Sunday, March 24Welcome khabarica24 Online

মীরসরাইয়ে ব্যাপক ব্যবধানে বিজয়ী হবেন ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন

মাহবুব পলাশ ::
আজ বহুল কাংখিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটাররা বিরতিহীনভাবে ভোট দেবেন। এরপরই প্রকাশ হবে ফলাফল। আাসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে গিরে আসন নং- ২৭৮(মীরসরাই), চট্টগ্রাম-১ নির্বাচনী আমেজে ভোটের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে। জনসাধারণ তাদের কাঙ্খিত ভোট প্রদানের জন্য যোগ্য প্রার্থীদের ভোটের মাধ্যমে কালকে ফলাফলের দিকে নজর রাখছেন। দৈনিক আজাদীর এক জরীপে দেখা গেছে এই আসনে এবার প্রার্থী ৬জন হলে ও ব্যাপক ব্যবধানে নৌকার প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বিজয়ী হবার সম্ভাবনা রয়েছে।
মীরসরাই উপজেলায় আসন নং- ২৭৮(মীরসরাই), চট্টগ্রাম-১ নির্বাচনী আসনে এইবার নির্বাচনে লড়ছেন নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ‘ধানের শীষ’ প্রার্থী নুরুল আমিন, ইসলামিক ফ্রন্ট এর চেয়ার প্রতীক নিয়ে মাওলানা মুহ্ম্মাাদ আবদুল মান্নান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে মাওলানা শামছুদ্দিন ‘হাতপাখা প্রতীক’। বাংলাদেশ মুসলীম লীগ থেকে শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, ‘হাত পাঞ্জা’ প্রতীক। এখানে ৬ প্রার্থী থাকলে ও মূলত প্রধান প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে গন্য নৌকা আর ধানের শীষ। কিন্ত সর্বশেষ অবস্থানে দেখা যাচ্ছে নৌকাই এখানে অপ্রতিরোধ্য ও অপ্রতিদ্বন্ধি।
একদিকে ‘ধানের শীষ’ প্রার্থী নুরুল আমিন জানায় মামলা হামলা ও গ্রেফতার আতংকে আমার নেতাকর্মীরা এলাকাছাড়া । আবার উক্ত প্রার্থীর এই বক্তব্য ছাড়া ও প্রকৃতপক্ষে মাঠে বিএনপি অভ্যন্তরীণ দ্বন্ধ নিরসন করতে না পারায় ধানের শীষের প্রার্থী কোন এলাকাতেই মাথা উঁচু করে ভোট চাইতে যেতে পারেনি। বিশেষ করে ১২ প্রার্থীর মনোনয়ন লড়াইয়ের পর উক্ত নুরুল আমিন মনোনয়ন লাভের পর দলের দায়িত্বে থাকা মূল নেতাকর্মীদের সহ অন্যান্য সকল প্রার্থীদেও ধানের শীষ প্রশ্নে ঐক্যবদ্ধ করতে পারেন নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির দায়িত্বরত শীর্ষ জেলা ও উপজেলা নেতাগন ও নুরুল আমিন এর প্রচার প্রচারনা না থাকা নিয়ে কোন মন্থব্য প্রকাশ করতে ও অপারগতা প্রকাশ করেন। এমনকি গত ২৮ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে তাঁর উপর হামলার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য প্রদানকালে ও উপজেলা বিএনপির মূলধারার নেতৃবৃন্দের কাউকে দেখা যায়নি। এমনকি জানা যায় কোন নেতৃবৃন্দকে সহযোগিতার জন্য ও আহ্বান করেনি প্রার্থী নুরুল আমিন। এতেই প্রতীয়মান হয় যে বিএনপির ভরাডুবির জন্য বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলই প্রধানত দায়ী। অপর পক্ষে নৌকার প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন প্রশ্নে মীরসরাই উপজেলার ১৬ ইউনিয়ন ও ২ পৌরসভায় প্রতিটি ওয়ার্ড ও কেন্দ্র এলাকায় বিভিন্ন স্তরে সাজানো নেতাকর্মীরা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন প্রশ্নে এক ও অভিন্ন। শুধু তাই নয় জেলা ও উপজেলা থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নৌকার প্রার্থীও প্রশ্নে প্রাণপণ ঐক্যবদ্ধ সকলে। এক্ষেত্রে বিন্দু মাত্র বিকল্প কোন ভাবনার অবকাশে কারো মনে প্রাণে নেই। আর সব মিলিয়ে নির্বাচনের পূর্বদিন পর্যন্ত জনমত জরীপে নিংশকোচে বলা যায় ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এখানে বিপুল ভোটের ব্যবধানেই বিজয়ী হবেন।
এদিকে এই আসনের ১০৪টি কেন্দ্রে ভোট অনুষ্ঠানের সবরকম প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে স্থানীয় প্রশাসন। শনিবার (২৯ ডিসেম্বর) ব্যালটপেপারসহ ভোটের সরঞ্জামাদি নিয়ে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছেন প্রিজাইডিং অফিসারসহ ভোট গ্রহণে নিয়োজিত অন্যান্য কর্মকর্তারা। মীরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ রুহুল আমিন জানান ভোটের দিন নির্বাচনী এলাকায় দায়িত্ব পালন করবেন দুইজন জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ও চারজন নির্বাহী মেজিষ্ট্রেট। ভোট গ্রহণের আগেরদিন থেকে কেন্দ্রের নিরাপত্তায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে ৩০০ জন সেনা সদস্য, ১৫০ জন বিজিবি সদস্য, প্রায় ৫ শ জন পুলিশ সদস্য। এছাড়া কেন্দ্রের ভেতরকার নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবে ১০৪ জন পুলিশ সদস্য ও ৩১২ জন আনসার সদস্য। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাকিবুজ্জামান জানান, আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ১৫ হাজার ১৬ জন। এদের মধ্যে নারী ভোটার ১ লক্ষ ৫৫ হাজার ৪ শত ৭৪ জন আর পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ১ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫ শত ৪২ জন। এদের মধ্যে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তুলনায় ৪১ হাজার ৯ শত ৬০ জন ভোটার নতুন করে যুক্ত হয়েছে। মীরসরাই উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, এবারের নির্বাচনে মিরসরাই-১ আসনে মোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১০৪ টি। এখানে নিয়োজিত থাকবেন ১০৪ জন প্রিজাইডিং অফিসার। সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োজিত থাকবেন ৬২৯ জন। এসব কেন্দ্রে নিয়োজিত পোলিং অফিসারের সংখ্যা ১২৫৮ জন।