Friday, July 12Welcome khabarica24 Online

কবিতা ও গল্প

২০১৭ বই মেলায় কবি ওবাইদুল হক এর ১টি একক বই সহ মোট ৫টি বই

২০১৭ বই মেলায় কবি ওবাইদুল হক এর ১টি একক বই সহ মোট ৫টি বই

২০১৭ বই মেলায় কবি ওবাইদুল হক এর  মোট একক বই (ভুলুনি মাতৃভূমি) আর যৌথ বই সহ মোট পাঁচটি বই এসেছে মেলায়। এ নিয়ে কবি ওবাইদুল হক এর  একক বই মোট পাঁচটি প্রথম বই  ১। কষ্ট তোমায় এত দিনে চিনলাম। ২। মা স্বদেশের মাঝে তোমায় খুঁজি। ৩। বিধুর বিসর্জন ৪. ভুলিনি মাতৃভূমি। একক সব গুলো বই নন্দিতা প্রকাশনী। বাংলা বাজার ঢাকা।  ৫। কষ্টের প্রবাস। যৌথ কাব্য, শব্দ মেঘ, স্বপ্ন সুখের সারথি,স্বপ্ন সিঁড়ি। লাল সতবুজের পতাকা, প্রবাসের গল্প ২। কেন বই লিখি ঃ প্রতিটি মানুষের কিছু মনের আনন্দ বেদনার চাহিদা থাকে। কেউ গান গেয়ে সে আনন্দটা উপভোগ করে, আবার কেউ গান শুনে আনন্দটা উপভোগ করে। তবে আমার ক্ষেত্রে একটু ভিন্নতা সেটা আমার একান্তই, আমার লেখার মাঝে আমি আমার মরহুম মাতাকে আনোয়ারা বেগমকে,  সারাটা জীবন বাঁচিয়ে রাখতে চাই। কারণ শৈশবে অবেলা মাকে হারিয়ে যখন প্রায় নিঃস্ব হয়ে গেলাম, তখন এই কলমের কাল

নব নির্বাচিত সভাপতি সম্পাদকের ফুলেল অভিষেক মীরসরাই কবিতা পরিষদের কমিটি গঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ মীরসরাইয়ের শিল্প সাহিত্য সংগঠন মিরসরাই কবিতা পরিষদের নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। শুক্রবার (১২ আগষ্ট) বিকেলে মিরসরাই উপজেলা পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তেন এ উপলক্ষে এক সভা অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট কবি শাহাদাত হোসেন লিটন, মাহবুবুর রহমান পলাশ, সাংবাদিক শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, রণজিত ধর, মাষ্টার হোছাইন সবুজ, রাজিব মজুমদার, রাজু কুমার দে, ছড়াকার শামীম খান যুবরাজ, ইলিয়াছ রিপন, নাছির উদ্দিন, রিপন গোপ পিন্টু, মোঃ নুরুল ইসলাম, ইমাম হোসেন, তৌহিদুল ইসলাম প্রমুখ। সভায় মাষ্টার হোছাইন সবুজকে সভাপতি, সাংবাদিক মাহবুব পলাশকে সিনিয়র সহ সভাপতি, শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, রনজিত ধর, রাজু কুমার দে, শরীফ উদ্দিন শিবলুকে সহ সভাপতি, সাংবাদিক ও কবি রাজীব মজুমদারকে সাধারণ সম্পাদক, নাজমুল হাসান, শামীম খান যুবরাজ ,রিপন গোপ পিন্টুকে যুগ্ন সম্পাদক, সাংবাদিক ইলি

আমার দেখা তামিলনাড়ু রাজ্য- রেজা তানভীর

ভারতের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রদেশ তামিলনাড়ু। সেখানে যাওয়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল। তামিলনাড়ু রাজ্যের প্রধান রাজধানী হচ্ছে চেন্নাই। চেন্নাইয়ের পূর্ব নাম মাদ্রাজ। মাদ্রাজ নামটি পরিবর্তিত হয়ে এখন চেন্নাই নাম ধারণ করেছে। আমরা যে শহরটিতে ছিলাম সেটি হচ্ছে ভেলোর। ভেলোর হচ্ছে তামিলনাড়ু রাজ্যের একটা জেলা। আমরা ৪ জন কলকাতার হাওড়া রেলষ্টেশন থেকে রওনা দিলাম। প্রায় ৩০ ঘন্টা ট্রেন ভ্রমণ  শেষে আমরা পৌছুলাম ভেলোরে। ভোলোরের সাধারন মানুষ হিন্দি বলতে পারেনা। যারা শুধুমাত্র পড়াশোনা করেছে এবং শিক্ষিত তারাই শুধুমাত্র হিন্দি বলতে পারে। আমরা সাধারন মুদি দোকানী বা ফল বিক্রেতাদের সাথে কথা বলতে খুব কষ্ট হতো কারন তারা শুধু তামিল বলতে পারে, হিন্দি বুঝতে বা বলতে পারেনা। ভেলোরে ফলের দাম খুবই সস্তা, মাত্র ১০ বা ১২ রুপি দিয়ে বড় একটা পেঁপে বা ১৫ রুপি দিয়ে কাঁঠাল পাওয়া যায়। তবে ওখানে চায়ের দামটা একটু বেশীই। সাধারন দোকানগু

