Friday, September 21Welcome khabarica24 Online

জাতীয়

সংলাপের জন্য আরেকবার আমন্ত্রণ চায় বিএনপি

সংলাপের জন্য আরেকবার আমন্ত্রণ চায় বিএনপি

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ দুই নেত্রী সংলাপে বসার জন্য  আরেকবার বেজে উঠতে হবে লাল টেলিফোন । কিন্তু কে করবেন সেই ফোন? এ নিয়ে এখন দেখা যাচ্ছে, দুই পক্ষের দুরকম অবস্থান। ২৯ তারিখের পর বেগম খালেদা জিয়া যে কোনো সময় যে কোন জায়গায় গিয়ে সংলাপে বসবেন। এ জন্যে আরেকবার নিমন্ত্রণ জানাতে হবে প্রধানমন্ত্রীকে। কিন্তু ক্ষমতাসীন জোট  জানিয়ে দিলো, এদিক থেকে কোনো ফোন যাচ্ছে না। পরের ফোনটি বিএনপি  থেকেই আসতে হবে। গণমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে, গণভবন এখন অপেক্ষা করছে, বিরোধী দলীয় নেত্রীর পক্ষ থেকে ফোনের। চৌদ্দ দলের নেতারা দুপুরে বৈঠক সারার পর, জোট নেতাদের ব্রিফিং-এ রাশেদ খান মেনন স্পষ্ট করেই বললেন, পরের ফোনটা অপর প্রান্ত থেকেই আসতে হবে। বুঝা যাচ্ছে সংলাপের জন্য আরেকটা টেলিফোন কল অপেক্ষা করছে। তবে কে কল করবে সেটাই প্রশ্ন.....
আগামি ১০ নভেম্বর  থেকে আওয়ামী প্রার্থীদের মননোয়নপত্র বিতরণ শুরু হবে

আগামি ১০ নভেম্বর থেকে আওয়ামী প্রার্থীদের মননোয়নপত্র বিতরণ শুরু হবে

নিজস্ব প্রতিনিধি আগামী ১০ নভেম্বর থেকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের মননোয়নপত্র দেওয়া শুরু করবে আওয়ামী লীগ। গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবার আওয়ামী লগের মনোয়নপত্রের দাম ১০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। একই সাথে গত এক মাসের বেশি সময় ধরে  প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূল নেতাদের সাথে প্রধানমন্ত্রীর যে বৈঠক হয়েছে সেখান থেকে আসা সুপারিশ নিয়েও আলোচনা হয়েছে।
১ নভেম্বর শুক্রবারের কর্মসূচি প্রত্যাহার করছে না হেফাজতে ইসলাম

১ নভেম্বর শুক্রবারের কর্মসূচি প্রত্যাহার করছে না হেফাজতে ইসলাম

নিজস্ব প্রতিনিধি মন্ত্রিসভা থেকে কওমি মাদরাসা বিল প্রত্যাহার করা হলেও কর্মসূচি প্রত্যাহার করছে না হেফাজতে ইসলাম। এ তথ্য জানিয়েছে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী। নিজেদের কর্মসূচি সম্পর্কে আজিজুল হক বলেন, ‘মন্ত্রিসভা থেকে কওমি মাদরাসা বিল প্রত্যাহার করা হলেও আমাদের কর্মসূচি প্র্যত্যাহার হচ্ছে না।’ তবে বিলটি প্রত্যাহার করায় সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এই হেফাজত নেতা। গত ২৭ অক্টোবর দুপুরে হাটহাজারী মাদরাসার সামনে একটি কমিউনিটি সেন্টারে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছিলেন, কওমি মাদরাসা কর্তৃপক্ষ আইন-২০১৩ পাস করলে দেশে গৃহযুদ্ধ শুরু হবে। এই আইন পাস করা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়ে তিন দিনের নতুন কর্মসূচি দিয়েছিল সংগঠনটি। তাদের ঘোষিত কর্মসূচিগুলো হচ্ছে- ১ নভেম্বর শুক্রবার সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ, ২ নভেম্বর
বিএনপি না এলে অন্যদের কে নিয়েই সর্বদলীয় সরকার গঠন করা হবে : প্রধানমন্ত্রী

