Wednesday, September 26Welcome khabarica24 Online

সম্পাদকীয়

ধর্ষণের বিরুদ্ধে জনতা রুখে দাঁড়াও

ধর্ষণের বিরুদ্ধে জনতা রুখে দাঁড়াও

বিশ্বের যাহা কিছুর সৃষ্টির চির কল্যানকর ,অর্ধেক তার আনিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর। এতে বুঝা যায় মানব সভ্যতার ইতিহাস রচনা করতে গেলে পুরুষের পাশাপাশি নারীর অবধান কোন অংশে কম নয়। অথচ পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারীরা হয়েছে নির্য়াতিত নিষ্পেষিত নিগৃহিত জিগাংসার বলি হয়েছে বার বার। তার সাম্প্রতিক প্রমাণ বগুড়ায় মা-মেয়ে নির্যাতনের ঘটনা মাথা ন্যাড়া করে দেয়ার উদাহরণ য়থেষ্ট। দেশে হঠাৎ ধর্ষণ বেড়ে গেছে। প্রতিদিনই অসংখ্য ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। ক্লাসরুমে শিক্ষিকাকে ধর্ষণ,আর ধর্ষণ থেকে বাদ যাচ্ছে না ছোট বাচ্চারাও। গ্রামগঞ্জে, শহরে, রাস্তাঘাটে, ঘরেবাইরে, বাসে-লঞ্চে কোথাও নিরাপদ নয় নারীরা। ঘরে ঢুকে বাবা-মা কিংবা স্বামীকে বেঁধে রেখে ধর্ষণ, রাস্তা আটকিয়ে ভাইয়ের সঙ্গে পিঠমোড়া বেঁধে ধর্ষণ, বেড়াতে গেলে ফুঁসলিয়ে চকলেট দিয়ে বাচ্চাকে ধর্ষণ করা হচ্ছে। ধর্ষণের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রতিকারের নেই কোনো উদ্যোগ।
করেরহাটে বিএনপির মাতৃভাষা দিবসের প্রভাতফেরী ও শ্রদ্ধাঞ্জলী

করেরহাটে বিএনপির মাতৃভাষা দিবসের প্রভাতফেরী ও শ্রদ্ধাঞ্জলী

নিজস্ব প্রতিনিধি :: মীরসরাই উপজেলার ১নং করেরহাট ইউনিয়ন বিএনপির উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা ও ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন অনুষ্ঠান স্থানীয় বিএনপি যুবদল ও ছাত্রদলের যৌথ আয়োজনে সম্পন্ন হয়। ২১ ফেব্র“য়ারী মঙ্গলবার ভোরে প্রভাত ফেরী করে করেরহাট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠস্থ শহিদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পন শেষে শহীদ মিনার প্রাঙ্গনেরই এক স্মরণ সভা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সিরাজুল হক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এসময় ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক বেলায়েত হোসেন সিরাজ, জাহাঙ্গির আলম, নাছির উদ্দিন, যুবদল সভাপতি আবু সাঈদ, রব্বানী, বাহার, তোবারক, খালেক ও শাহজাহান মাষ্টার প্রমুখ। আলোচনায় বক্তাগন দেশের স্বাধীন সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সরকারের প্রতি গনতন্ত্র চর্চার উদাত্ত আহ্বান জানান।
‘চাকরি খুঁজব না, চাকরি দেব’

‘চাকরি খুঁজব না, চাকরি দেব’

মুহম্মদ জাফর ইকবাল গত শনিবার আমাকে একটা অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। যিনি আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তিনি বললেন, স্যার, আপনি নিশ্চিন্ত মনে আসতে পারেন। আপনাকে স্টেজে বসতে হবে না, বক্তৃতা শুনতে হবে না, বক্তৃতা দিতেও হবে না! যে অনুষ্ঠানে স্টেজে বসতে হয় না, বক্তৃতা শুনতে হয় না কিংবা বক্তৃতা দিতে হয় না সেটা দেখার আমার খুব আগ্রহ হলো। তাই শনিবার দিন সকাল বেলা আমি নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে হাজির হলাম। গিয়ে দেখি এটি একটি বৈশাখী হাট, তবে অন্য দশটা বৈশাখী হাট থেকে ভিন্ন, সেটে বড় বড় করে লেখা ‘বৈশাখী উদ্যোক্তা হাট’! আমি অনেক রকম হাট দেখেছি, আমাদের দেশে ছবির হাট আছে, গাড়ির হাটও আছে, আমস্টার্ডামে উল্কি (Tattoo) হাট দেখেছিলাম। কিন্তু কখনও উদ্যোক্তা হাট দেখিনি। এখানে দেখে আমি চমৎকৃত হলাম। আমি খুব আগ্রহ নিয়ে ভেতরে গেলাম। মনে পড়ল বছর খানেক আগে এই উৎসাহী কিছু তরুণ মিলেই উদ্যোক্তাদের একটা আন্দোলন