দীপন নেই, তবু বইমেলায় থাকছে জাগৃতি

খবরিকা ডেস্ক : এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় ফয়সাল আরেফিন দীপনের প্রকাশনী জাগৃতি থাকবে। থাকবে নতুন বইও। তবে রাজধানীর লালমাটিয়ায় জঙ্গি হামলায় আহত প্রকাশক আহমেদুর রশিদ টুটুলের প্রকাশনী সংস্থা শুদ্ধস্বরের মেলায় থাকা নিয়ে অনিশ্চিয়তা দেখা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। দিপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক বলেন, ‘অমর একুশের গ্রন্থমেলায় জাগৃতি অংশ নেবে। মেলায় স্টলও থাকবে। নতুন কিছু বই প্রকাশ করা হবে। পুরনো বইও পাওয়া যাবে। আমরা চেষ্টা করছি সবকিছু গুছিয়ে ওঠার।’ তিনি বলেন, ‘দীপনের মৃত্যুতে আমাদের পরিবারের যে ক্ষতি হয়েছে, তা কখনও পুষিয়ে ওঠা সম্ভব নয়। তবে আমার ছেলের প্রতিষ্ঠানটি যেন বেঁচে থাকে সেজন্য বাবা হিসেবে চেষ্টা করছি। দীপনের শুভাকাঙ্ক্ষীরাও তাই চায়। জাগৃতি তার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাবে। দীপনের হত্যার পর আমরা মামলাও করতে চাইনি। কারণ, দেশের চলমান বিচার না হওয়া সংস্কৃতি। কিন্ত

জোরারগঞ্জ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে যুগান্তর-দুর্বার সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত

সাহিত্য প্রতিবেদক :: গান আর আবৃত্তির মধ্য দিয়ে দৈনিক যুগান্তর স্বজন সমাবেশ ও মাসিক দুর্বার এর আয়োজনে মার্সেলের সহযোগীতায় সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় শতবর্ষী জোরারগঞ্জ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে দুর্বার সম্পাদক রাজিব মজুমদারের সঞ্চালনায় ও প্রধান শিক মোঃ নুরুল আমিনের সভাপতিত্বে শিার্থীদের অংশগ্রহণে সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত হয়। কবি নির্মলেন্দু গুণের ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে হে স্বাধীনতা’ কবিতার আবৃত্তি দিয়ে শুরু হয় আবৃত্তির প্রতিযোগিতা। এরপর গানের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বাইরে অঝোরে বৃষ্টি ঝরছে তখন কে চলছে “ভাঙা তরী ছেঁড়া পাল” গানটি। ৭ম শ্রেণির ছাত্র মাধব বণিকের কণ্ঠে এই দেহত্বত্তের গানটি শুনে উপস্থিত সকলে মোহিত হন। এরপর রবীন্দ্র ও নজরুলের জনপ্রিয় গান পরিবেশন করেন শিার্থীরা। পাশাপাশি স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন শিার্থীরা। উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন

‘রক্তিম ভালবাসা’

