন রান না করেই টপঅর্ডারের ৩ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে এক পর্যায়ে মনে হয়েছিল জেতা ম্যাচ হেরে যাচ্ছে বাংলাদেশ। কিন্তু এ আশংকা মিথ্যা প্রমাণিত করে ৩ উইকেটে জিতে বীরের বেশেই মাঠ ছাড়লেন মুশফিক-তাইজুল। টেস্টে এটি ছিল বাংলাদেশের ৫ম জয়।
মিরপুরে প্রথম টেস্টের তৃতীয় দিনে জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ১১৪ রানে অলআউট করার পর বাংলাদেশের টার্গেট দাঁড়ায় মাত্র ১০২রান। হেসেখেলেই এ ম্যাচ জিতবে বাংলাদেশ এমন প্রত্যাশাই ছিল দেশের ক্রীড়ামোদিদের। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে কোন রান না করেই মূল্যবান ৩ উইকেট হারিয়ে ফেললে চ্যালেঞ্জে পড়ে যায় স্বাগতিকরা। কিন্তু সাকিব আর মাহমুদুল্লার জুটিতে পরিস্থিতি সামলে নেয় বাংলাদেশ। পরে সাকিব আউট হলেও মুশফিক-মাহমুদুল্লাহ রানের চাকা এগিয়ে নিতে থাকেন। তখন মনে হয়েছিল, সময় যতই গড়াচ্ছে ম্যাচ ততই বাংলাদেশের পক্ষে হেলে পড়েছে।কিন্তু মাহমুদুল্লাহ ও শুভাগত হোম একই ওভারে আউট হলে আবারো বাংলাদেশ শিবিরে আশংকা দেখা দেয়।পরে শাহাদত-মুশফিক দলের হাল ধরেন।ব্যক্তিগত ১১রান করে ইনিংসের একমাত্র ছক্কাধারী শাহাদত প্যাভিলিয়নের পথ ধরার পর ক্রিজে আসেন তাইজুল।
দ্বিতীয় ইনিংসে জিম্বাবুয়ের পক্ষে চিগাম্বুরা এ পর্যন্ত একাই পেয়েছেন ৪টি উইকেট। মুশফিক করেন অপরাজিত ২৩ আর তাইজুল করেন হার না মানা ১৫ রান। ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন জিম্বাবুয়ের ইনিংসে ৮ উইকেট শিকারী লেগ স্পিনার তাইজুল ইসলাম।এদিকে ইনিংসের শুরুতে দলীয় স্কোরবোর্ডে কোন রান জমা না করতেই প্যাভেলিয়নে ফিরে গেছে প্রথম তিন ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, শামসুর রহমান ও মমিনুল হক।
এর আগে স্পিনার তাইজুলের ঘুর্ণির আঘাতে বিধ্বস্ত হয় জিম্বাবুয়ে। মাত্র ৩৫.৫ ওভার বল খেলে ১১৪ রানে গুটিয়ে যায় সফরকারীরা। তাইজুল একাই নেন ৮ উইকেট।মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ছিল ৭ উইকেটে ৯৪ রান। তাইজুলের শিকার ৫ উইকেট। বিরতির পরপরই আবারও তাইজুলের আঘাত। খুব দ্রুতই বাকি ৩টি উইকেট তুলে নেন তিনি। লাঞ্চবিরতির পর খেলা হয় মাত্র ৫.৫ ওভার।
সোমবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্টের তৃতীয় দিনের শুরুতে জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় ইনিংসে প্রথম আঘাতটিও আনেন তাইজুল। ওপেনার ব্যাটসম্যান সিবানন্দাকে প্যাভিলিয়নে ফিরিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে উল্লাস এনে দেন তিনি।
মাঝে মাসাকাদজার স্ট্যাম্প তুলে নেন শাহাদাত। এরপর একের পর এক আঘাত হানেন তাইজুল। কোন রকম বিরতি ছাড়াই তুলে নেন ৪ উইকেট। মধ্যাহ্ন বিরতির পর বাকি ৩ উইকেট তুলে বাংলাদেশের সামনে সহজ ১০০ রানের টার্গেট এনে দেন এই স্পিনার।
বাকি উইকেটটি নেন সাকিব।আগের দিনের বিনা উইকেটে ৫ রান নিয়ে খেলা শুরু করে জিম্বাবুয়ে। এর আগে প্রথম ইনিংসে সাকিব আল হাসানের বোলিংয়ে ২৪০ রানে অলআউট হয় সফরকারীরা। সাকিব পেয়েছিলেন ৬ উইকেট। জবাবে ২৫৪ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস।