শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

জটিলতায় সাকিবের দলবদল

g-1
এখনই দলবদল করতে পারছেন না সাকিব আল হাসান। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তার উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে খেলতে পারবেন জাতীয় ও ঘরোয়া লীগে। তবে প্রশ্ন উঠেছে, আসন্ন ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে এই তারকা ক্রিকেটার কোন দলে খেলবেন? যদিও গাজী ট্যাংক (লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ) এর মধ্যে সাকিবকে তাদের দলে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু পুলের দলবদল হয়ে যাওযাতে এখন কোন নিয়মে সাকিব আল হাসান দলবদল করবেন তা নিয়ে রয়েছে যথেষ্ট প্রশ্ন। মঙ্গলবার বোর্ড সভার পর অসমর্থিত সূত্রে শোনা গিয়েছিল এখন পর্যন্ত যে কটি ক্লাব পুলের ক্রিকেটার নেয়নি তারাই প্রথমই সুযোগ পাবে তাকে দলে নেয়ার। সেই ক্ষেত্রে তার ভিত্তি মূল্য হবে ৪০ লাখ টাকা। কিন্তু গতকাল সিসিডিএমের চেয়ারম্যান আজম নাসির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘এই ধরনের কোন নিয়ম আমরা করিনি। সাকিব কিভাবে দলবদল করবে সেটি এখনও চূড়ান্ত হয়নি, এটি করবে বোর্ড। এছাড়া সাকিবকে এখনই দলবদল করতে হবে তাও না। তার জন্য দলবদলের সময়টি উন্মুক্ত রাখা হবে সে যে কোন সময় দলবদল করতে পারবে। তবে তার আগে বোর্ড সাকিবসহ সবার স্বার্থ বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত নিবে সে কবে দল বদল করতে পারবে।’
কিন্তু সাকিব আল হাসানের বিষয়ে মঙ্গলবার বোর্ড সভাপতি জানিয়েছিলেন সাকিব দলবদল করতে পারবেন। কিন্তু তিনি কোন পদ্ধতিতে দলবদল করবেন তা নিয়ে সিদ্ধান্ত জানাবে সিসিডিএম। কিন্তু আজম নাসির উদ্দিন জানান এখন এ বিষয়টি সমাধান করবে বোর্ড। তিনি বলেন, ‘আসলে সাকিব পুলভুক্ত ক্রিকেটার। আর পুলের ক্রিকেটারদের তালিকা করে দেয় বিসিবি। আর সাকিব বোর্ডের চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটার। এখন কিছুটা জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় আমরা মনে করি সাকিবের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে বোর্ড।’ তিনি আরও বলেন, ‘সাকিব আমাদের পুলের ক্রিকেটার। আপনারা জানেন যে, তাকে শাস্তির কারণে তালিকার বাইরে রাখা হয়েছিল। সেই ক্ষেত্রে পুলের ক্রিকেটার যারা নিতে পারেনি বা যে ক্লাবগুলো দু’টি করে নিয়েছে তারা দাবি করছে। আবার সাকিব আল হাসানেরও একটি ব্যক্তি স্বাধীনতা আছে। সে কোন দলে খেলতে চায় সেটিও একটি বিবেচনার বিষয়। আমরা (বিসিবি) কোনভাবেই চাই না সাকিব আল হাসান কোনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হোক অথবা আমরাও কোনরকম প্রশ্নবিদ্ধ হই। সে কারণেই তার দলবদলের বিষয় বিচার বিবেচনা করেই বোর্ড সিদ্ধান্ত জানাবে।’অন্যদিকে এমন পরিস্থিতিতে সিসিডিএম’র বাইলজ অনুযায়ী কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যায় কিনা জানতে চাইলে সিসিডিএম’র চেয়ারম্যান বলেন, ‘না, এই ধরনের পরিস্থিতিতে সিসিডিএম’র বাইলজে কোন নিয়ম-কানুন নেই যে সে অনুসারে সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে। আর তাই সিসিডিএম এখন এই বিষয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সিদ্ধান্তের উপরই নির্ভর করবে। আপনারা জানেন যে, বিসিবি সভাপতির কিছু ক্ষমতা আছে যাতে তিনি একক ভাবেই কিছু সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।’ অন্যদিকে লীগের একটি দল যেন সাকিব আল হাসানকে নিতে না পারে তাই বিসিবি ও সিসিডিএম পক্ষপাতদুষ্ট সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বলে যে অভিযোগ রয়েছে তা উড়িয়ে দিয়ে নাসির বলেন, ‘না, এটি কেউ বলে থাকলে ভুল। আমরা এমন কোন সিদ্ধান্ত নিবো না যে, প্রশ্নবিদ্ধ হই। এখানে সাকিব আল হাসানেরও একটি ইচ্ছা-অনিচ্ছার বিষয় আছে। আমরা সে কারণেই সময় নিচ্ছি।’