জাতি ও চিন্তাচর্চায় গ্রন্থাগার

কবি আলী প্রয়াস::::::: জ্ঞানের উৎস বই। আর বইয়ের উৎস গ্রন্থাগার। মানুষের জ্ঞান-সমৃদ্ধির কেন্দ্রস্থল এটি। মানুষকে পড়ার প্রতি আগ্রহী, স্বশিক্ষিত এবং রুচিশীল    করে তোলে। প্রমথ চৌধুরী বলেছিলেন, ‘লাইব্রেরির প্রয়োজনীয়তা স্কুল-কলেজের চেয়ে বেশি।’ কারণ এটি একটি গতিশীল প্রতিষ্ঠান এবং এটা মানুষের মধ্যে সামাজিকতা, নৈতিকতা, অধিকার ও কর্তব্যবোধ, পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা ও কুসংস্কারের বিপরীতে সুষ্ঠু মানসিকতা গঠনে ভূমিকা রাখে। মোটকথা, কোনো জাতি গঠনের ক্ষেত্রে লাইব্রেরির ভূমিকা অসামান্য। একটি জাতির চিন্তাচেতনা কেমন হয় তা নির্ভর করে মূলত সেই জাতির জ্ঞানচর্চার উপর। যদি সে জাতি যুদ্ধবিষয়ক জ্ঞান লাভ করে তবে অন্য কোনো রাষ্ট্রের জন্য সেটা ভীতিকর হয়ে ওঠে। আর যদি সেই জ্ঞান হয় আনন্দময় তবে সেই জাতি অন্য দেশ বা রাষ্ট্রের জন্য হয়ে ওঠে একটি পড়শি পুণ্যদেশ। চিন্তার ক্ষেত্রে আগে থেকেই বই বা পুঁথি ভূমিকা রেখে আসছে।

কিভাবে এলো মহান মে দিবস।

শোভাযাত্রা, আলোচনাসভাসহ নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করে। কিন্তু এই দিবসের ইতিহাস আমাদের নতুন প্রজন্ম তথা অনেকে জানেনা, তাই তথ্য ভিত্তিক ইতিহাসটি তুলে ধরলাম। ১লা মে দিনটি পৃথিবীর অনেক দেশে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে পালিত হয় যা মে দিবস নামেও পরিচিত। বাংলাদেশসহ অনেক দেশেই এ দিনটি সরকারীভাবে ছুটির দিন। ১৮৮৬ সালের মে মাসে শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের ঐতিহাসিক আন্দোলন ও আত্মাহুতিকে এদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরন করা হয়। বিশ্বের প্রায় সব দেশে পালিত হলেও যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় এইদিনটি পালিত হয় না। ‘শ্রমিক’ – সভ্যতার প্রতিটি ইট,বালু, পাথরে যাদের ফোটা ফোটা ঘাম জড়িয়ে আছে তারা কিন্তু কখনোই সভ্যতার আশীর্বাদধন্য শ্রেনী ছিলনা, এখনো নয়। আজকের এই পোস্টে ১৮৮৬ সালের শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের ঐতিহাসিক সেই আন্দোলন নিয়েই লিখব বলে ঠিক করেছি। ঊনিশ শতকের গোড়ার দিককার কথা। শ্রমিকরা তখনো শোষিত, সপ্তাহে ৬ দিনের প

