Wednesday, September 20Welcome khabarica24 Online

সুস্বাস্থ্য

নারিকেলের চিড়া তৈরি করবেন যেভাবে

নারিকেলের চিড়া তৈরি করবেন যেভাবে

     ডেস্ক  :আমাদের উৎসব-পার্বণের খাবারের সঙ্গে নারিকেলের সম্পৃক্ততা রয়েছে। এক নারিকলে দিয়েই তৈরি করা যায় অসংখ্য সুস্বাদু খাবার। তেমনই একটি খাবার নারিকেলের চিড়া। রাস্তার ধারে অহরহই বিক্রি হতে দেখা যায় এই নারিকেলের চিড়া। দেখতে যতই সুন্দর আর খেতে সুস্বাদু হোক না কেন, এটি মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়। চলুন জেনে নেই নারিকেলের চিড়া তৈরির রেসিপি-  উপকরণ: নারিকেল কুচি দুই কাপ, চিনি ১ কাপ (স্বাদমত ), এলাচ ২ টা, দারুচিনি গুঁড়া সামান্য, ঘি ১ টেবিল চামচ। প্রণালি: নারিকেল লম্বা করে কেটে তুলে নিতে হবে। এবার নারিকেলের খয়েরি অংশ কেটে চিড়ার আকার দিন। তারপর তা কয়েকবার পানি দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর নারিকেল কুচি ঘি দিয়ে হালকা ভেজে নামিয়ে নিন। চিনি ও সামান্য পানি চুলায় দিয়ে ফুটতে দিতে হবে। চিনি গলে গেলে কুঁচি দিয়ে ঘন ঘন নাড়তে থাকুন। পানি শুকিয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে গরম অবস্থায় আরও কিছুক্ষ
রঙ বাংলাদেশে শারদীয় পোশাক

রঙ বাংলাদেশে শারদীয় পোশাক

বৃষ্টির দাপট কিছুটা কমেছে। নদীর দুইকুলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে কালফুল। রোদ আর ছায়ার লুকোচুরির মধ্যেই তরতরিয়ে বাড়ছে এই শুভ্রতা। আকাশে সাদা মেঘের আনাগোনাও বাড়ছে। এই বৃষ্টি এই মেঘের খেলা চলছে। প্রকৃতি প্রস্তুত শারদ উৎসবকে স্বাগত জানাতে। আর কদিন পরেই সনাতন ধর্মের মানুষ মেতে উঠবে শারদীয় উৎসবে। প্রকৃতির মতো উচ্ছ্বল এখন সবাই উৎসবের রঙে রঙ মেলাতে। রঙ বাংলাদেশও সবাইকে রাঙাতে প্রস্তুত নজরকাড়া শারদ সংগ্রহে। বাংলার সময়কে রাঙাতেই সদা প্রস্তুত রঙ বাংলাদেশ। তাই বাঙালিকে নানা পার্বণ আর উৎসবে ফ্যাশনেবল করে তুলছে। আর প্রতিবারের মতো রঙ বাংলাদেশ-এর পূজো সংগ্রহ অন্য সবার চেয়ে আলাদা। এবারও এই সংগ্রহ দারুণ সমৃদ্ধ। কেবল বড়দের নয়, প্রতিটি উপলক্ষে ছোটদের পোশাককে সমান গুরুত্ব দিয়ে থাকে বলেই বাচ্চাদের সংগ্রহও হয় বিশেষভাবে আকর্ষণীয়। রঙ বাংলাদেশ সবসময়েই বিভিন্ন থিমেই সংগ্রহ সাজিয়ে থাকে। এবার সেই ধারা অব্যাহত রা
জেনে নেয়া যাক- এলার্জি দূর করার সহজ উপায়