বিএনপি না এলে অন্যদের কে নিয়েই সর্বদলীয় সরকার গঠন করা হবে : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি প্রধান বিরোধী দল হিসাবে বিএনপি অংশগ্রহন না করলে তাদের কে ছাড়াই    নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনের চিন্তা করছে সরকার। অন্যান্ন  রাজনীতিক দলসহ - বাসদ, কমিউনিস্ট পার্টি  এই ধরনের দলকে সর্বদলীয় সরকারে যোগদানের আহ্বান জানাতে পারে সরকার। সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী অন্য মন্ত্রীদের এমন কথাই জানিয়েছেন বলে বিশেষ সূত্র থেকে জানা গেছে।  বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচনে যাওয়ার কোনো চিন্তাভাবনা নেই সরকারের । প্রধান বিরোধী দল বিএনপির নির্বাচনকালীন সরকারে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে  প্রধানমন্ত্রী এখনো আশাবাদী। নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার ব্যবস্থা নিয়ে সংলাপে বসার ক্ষেত্রে বিএনপির সাড়া দেওয়ার অপেক্ষায় তিনি প্রহর গুনছেন। যদি সব চষ্টোর পরও বিএনপি সংলাপে না আসে তবে বিএনপিকে ছাড়াই সর্বদলীয় সরকার গঠনের পথে এগোবে বর্তমান সরকার। কিছু দিনের ম
প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারীর পদ থেকে হানিফকে অব্যাহতি

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারীর পদ থেকে হানিফকে অব্যাহতি

নিজস্ব প্রতিনিধি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারীর পদ থেকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।রোববার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে এক আদেশ জারি করা হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুস সোবহান সিকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ব্যাপারে মাহবুব উল আলম হানিফ জানান, তিনি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতেই প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারীর পদ থেকে পদত্যাগের জন্য আবেদন করেছিলেন। সেই হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে তিনি মনে করেন। দলের নেতাদের কেউ বলছেন হানিফকে আরো আগে সরানো দরকার ছিল। আবার কেউ বলছেন হানিফ নিজেই নেত্রীর কাছে অব্যাহতি চেয়েছেন নির্বাচনে কাজের সুবিধার জন্য।

এ সপ্তাহের মধ্যেই চূড়ান্ত হচ্ছে নির্বাচনী আচরণবিধি: সিইসি

নিজস্ব প্রতিনিধি সব দলের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করেই, এ সপ্তাহের মধ্যে নির্বাচনী আচরণবিধি চূড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমদ। সিইসি বলেন, আচরণবিধি চূড়ান্ত হলেই নির্বাচন কমিশন তার সাংবিধানিক ক্ষমতা প্রয়োগের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। দিন গণনা শুরু হলেও, এখনো প্রধান দুই দলের সমঝোতার দিকেই তাকিয়ে আছে নির্বাচন কমিশন। সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে, নির্বাচনের লক্ষ্যেই আচরণ বিধি তৈরিতে দেরি হচ্ছে বলেও জানান সিইসি।
চলছে আঠারো দলের হরতাল

চলছে আঠারো দলের হরতাল

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে সারাদেশে হরতাল চলছে। থেমে থেমে সংঘর্ষ, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, গুলি বিনিময়ের মাধ্যমে পালিত হচ্ছে ১৮ দলীয় জোটের হরতাল। সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন নিহত হয়েছেন। হরতালের পরিস্থিতি নিয়ে পরিবর্তন প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- পাবনা : জেলা মুলাডলিতে শিবিরের সাথে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ও গুলিবিনিময়ে জুলহাস উদ্দিন মুন্নাফ (২৮) নামের এক শিবিরকর্মী নিহত হয়েছেন। এ সময় ৫ জন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে আরো ২০ জন। আহতদের পাবনা ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিমান কুমার দাস জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। পটুয়াখালী: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় যুবলীগের অফিসে হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় ১৭ জন আহত হয়েছেন। গাজীপুর: গাজীপুরে হরতালের সমর্থনে মিছিল, গাড়িতে অগ্ন
হরতাল প্রত্যাহারের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান খালেদার

হরতাল প্রত্যাহারের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান খালেদার

ঢাকা : হরতাল প্রত্যাহার করে আলোচনা বসতে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া প্রস্তাবকে প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, নির্দলীয় সরকারের দাবি  গণদাবিতে পরিণত হয়েছে । এর প্রতি যদি আপনি নীতিগতভাবে সম্মত হন তাতে করে হরতাল অবরোধ তুলে দিয়ে আলোচনায় বসতে রাজী আছি। চেয়ারপারসনের প্রেস সচিব জানান, কর্মসূচি প্রত্যাহার প্রসঙ্গে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীকে বলেন ,অনেক দেরি করে ফেলেছেন, সময় মত ফোন করলে ভাবা যেত। তাই হরতাল বহাল থাকবে। হরতাল কর্মসুচি শেষ হলে যেকোনো সময় আলোচনার প্রস্তাব দিলে আলোচনার জন্য প্রস্তত আছি। প্রধানমন্ত্রী হরতাল স্থগিত করে দিয়ে আলোচনায় বসতে চাইলে খালেদা জিয়া জনান, এটি কেবল বিএনপির নয় ১৮ দলের পূর্বঘোষিত কর্মসুচি। তাছাড়া আপনার পুলিশ বাহিনী যেভাবে ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের তারা করে যাচ্ছেন। এই মূহুর্তে  ১৮ দলের সবাইকে এক সঙ্গে কাজ করার সুযোগ নেই। কর্মসূচি প্রত্যা