সাগরে ভাসছিল নৌকা, ভিতরে বসে একা মমি

চালকের আসনে শরীরটা বসে আছে। হাতটা রেডিও টেলিফোনের কাছে। যেন এখনই একটা ফোন করতে চায়। পরিত্যক্ত একটি নৌকোর মধ্যে এ রকমই মমি হয়ে যাওয়া এক নাবিকের দেহ উদ্ধার হয়েছে ফিলিপিন্সে। নৌকোর মধ্যে পাওয়া ছবি-চিঠি ও অন্যান্য নথি থেকে মনে করা হচ্ছে, দেহটি নিখোঁজ জার্মান নাবিক মানফ্রেড ফ্রিৎজ বাজোরাট-এর। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ফিলিপিন্সের উপকূল থেকে প্রায় ৪০ মাইল দূরে প্রশান্ত মহাসাগরে মাছ ধরছিলেন ক্রিস্টোফার রিভাস নামে এক যুবক এবং তাঁর বন্ধুরা। হঠাৎই চোখে পড়ে কিছু দূরে আপনাআপনি ভেসে চলেছে একটি ভুতুড়ে নৌকো। পালটা ভাঙা। ৪০ ফুট লম্বা সাদা রঙের ইয়ট জাতীয় নৌকোটির গায়ে নাম লেখা ছিল ‘সায়ো’। রিভাস এবং তাঁর সঙ্গীরা নৌকোটির মধ্যে ঢুকে চমকে যান। রেডিও রুমে চেয়ারের উপরে বসে রয়েছে আস্ত একটি মমি! নৌকোটিকে সঙ্গে নিয়ে পরের দিন ভূখণ্ডে ফিরে আসেন রিভাসরা। ফিলিপিন্সের বারোবো থানার পুলিশ ঘটনাটির তদন্ত শু

দেড় মাসে হত্যার শিকার ৪৫ শিশু

ঢাকা: অপরাধীরা নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য নিষ্পাপ শিশুদের সহজ লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করছে। শিশুহত্যার মতো ঘৃণিত অপরাধে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায়শিশু হত্যার ঘটনা ক্রমশই বাড়ছে। চলতি মাসের ফেব্রুয়ারির প্রথম ১৭ দিনেই হত্যাকান্ডে শিকার হয়েছে অন্তত ১৪ শিশু। গত মাসে এই সংখ্যা ছিল ২৯। আর গত দেড় মাসে হত্যা করা হয়েছে ৪৫ শিশুকে। দেশে একের পর এক এই শিশু হত্যার ঘটনা অতীতের যেকোনো সময়কে হার মানিয়েছে। দেশে সম্প্রতি শিশু হত্যা ও অপহরণের ঘটনায় মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেইসঙ্গে এ ঘটনায় তীব্র ক্ষোভও প্রকাশ করেছে সংগঠনটি। এ বিষয়ে এক বিবৃতিতে সংস্থার চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সিগমা হুদা বলেন, ‘শিশু নির্যাতন ও হত্যার মতো অপরাধ প্রতিরোধ করতে প্রয়োজন সামাজিক আন্দোলন। সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও সচেতনতাইপারে কেবল এই ধরনের সংকট থেকে উদ্ধার ক

বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুরের জন্মদিন গতকাল ২ ফেব্রুয়ারি

স্বাধীনতা যুদ্ধের অগ্রনায়ক বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী মোহাম্মদ হামিদুর রহমানের জন্মদিন গতকাল ২ ফেব্রুয়ারি পালন হয়। প্রতিবছর নীরবে নিভৃতে তার পরিবার পালন করে আসছে জন্মদিন। ১৯৫৩ সালে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার খোর্দ্দ খালিশপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তাঁর পিতা আব্বাস আলী মন্ডল, মাতা মোসাম্মৎ কায়সুন্নেসা। তিনি খালিশপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং পরবর্তীকালে স্থানীয় নাইট স্কুলে সামান্য লেখাপড়া করেন। একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখার জন্য তাকে বীরশ্রেষ্ঠ খেতাবে ভূষিত করা হয়। মাত্র ১৮ বছর বয়সে শহীদ হওয়া হামিদুর রহমান সাতজন বীরশ্রেষ্ঠ পদকপ্রাপ্ত শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ। ১৯৭০ সাল। দেশ তখন স্বাধিকারের আন্দোলনে মুখরিত। ঠিক সেই সময় হামিদুর যোগ দিলেন সেনাবাহিনীর সিপাহী পদে। তার প্রথম ও শেষ ইউনিট ছিল ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট। সেনাবাহিনীতে ভর্তির পরই প্রশিক্ষণের জন্য তাঁকে পাঠানো হ