শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

আওয়ামী লীগই বিদেশীদের কাছে নালিশে অভ্যস্ত

30053_f6

বিএনপি নয় আওয়ামী লীগেরই বিদেশীদের কাছে নালিশ জানানোর অভ্যাস আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বলেছেন, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা ‘দেশে গণতন্ত্র অনুপস্থিত’ এই মন্তব্য কোনভাবেই নালিশ ছিল না। নালিশের প্রশ্নই ওঠে না। বিএনপি বিদেশীদের কাছে নালিশে অভ্যস্ত নয়, আওয়ামী লীগের এই ইতিহাস রয়েছে। ২০০৬-০৭ সালে ক্রমাগত বিদেশী কূটনীতিকদের কাছে নালিশ করেছে আওয়ামী লীগ। এর পরিপ্রেক্ষিতে অগণতান্ত্রিক, অসাংবিধানিক সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। গতকাল সকালে দলের নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন। উল্লেখ্য, শুক্রবার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে খালেদা জিয়া বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র অনুপস্থিত। এরপর বিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক অনুষ্ঠানে বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন বিদেশীদের কাছে কান্নাকাটি করে দেশের বদনাম করছেন। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা আলমগীর বলেন , আমরা মনে করি, যাদের জনগণের কাছে নৈতিক কোন অবস্থান নেই, তারা মানুষের মনকে বিভ্রান্ত করতে এরকম মিথ্যাচার ও অপপ্রচারের চেষ্টা করছে। আওয়ামী লীগ এখন গণবিচ্ছিন্ন হয়ে এ ধরনের কথা বলছে। এরকম কটূক্তি করে প্রধানমন্ত্রী রাজনীতির পরিবেশকে কলুষিত করছেন। আমরা প্রধানমন্ত্রীর এহেন বক্তব্যের নিন্দা জানাই। বৈঠকের আলোচ্য বিষয় ব্যাখ্যা করে মির্জা আলমগীর বলেন, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বিএনপির চেয়ারপারসনের বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আমন্ত্রণে। এটি ছিল সম্পূর্ণ সৌজন্যমূলক। এখানে দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খানের বক্তব্যের ব্যাখ্যা করে মির্জা আলমগীর বলেন, সেখানে স্টেটম্যান্ট অব ফ্যাক্ট হিসেবে বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই, দেশের ৯৫ ভাগ জনগণ ৫ই জানুয়ারির নির্বাচন বর্জন করেছে ইত্যাদি বিষয়গুলো আলোচনায় উঠেছে। এটা কোন নালিশ নয়। বিএনপির এমন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা বলেছেন, এটি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক বিষয়। বাংলাদেশের জনগণেরই তা সমাধান করা উচিত। এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা আলমগীর বলেন, ভারত তার পাশের দেশে গণতন্ত্র চর্চা হোক, জনপ্রতিনিধিত্বমূলক সরকার আসুক তা আঞ্চলিক সহযোগিতার স্বার্থে চাইবে বলে তারা আশা করেন। ভারতের নতুন সরকারের প্রথম মন্ত্রী হিসেবে সুষমা স্বরাজের সফরের মূল্যায়ন করতে গিয়ে তিনি বলেন, পত্র-পত্রিকায় দেখেছি, পানি সমস্যা, সীমান্ত হত্যা বন্ধসহ বিভিন্ন বিষয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তবে এসব বিষয়ে কনক্রিট কিছুই পাইনি। ভারত আশ্বাস দিয়েছে, আমরা আশা করি বাস্তবায়ন হবে। তিনি বলেন, দেশনেত্রী ওই বৈঠকে দুই দেশের বিরাজমান সমস্যার বিষয়গুলো কিভাবে সমাধান করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা করেছেন। আমরা আশা করি, ভারতের নতুন সরকার ক্ষমতায় আসায় ওই সব সমস্যার ইতিবাচক সমাধানের পথে এগোবে। নারায়ণগঞ্জের উপনির্বাচনের ফলাফলের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না, তার সর্বশেষ প্রমাণ নারায়ণগঞ্জের উপনির্বাচন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অনেক কেন্দ্রে ভোটার ছিল না। ভোটের দিন একজন এএসপি বশিরউদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেছেন, কিভাবে তাকে হুমকি দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রকাশ্যে বলেছেন, তিনি ওসমান পরিবারকে ‘প্রটেকশন’ দেবেন, তাহলে কিভাবে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে? একটি দৈনিকে প্রকাশিত খবরের বরাত দিয়ে মির্জা আলমগীর বলেন, শামীম ওসমান যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের জন্য রীতিমতো হুমকি। গণতন্ত্র ও রাষ্ট্রের জন্য ভয়ঙ্কর।