শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

রোববার হরতাল দিচ্ছে বিএনপি!

1414569562_68044

জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার অনুমতি না পেয়ে ক্ষুব্ধ বিএনপি। এ অবস্থায় আগামী রোববার হরতালের মতো কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার কথা ভাবছে দলটির নেতারা। শনিবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা আসতে পারে।শনিবার বিকালেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করার কথা ছিলো বিএনপির। দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জনসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন। কিন্তু ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) তাতে অনুমিত দেয়নি। এ নিয়ে গত শুক্রবার (৭ নভেম্বর) রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে জরুরি বৈঠক করেন দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা। সেখানেই সমাবেশ করার অনুমতি না দেওয়ার প্রতিবাদে হরতালের মতো কঠোর কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা হয় বলে জানান দলের একজন জ্যেষ্ঠ নেতা।তিনি বলেন, বিএনপি দীর্ঘদিন ধরেই জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে নানা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করে আসছে। এবারো তারই ধারাবাহিকতায় সারাদেশে কর্মসূচি পালন করা হয়। শনিবার বিকালে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার অনুমিত না পেয়ে বিএনপি ক্ষুব্ধ। এই সরকার রাজনৈতিক দলের গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করছে। তাই বাধ্য হয়েই হরতালের মতো বিকল্প ভাবা হচ্ছে।দুপুর ১২টায় দলের সংবাদ সম্মেলনে সেই ঘোষণা আসতে পারে বলে জানান বিএনপির ওই সিনিয়র নেতা। এদিকে সমাবেশের অনুমতি না পাওয়ায় শনিবার সকাল থেকেই নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে দলীয় নেতাকর্মীদের ভিড় বাড়ছে। এদিকে পুলিশও হার্ডলাইনে রয়েছে বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে নয়পল্টনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের সংখ্যাও বাড়ছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের বিশেষ শাখার একজন কর্মকর্তা জানান, যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি কঠোর হাতে দমন করা হবে। জানমালের ক্ষতি না হয় সেদিকে পুলিশ সতর্ক রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দলের সিনিয়র নেতাদেরও আটক করা হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।