Thursday, November 14Welcome khabarica24 Online

সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে আওয়ামীলীগকে পূর্বের চেয়ে শক্তিশালি করতে চাই :: জাহাঙ্গির ভূঞা

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সভাপতির পদ নিয়ে এখনো গোলক ধাঁধা রইলে ও মীরসরাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমানে অনেকটা নিরানব্বই শতাংশই নিশ্চিন্ত যে একে এম জাহাঙ্গির ভূঞাই হচ্ছেন উক্ত পদে আগামীর নৌকার মাঝি। কারন নানামুখি গুঞ্জন ও গ্রীন সিগনালের নানা ম্যাসেজ তাই বলছে গত দু-একদিন ধরে।
আওয়ামীলীগের এই ত্যাগি মুখ জাহাঙ্গির ভূঞা দলের জন্য গত কয়েক যুগ কাজ করে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের নিজ গ্রামের এই প্রিয়ভাজন ব্যক্তিত্ব দীর্ঘদিন ধরে ত্যাগী মুখ সম্প্রতি খবরিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন ২০০৫ সালে জোট সরকারের আমলে শান্তিরহাট বাজারে তিনি বিএনপি- জামায়াত কর্তৃক আক্রমনের শিকার হন। এখনো সেদিনের আঘাত তাঁর শরীরে বহমান। ছোট বেলা থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করলে ও ২০০২ সাল থেকে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও পরবর্তি থেকে অদ্যাবধি সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সম্প্রতি প্রিয় নেতা বলেছেন ইউনিয়নের দায়িত্ব ছেড়ে দিতে তাই তিনি প্রার্থী হন নি। আগামীতে ও তিনি যা বলবেন তা মেনে নিবেন বলেন তিনি। প্রিয় নেতার নির্দেশেই প্রার্থী হয়ে ২০১৬ সালে নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। অথচ পূর্বে ও তাঁকে চেয়ারম্যান নির্বাচন করার জন্য বার বার বলার পর ও তিনি যান নি । উপরন্তু বলেছেন নেতৃত্ব বা পদ নয় আপনার আসেপাশে থেকে শিখতে চাই সমাজ ব্যবস্থাপনা। এবার ও দলের প্রয়োজনে , ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের হাতকে শক্তিশালি রাখার জন্য, তাঁর প্রিয় সন্তান আগামীর অভিবাবক ইঞ্জিনিয়ার মাহবুবুর রহমান রুহেল এর হাতকে শক্তিশালি রাখার জন্য তিনি মীরসরাইবাসীর আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতীক প্রিয় নেতা যেখানেই বলবেন সেখানেই দলের জন্য কাজ করে যাবেন বলে জানান।
দলের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হলে তিনি কি কি কাজ করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী ও ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের যে জিরো টলারেন্স তা অব্যাহত থাকবে। এছাড়া তৃণমূলের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে উপজেলা ও জেলার সকল সিনিয়র নেতৃবৃন্দের পরামর্শে সবসময় প্রিয় নেতার সকল স্বপ্ন বাস্তবায়নই একমাত্র লক্ষ। এছাড়া সজিব ওয়াজেদ জয় এর ঘনিষ্ট বন্ধু ও সহকর্মী মাহবুবুর রহমান রুহেল এর আগামীর সমৃদ্ধময় মীরসরাই গড়তে নিবেদিতভাবে কাজ করে যাবে সবসময়।
উল্লেখ্য যে, জনাব একেএম জাহাঙ্গির ভূঞা ১৯৬৮ সালে উত্তর ধূম গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। পিতা এলাকার সমাজহিতৈষী মরহুম নজির আহমদ ভূঞা, মাতা ছুফিয়া বেগম। ১৯৯০ সালে তিনি চট্টগ্রাম কলেজ থেকে বিএ পাশ করেন। দাম্পত্য জীবনে তিনি ৩ পুত্র সন্তানের পিতা। এক সন্তান বর্তমানে ক্যান্টনম্যান্ট কলেজে ও ছোট দুই সন্তান সিজিএস বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। তাঁর সহধর্মিনী সুলতানা রাজিয়া একজন সুগৃহিনী।