বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

কামারুজ্জামানের রায়ের কপি ট্রাইব্যুনালে

kamruzaman_222855
মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ কামারুজ্জামানের আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায়ের সার্টিফাইড কপি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পৌঁছেছে। বুধবার রাত পৌনে ৮টায় ট্রাইব্যুনালে রায়ের সার্টিফাইড কপি পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন সুপ্রীম কোর্টের রেজিস্ট্রার সৈয়দ আমিনুল ইসলাম।পূর্ণাঙ্গ রায়ের সার্টিফাইড কপি হস্তান্তরের পর থেকেই রায় কার্যকরের ১৫ দিনের সময় গণনা শুরু হল।নিয়ম অনুযায়ী, ট্রাইব্যুনালের বিচারপতিরা স্বাক্ষর করে মৃত্যু পরোয়ানা জারি মাধ্যমে ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার বরাবর পাঠাবেন।মৃত্যু পরোয়ানা পাওয়ার পর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ কামারুজ্জামানের কাছে রিভিউ অথবা প্রাণ ভিক্ষার আবেদন করবেন কিনা, জানতে চাইবে। কামারুজ্জামান রিভিউ করলে রিভিউ নিষ্পত্তি হওয়ার পর রায় কার্যকর করতে পারবে সরকার।এর আগে, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাসহ চারজন বিচারপতির স্বাক্ষর শেষে বুধবার দুপুরে ৫৭৭ পৃষ্ঠার রায়ের কপি প্রকাশ করা হয়।রায়ে বলা হয়, রায়ের সার্টিফায়েড কপি তৈরির পর কামারুজ্জামান ১৫ দিন সময় পাবেন রিভিউ করার জন্য। যদি এই সময়ের মধ্যে কামারুজ্জামান রিভিউ করেন তাহলে রিভিউ নিষ্পত্তি হওয়ার পর রায় কার্যকর করতে পারবে সরকার। আর তিনি যদি রিভিউ না করেন তবে সরকারকে রায় কার্যকর করতে ১৫ দিন অপেক্ষা করতে।গত বছরের ৩ নভেম্বর তৎকালীন জ্যেষ্ঠ বিচারপতি ও বর্তমান প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ কামারুজ্জামানের ফাঁসির আদেশ বহাল রেখে চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করেন।গত বছরের ৬ জুন ট্রাইব্যুনাল-২ এর দেয়া ফাঁসির আদেশ থেকে খালাস চেয়ে আপিল করেন কামারুজ্জামান। কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সোহাগপুরে গণহত্যার দায়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে ফাঁসির রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে আনিত গোলাম মোস্তফাকে হত্যার অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডাদেশ কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আপিল বিভাগ।