শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ছাড়া কিছুই দিতে পারেনি বিএনপি

pm_66649
ক্ষমতায় থাকাকালে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ছাড়া দেশের মানুষকে আর কিছুই দিতে পারেনি বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। বিদেশিদের করা জরিপে দেখা গেছে, ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিলেও জনগণ আওয়ামী লীগকেই ভোট দিতো।
শনিবার রাজশাহীর পুঠিয়ায় চারঘাট হাই স্কুল মাঠের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসা মানেই সন্ত্রাস নিয়ে আসা। এর আগে এই এলাকায় বাংলাভাই প্রতিদিন মানুষ খুন করেছেন। সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ ছাড়া আর কিছুই তারা দিতে পারেনি। কয়লা ধুলে যেমন ময়লা যায়না, তেমনি বিএনপি জামায়াতের চরিত্রও কখনোই বদলায় না।
এ সময় বিএনপি-জামায়াতের সহিংসতার চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, হরতাল-অবরোধ দিয়ে ১৩৫ জন মানুষকে হত্যা করেছে বিএনপি। প্রায় ১০০ সরকারি বাসে আগুন লাগিয়েছে জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা। এবাসে আগুন লাগিয়ে ২৬ জনকে দগ্ধ করেন।
উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘গোপালগঞ্জের নাম শুনলে উনার মেজাজ খারাপ হয়। এজন্য গোপালগঞ্জের নাম শুনলেই উনি গালি দেন।এর জবাবে আমি বলেছি, গোপালীরা কপালি হয়। আর উনি গোলাপী শাড়ি পড়ে গোলাপী হয়ে থাকেন। গোলাপী এখন কই? জাতীয় নির্বাচনের ট্রেন মিস করে গোলাপী এখন উপজেলা নির্বাচনের ট্রেনে চড়ে বসেছে।’
এর আগে সারদা পুলিশ একাডেমী প্যারেড গ্রাউন্ডে ৩১তম বিসিএস ব্যাচের ১৭৬ জন শিক্ষানবীশ সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জনসমর্থণ না থাকায় বিএনপি-জামায়াত জোটের সব আন্দোলন ব্যর্থ হয়েছে। তাদের দেশী-বিদেশী প্রভু, লবিস্ট, সুবিধাভোগী গোষ্ঠী ও দলীয় বুদ্ধিজীবীদের নানামুখী প্রচেষ্টা ও ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে। কারণ তাদের কোন জনসমর্থন নেই। দেশের মানুষ স্বতস্ফূর্তভাবে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নিয়ে গণতন্ত্রের প্রতি দ্ব্যর্থহীন সমর্থন দিয়েছে।
উৎস- যুগান্তর