জেনে নেয়া যাক- এলার্জি দূর করার সহজ উপায়

এলার্জির কারণে অস্বস্তিতে ভোগেন অনেকেই। যন্ত্রণাদায়ক এই এলার্জি অনেক কারণেই হতে পারে। এলার্জির সমস্যা যে কতোটা তীব্র, তা শুধু ভুক্তভোগীরাই জানেন। এর কারণে খাদ্যতালিকা থেকে বাদ রাখতে হয় অনেক প্রিয় খাবার। আর চুলকানির অতিষ্ঠতা তো রয়েছেই। কিন্তু চাইলে খুব সহজেই ঘরোয়া উপায়ে সারাজীবনের জন্য বিদায় জানাতে পারেন। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক- ১ কেজি নিম পাতা ভালো করে রোদে শুকিয়ে নিন। শুকনো নিম পাতা পাটায় পিষে গুড়ো করুন এবং সেই গুড়ো ভালো একটি কৌটায় ভরে রাখুন। এবার ইসব গুলের ভুসি কিনুন। ১ চা চামচের তিন ভাগের এক ভাগ নিম পাতার গুড়া ও এক চা চামচ ভুষি ১ গ্লাস পানিতে আধা ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন। আধঘণ্টা পর চামচ দিয়ে ভালো করে নাড়ুন। প্রতি দিন সকালে খালি পেটে, দুপুরে ভরা পেটে এবং রাত্রে শোয়ার আগে খেয়ে ফেলুন। ২১ দিন একটানা খেতে হবে। কার্যকারিতা শুরু হতে ১ মাস লেগে যেতে পারে। এবং এরপর থেকে
পূজায় স্নিগ্ধতা বজায় রাখতে ত্বকের উপযোগী উপটান

পূজায় স্নিগ্ধতা বজায় রাখতে ত্বকের উপযোগী উপটান

ডেস্ক- সামনেই হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। আর এই সময় ত্বক লাবণ্য ও দীপ্তিময় হোক এটা সব মেয়েদেরই কাম্য। ত্বকের এই লাবণ্য ভাব বজায় রাখতে উপটানের জুড়ি নেই। একটু কষ্ট করে ঘরেই বানাতে পারেন উপটান। তবে উপটান ব্যবহারের পূর্বে এটা জানা আবশ্যক যে কোন ত্বকে কোন ধরণের উপটান বেশি উপযোগী। জেনে নিন ত্বকের উপযোগী উপটান তৈরির উপায়- সাধারণ উপটান উপকরণ ২ টেবিল চামচ বেসন, ১ টেবিল চামচ চন্দন গুঁড়া, আধা টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়া, ২ টেবিল চামচ দুধ। প্রণালী সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। পেস্টটি ফেসওয়াশের মতো করে প্রতিদিন মুখ পরিষ্কার করতে ব্যবহার করুন। এক সপ্তাহ ব্যবহার করলে ত্বকের ভেতরের ময়লা পরিষ্কার হয়ে ত্বক উজ্জ্বল হবে। এই পেস্টটি রেফ্রিজারেটরে ৩ থেকে ৪ দিন রেখেও ব্যবহার করতে পারবেন। শুষ্ক ত্বকের জন্য উপকরণ ২ টেবিল চামচ বেসন, ১ টেবিল চামচ চন
গরুর মাংসের যত গুণ

গরুর মাংসের যত গুণ

ডেস্ক: রেড মিট হিসেবে গরুর মাংস অনেক স্বাদের এবং অনেকের কাছেই খুব প্রিয় একটি খাবার। বাংলাদেশের মানুষ মাংসের মধ্যে গরুর মাংস খেতেই বেশি পছন্দ করেন। তাই কোরবানিতে গরু ছাড়া যেন চলেই না। তবে বেশ কিছু স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ চিহ্নিত হওয়ায় খাবারটি প্রিয় হলেও অনেকে এড়িয়েও চলেন। গরুর মাংস স্বাদে অতুলনীয় এবং পুষ্টি উপাদানসমৃদ্ধ। স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করলে যে কোনো খাবারই সতর্কতার সঙ্গে গ্রহণ করতে হয়। আর সেই কারণে খাবারের পুষ্টিমূল্য তার সঠিক রান্নার কৌশল, সংরক্ষণ ও স্বাস্থ্যের জন্য এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। পুষ্টি: গরুর মাংস প্রোটিনজাতীয় খাদ্যের অন্তর্ভুক্ত। প্রাণী থেকে সংগৃহীত হয় বলে এটি প্রাণিজ প্রোটিন। প্রোটিন ছাড়া আরো বিভিন্ন ধরনের পুষ্টি উপাদান গরুর মাংসে বিদ্যমান। প্রোটিন: গরুর মাংস থেকে উচ্চমাত্রায় প্রোটিন পাওয়া যায়। মাংস ছাড়াও হাড়, কলিজা, মগজ ইত্যাদি
ভাত ও ডাল একসাথে খাওয়ার উপকারিতা