রক্তিম। ছোটবেলা থেকেই খুব লাজুক প্রকৃতির। কিছুদিন হল সে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স শেষ করেছে। রক্তিম তখন দ্বিতীয় বর্ষে। ২০১০ সালের মাঝামাঝি কোন একদিন কোন এক কারণে একটি মেয়ের সাথে তার প্রথম দেখাই তাকে একদম ওলটপালট  করে দিল। ধীরে ধীরে মেয়েটার প্রতি সে কেমন জানি দুর্বল হয়ে পড়ল। প্রথম দেখাতেই তার মনের গহীনে জায়গা করে নিল মেয়েটি। সবসময় শুধু মেয়েটার কথা ভাবতে থাকে। মেয়েটার জন্য মন থেকে অদ্ভুত একটা টান অনুভব করে। এর আগে কখনো সে এমন পরিস্থিতিতে পড়েনি। প্রেম-ভালবাসা সম্পর্কে তার তেমন কোন অভিজ্ঞতা ছিল না। কোন অপরিচিত মেয়ের সাথে কথা পর্যন্ত বলতে পারত না। হাঁটু কাঁপা শুরু হয়ে যেত। আর সে কিনা একটি মেয়েকে ভালবাসতে শুরু করেছে! আসলে কোন মেয়ের সাথে দেখা, তার সাথে কথা বলার পর যদি মনের মনিকোঠায় স্থান করে নেয় নিবিড় টান, নিখুঁত ভালোবাসা নিজের অজান্তেই চলে আসে। সেই থেকেই মেয়েটার প্রতি তার দূর্বলতা ভালোবাসা
খবরিকা ১৬৯ তম সংখ্যার সকল কবিতা সমূহ

খবরিকা ১৬৯ তম সংখ্যার সকল কবিতা সমূহ

  মর্ত্য প্রাচ্য দিবা খুব কমই উন্মুক্ত হয় স্বর্গ সিংহদ্বার! চব্বিশ ঘন্টাই থাকে নরকে প্রবেশাধিকার! কোনো এক মহাপ্রলয়ে- হল স্বর্গনরক একাকার! দেখা দিলো জন্ম-মৃত্যু-ভালোবাসা, দুঃখ-জ্বরা এবং তাদের বংশধরেরা- মহাকাল ঘনীভূত মুহূর্তড়্গণে, দ্বি-অসিত্মত্ব, শানিত্মতে রণে- মানুষই পারে করতে আলাদা; নরক সয়েও স্বর্গ ভ্রমনে! এ পৃথ্বিীই আজ স্বর্গভূমি নারকীয়তার নকশী জমি; দেব-দানবে লড়ে একই দেহমাঝে- সুর-অসুরেরা রাষ্ট্রে-সমাজে! মানুষই পারে মিলিতে-মেলাতে বস'-শক্তি যেমন একসাথে; একটু যদি দেখো আঁখি মেলে যে হৃদয়ে ভলোবাসা খেলে; সবাই তেমনি চায় ভালোবাসা, যেমনি তুমিও করো পাবার আশা; তুমিও যদি আজ সবারে, ভালোবাসো ভুলে এ সংসারে- পৃথিবীই হবে আজ এখুনি- মর্ত্যেই সেরা স্বর্গভূমি!!   বিদ্যালয়ের রীতি মোমেনা আক্তার আবুতোরাব উচ্চ বিদ্যালয় দশম শ্রেণি বিদ্যালয়ে যাই আমরা সকাল ১০টায়। ছুটি হ
একমাত্র সনত্মান

একমাত্র সনত্মান

॥ মনির হোসেন সাগর ॥ রাসেল, শুভ, রিয়াজ এবং রনি। ওরা চারজন অনেক ভালো বন্ধু। ওরা একই সাথে পড়াশুনা করে। যদিও সবাই পড়ালেখায় ভালো, তবুও রনি সবচেয়ে ভালো। ও ক্লাসে সবসময় আসে এবং পড়াশুনাও ঠিকভাবে শেষ করে। রাসেল, শুভ ও রিয়াজ ঠিকভাবে স্কুলে আসেনা। তারপরও পড়াশুনায় ওরা ভালো। ওরা ঠিক মতো ক্লাস না করলেও রনি কখনোই ক্লাস ফাঁকি দিত না। কারণ তার বাবা-মা সবসময় তার খেয়াল রাখে। কারণ তাঁদের একটি মাত্র সন-ান রনি। সেজন্য তাঁদের ইচ্ছা ছেলেকে ডাক্তার বানাবেন। মা-বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে রনি বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে পড়াশুনা করতে থাকে। তার বাবার স্বপ্ন রনি ডাক্তার হয়ে গরীব-দুঃখী মানুষের সেবা করবে। সেজন্য তার বাবা তাকে ভালোভাবে পড়াশুনা করতে উপদেশ দেন। সেও বাবা-মার স্বপ্ন বাস-বায়ন করতে ভালোভাবে পড়াশুনা করতে থাকে। একদিন তারা চার বন্ধুসহ আরো কয়েকজন ক্রিকেট খেলছে। হঠাৎ সবাই খেলা বন্ধ করে রাসেলের কথা শুনতে ওর কাছাকাছি চলে