Friday, September 21Welcome khabarica24 Online

ফুটওভার ব্রিজ থাকার পরও মৃত্যুঝুঁকি নিয়ে মহাসড়ক পাড়াপাড় হচ্ছে শিক্ষার্থীসহ সাধারণ জনগণ

আকাশ ইকবাল
দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়ক হচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক। আর এই মহাসড়কের মীরসরাই অংশের মধ্যে ৪১ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে মহাসড়কের দুই পার্শ্বে। আর এই এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মৃত্যুঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন মহাসড়ক পাড়াপাড় হচ্ছে। বর্তমানে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চার লাইন করা হচ্ছে। নতুন চার লাইন এখন পর্যন্ত উদ্বোধন করা না হলেও যানবাহন চলাচলের জন্য এই খুলে দেয়া হয়েছে। এতে করে এই সড়কটি এখন ভয়ঙ্কর রুপ ধারণ করেছে। যে কোনো মহুর্তে ঘটে যেতে পারে বড় ধরণের দুর্ঘটনা। এতি মধ্যে অনেকবার ঘটেছে। ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কে মীরসরাই অংশে এখন পর্যন্ত  বিশেষ করে বাজার গুলোর মধ্যে বারইয়ারহাট পৌরসভা ও মীরসরাই উপজেলায় ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। তারপরও রাস্তার দুই পার্শে¦ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পার্শ্বে ফুটওভার ব্রিজ অত্যন্ত প্রয়োজন বলে মনে করছে শিক্ষার্থীদের অভিভাবক বৃন্দ। এই দিকে দুই পৌরসভায় পরিকল্পনা অনুযায়ী ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হলেও ব্যবহার করা হচ্ছে না। তবে কিছু সচেতন মানুষ এই ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করছে। মহাসড়কে যে হারে যানবাহন চলছে ও দিন দিন বেড়ে চলেছে সে হারে এই ফুট ওভার ব্রিজ নগন্য। একটু কষ্ট করে ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পাড়াপাড় করতে গিয়ে শিক্ষার্থী সহ সাধারণ মানুষ দূর্ঘটনার কবলে পড়ছে। আগে ছিল দুই লাইন এখন হচ্ছে চারলাইন। আর এই চারলাইনের কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে। সম্প্রসারিত দুই লাইনে যানবাহন চলাচল শুরু হওয়াতে অভিভাকরা দুঃশ্চিন্তায় আছে।
এই বিষয়ে মীরসরাই মারুফ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, বতর্মানে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক চার লাইন হওয়াতে আমাদের দুঃশ্চিন্তা আরো বেড়ে গেছে। কারণ বিদ্যালয়ের সামনে কোনো ফুটওভার ব্রিজ নেই, নেই কোনো কর্মচারী। এতে মৃত্যুঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন আমাদের সন্তানরা রাস্তা পাড়াপাড় করছে। মীরসরাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাজিম উদ্দিন বলেন, ফুটওবার ব্রিজ থাকার পরও পরিকল্পনা মাফিক শিক্ষার্থীরা ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করে না। এর জন্য প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পাড়াপাড় করে। প্রশাসনের কাছে তিনি দাবী করেন, প্রশাসন খুব দ্রুত ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারের জন্য কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করে। তাহলে ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারও হবে আবার মৃত্যুঝুঁকিও কমবে।
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মীরসরাই অংশে রয়েছে ২টি পৌরসভা ও ২টি বাজার। দুটি পৌরসভার মধ্য বারইয়াহাট পৌর বাজারে গত বছর ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে আর মীরসরাই পৌর বাজারে সাম্প্রতিক সময়ে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। বারইয়াহাট পৌর বাজারে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হলেও কয়েকজন সচেতন নাগরিগ বিহীন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষ ব্যবহার করছে না বললেই চলে। প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পাড়াপাড় করছে মানুষ। এরই মধ্য গত এক বছরে শিক্ষার্থী সহ সাধারণ মানুষ বারইয়ারহাট পৌর বাজারে ফুটওভার ব্রিজ নিমার্ণ করার পর থেকে সাম্প্রতিক সময় পর্যন্ত ৭জন সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন।
মীরসরাই পৌর বাজারে সাম্প্রতিক সময়ে ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হলেও সাধারণ মানুষ কিংবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ফুট ওভার ব্রিজ ব্যবহার করা হচ্ছে না। মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে পাড়াপাড় করছে। এতে যে কোনো সময় ভয়ঙ্কর দূর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।
তাই সাধারণ সচেতন মহলের দাবী যে সব গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ফুট ওভার ব্রিজ নেই সে সকল স্থানে ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হোক। আর নির্মাণের সাথে সাথে প্রশাসন যেন ফুট ওভার ব্রিজ ব্যবহার না করার জন্য শাস্তি মূলক আইন করা হোক। আইন করার পাশাপাশি প্রতিটি ফুট ওভার ব্রিজের কাছে  একজন কর্মচারী নিয়োগ করার হোক।