ভাত ও ডাল একসাথে খাওয়ার উপকারিতা

নিউজ,ডেস্ক : ভাত এবং ডাল খুবই পরিচিত একটি খাবার। বিশেষ করে গ্রামে খুব জনপ্রিয় একটি খাবার। আমাদের দেশে যেভাবে ডাল রান্না করে ভাতের সাথে খাওয়া হয় তা পৃথিবীর আর কোথাও দেখা যায় না। ভাত এবং ডাল আমাদের কাছে খুব সাধারণ একটি খাবার। তবে সাধারণ হলেও এর অনেক স্বাস্থ্যগত উপকারিতা আছে। ভাত এবং ডালের খাবার হিসেবে যা যা উপকার আছে তা দেখে নেওয়া যাক- প্রোটিন বা আমিষের সংমিশ্রণ বিভিন্ন উদ্ভিদজাতীয় খাবারের মধ্যে বিভিন্ন পরিমাণে এই অ্যামিনো এসিড থাকে। মসুর ডাল এবং অন্যান্য কলাইয়ের মধ্যে বেশি পরিমাণে লাইজিন থাকে যা আবার ভাতে থাকে না। আবার ভাত এবং এই জাতীয় দানাদার শস্যে সালফার জাতীয় অ্যামিনো এসিড বেশি থাকে যেটা ডাল বা কলাইয়ে থাকে না। সুতরাং ২০ ভাগ ডাল এবং ৮০ ভাগ ভাতের মিশ্রণে প্রয়োজনীয় সবগুলি অ্যামিনো এসিড থাকে। ফলে সম্পূর্ণভাবে প্রোটিন বা আমিষের সংমিশ্রণ পাওয়া যায়। আঁশ বা ফাইবারের চাহি
তৈলাক্ত ত্বকের জন্য কার্যকরী চন্দনের ফেসপ্যাক

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য কার্যকরী চন্দনের ফেসপ্যাক

ডেস্ক- তৈলাক্ত ত্বকে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। তবে এ ধরনের ত্বকে তেল চিটচিটে ভাব দূর করে উজ্জ্বলতা ও কমনীয়তা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে চন্দনের ফেসপ্যাক। জেনে নিন তৈলাক্ত ত্বকের জন্য চন্দনের ফেসপ্যাকের কার্যকারিতা- চন্দনের ফেসপ্যাক তৈরির প্রণালী ১। ১ টেবিল চামচ মুলতানি মাটির সাথে ১ চা চামচ চন্দনের গুঁড়া এমং ১ চিমটি হলুদ গুঁড়া ভালোভাবে মেশান। ২। এর সাথে সামান্য দুধ মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি যেন পাতলা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। দুধের পরিবর্তে গোলাপ জলও ব্যবহার করতে পারেন। ৩। এবার এই প্যাকটি মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে ১০-২০ মিনিট অপেক্ষা করুন শুকানোর জন্য। ৪। তারপর মুখে সামান্য পানির ছিটা দিন এবং আঙ্গুল দিয়ে বৃত্তাকারে ঘষতে থাকুন। তাহলে খুব সহজেই প্যাকটি উঠে যাবে। ৫। এরপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ৬। সপ্তাহে ১ দিন এই প্যাকটি ব্যবহার করলে সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব
গরম লেবু পানি দিয়ে শুরু করুন দিন, দেখুন ম্যাজিক

গরম লেবু পানি দিয়ে শুরু করুন দিন, দেখুন ম্যাজিক

বাড়তি ওজন ঝরাতে চান? তাহলে প্রতিদিন নিয়ম করে লেবু পানি খান। অবশ্যই গরম পানিই লেবুর রস মিশিয়ে খেতে হবে আপনাকে। তাহলেই বাড়তি মেদ হু হু করে কমতে পারে বলেই করছেন গবেষকদের একাংশ । জানা যাচ্ছে, বাড়ি ওজন ঝরাতে হলে প্রতিদিন আল গ্লাস উষ্ণ গরম পানিতে লেবু মিশিয়ে খান। প্রতিদিন নিয়ম মেনে যদি গরম লেবু পানি খেতে পারে, তাহলে মেদ ঝরবে। প্রতিদিন গরম লেবু পানি খেলে শরীর থেকে অতিরিক্ত টক্সিন বেরিয়ে যাবে। ফলে, শরীর ভাল থাকবে। প্রতিদিন গরম লেবু পানি খেলে রক্ত পরিষ্কার থাকে। তেমনি লেবু পানিতে ভাল থাকবে আপনার ত্বকও। তাই জেল্লাদার ত্বক পেতে প্রতিদিন উষ্ণ লেবু পানি খেতে ভুলবেন না। গরম লেবু পানি খেলে হজম শক্তি আরও ভাল হবে। পাশাপাশি ঠাণ্ডা লাগা এবং বিভিন্ন ধরণের ফ্লু থেকেও রক্ষা করবে ওই গরম লেবু পানি। গরম লেবু পানিতে কমে যাবে পেটের সমস্যাও। তাই সুস্থ থাকতে প্রতিদিন এক গ্লাস উষ্ণ গরম পানিতে লেবু দি