মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

আগ্রাসী ব্রাজিল, উজ্জীবিত চিলি

01_14210

চার গোল, একটি স্বপ্ন- গ্রুপ পর্ব শেষে নেইমারকে নিয়ে ব্রাজিলিয়ানদের স্লোগান এমনই! কয়দিন আগেও যারা নিজেদের চরম বঞ্চিত মনে করছিল, ‘বিশ্বকাপ হটাও’ স্লোগানে মুখরিত ছিল যে দেশটি, এখন সেখানে চলছে নেইমার মাতম! প্রথম রাউন্ডের তিন ম্যাচের পরই আমূল পাল্টে গেছে ব্রাজিলের পরিস্থিতি। মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত সাধারণ মানুষ ভিতরের ক্ষোভকে চেপে রেখে এখন তারা নেইমার ম্যানিয়ায় ভুগছেন। পুরো দেশেই চলছে ‘সাম্বা’।ব্রাজিলে নেইমার যেন এখন হ্যামিলিয়নের বাঁশিওয়ালা। মধুর সুরে বাঁশি বাজিয়ে সামনে এগিয়ে চলেছেন, আর সহিংসতা ভুলে তার পেছনে ছুটছে ব্রাজিলের আমজনতা! নেইমারের পেছনে ‘হলুদ’ জোয়ার দেখে প্রসন্ন আয়োজকরা। দারুণ খুশি ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা ফিফাও। অনেক দিন থেকে যে ‘জাগো বনিতো’র জন্য মাথা ঠুকে মরছিলেন ব্রাজিলের সাধারণ মানুষ, নেইমারের কল্যাণে আবার তা ফিরে এসেছে। ঘরের মাঠে ব্রাজিল ছুটে চলেছে ঊর্ধ্বগতিতে। তবে শঙ্কাও আছে কিছুটা, কোনো কারণে মাঝপথে বাঁশিওয়ালার (নেইমার) সুরে গণ্ডগোল দেখা দিলে সর্বনাশ হয়ে যেতে পারে। উচ্ছ্বাসের হলুদ ঢেউটা সহিংসতায় হয়ে যেতে পারে রক্ত লাল! সব পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই আজ নকআউট পর্বের প্রথম ম্যাচে চিলির বিরুদ্ধে মাঠে নামছেন নেইমাররা। ঘরের মাঠে স্বপ্নপূরণের পথে ব্রাজিলের এগিয়ে যাওয়ার দিন আজ। হেক্সা শিরোপা মিশনের প্রথম ধাপটা সফলভাবেই সম্পন্ন করেছেন কোচ লুই ফেলিপ স্কলারির শিষ্যরা। তবে দ্বিতীয় ধাপেই দিতে হচ্ছে কঠিন পরীক্ষা। লাতিন পরাশক্তি চিলির বিরুদ্ধে ম্যাচকে ফাইনাল হিসেবেই ধরে নিয়েছেন ব্রাজিল অধিনায়ক থিয়াগো সিলভা। বাড়তি খাটুনি করতে হচ্ছে কোচকেও। প্রতিপক্ষ লাতিন দল না হলে এতটা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না স্কলারিকে। রক্ষণভাগ বিশ্বসেরা হলেও চিলির বার্সা তারকা সানচেজকে নিয়ে মহা-দুশ্চিন্তায় ব্রাজিল। তাছাড়া তাদের শক্তিমত্তা কিংবা দুর্বলতা সম্পর্কে নাড়িনক্ষত্র সবই জানে চিলি। তবে শেষ ম্যাচে ব্রাজিলিয়ানরা ক্যামেরুনকে যেভাবে উড়িয়ে দিয়েছে সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে প্রতিপক্ষকে নিয়ে ভাবার কোনো কারণ নেই। নেইমার একাই বদলে দিতে পারেন ব্রাজিলের ভাগ্য। কিন্তু সাম্বার দেশটির বড় সমস্যাও এখানেই- যদি কোনো কারণে চিলির ডিফেন্ডাররা নেইমারকে আটকে দেয়, তবে আটকে যেতে পারে ব্রাজিলই। থমকে যেতে পারে সাম্বা নৃত্য। গ্রুপ পর্বে নেইমার যেভাবে গরুর গাড়ির মতো টেনে ব্রাজিলকে সামনে নিয়ে গেছেন, অন্যরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে না দিলে ক্লান্ত হয়ে পড়তে পারেন বার্সা তারকা। তখন থুবড়ে পড়তে পারে হেক্সার মিশন। তবে আজ বেলো হরিজোন্টেতে এসব অলক্ষুণে কথা মুখেও আনবেন না ব্রাজিলিয়ানরা। তারা শুধু জয় ও উৎসব করার জন্যই মাঠে যাবেন আজ। নকআউট পর্বের প্রথম দিনে রয়েছে আরেকটি ম্যাচ। সেখানে মুখোমুখি দুই লাতিন দল কলম্বিয়া ও উরুগুয়ে। লুইস সুয়ারেজ নিষিদ্ধ হওয়ায় কলম্বিয়ানদের বেশ উজ্জীবিতই মনে হচ্ছে। গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে কোস্টারিকার কাছে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর উরুগুইয়ানদের ‘প্রমিথিউস’ হয়ে দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন সুয়ারেজ। জোড়া গোল করে দলকে ইংলিশ বাধা পার করে দেন। আজ্জুরিদের বিরুদ্ধে জিতে উরুগুয়ে নকআউটে জায়গা করে নেয় ঠিকই, কিন্তু ‘কামড়কাণ্ডে’ বিশ্বকাপ থেকে নিষিদ্ধ হয়ে যান তাদের ‘প্রমিথিউস’! তাই আজকের ম্যাচে কলম্বিয়া বেশ খানিকটা এগিয়েই থাকবে। নকআউট পর্বের দ্বিতীয় দিনে আগামীকাল প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডস মুখোমুখি হবে মেক্সিকোর। একই দিন দ্বিতীয় ম্যাচে এবারের বিশ্বকাপের চমক কোস্টারিকা খেলবে গ্রিসের বিরুদ্ধে। ৩০ জুন ফ্রান্স খেলবে সুপার ঈগল নাইজেরিয়ার বিরুদ্ধে। অন্য ম্যাচে জার্মানি খেলবে আলজেরিয়ার বিরুদ্ধে। মেসির আর্জেন্টিনার খেলা দ্বিতীয় রাউন্ডের শেষের দিন। ১ জুলাই রাত ১০টায় সাও পাওলোর অ্যারেনা করিন্থিয়ানসে আলবেসিলেস্তরা খেলবে সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে। অন্য ম্যাচে বেলজিয়ামের মুখোমুখি হবে যুক্তরাষ্ট্র।