Saturday, November 17Welcome khabarica24 Online

নিজেকে সময় দেয়া খুব প্রয়োজন

 

প্রযুক্তি যতো এগিয়ে যাচ্ছে, ততোই বেড়ে যাচ্ছে আমাদের ব্যাস্ততা। জীবন মানেই এখন এক অন্তহীন মাঠে দৌঁড় প্রতিযোগীতা, টিকে থাকার এক কঠিন লড়াই। সংগ্রামময় জীবনে টিকে থাকার জন্য দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে একদিন হুট করেই পৃথিবী থেকে চলে যাই আমরা। জীবনের এই ছোট্ট পরিসরে আমরা কতভাবে সময় পার করি, কতকিছু নিয়ে ব্যাস্ত থাকি, কখনো পড়াশুনা নিয়ে, কখনো চাকরী নিয়ে, কখনোবা সামাজিকতা রক্ষার ক্ষেত্রে। এতকিছুর ভীড়ে নিজেকে দেওয়ার মতো সময় আমাদের প্রায় কারোই হয়ে ওঠেনা। অথচ আমরা নিজেরাই তো আমাদের সবচেয়ে আপন তাইনা? তাহলে কেন নিজেদের প্রতি এই অবহেলা? একবার ভেবে দেখুন তো, সপ্তাহে অন্তত একটা দিন কিছু সময়ের জন্য হলেও শুধু নিজেকে নিয়ে ভেবেছেন, শুধু নিজেকে সময় দিয়েছেন? অধিকাংশ মানুষের উত্তর হবে- না। প্রকৃতি যেমন তার ওপর বিরূপ আচরন করার জন্য প্রতিশোধ নেয়, আমাদের শরীরও অবহেলা সহ্য করতে করতে একসময় চরম প্রতিশোধ নেয়। নিজেকে সময় না দিলে শরীর মন দু’টোর ওপরই খুব খারাপ প্রভাব পড়ে।

Jim Rohn বলেছেন- Take care of your body. It’s the only place you have to live.

কখনো কি ভেবে দেখেছেন, আপনার শরীরটাই আপনার বেঁচে থাকার একমাত্র উৎস? নাহ ভাবেননি। এত ব্যাস্ততার ভেতর এত গভীরে ভাবার সময় কই তাইতো! কিন্তু একদিন এই শরীরটাই যখন আপনাকে মৃত্যুর দোরগোড়ায় পৌঁছে দেবে, তখন ঠিকই সচেতন হবেন, নিজেকে নিয়ে ভাববেন; দুঃখজনক হলেও সত্যি তখন ভেবে আর কোনো কাজ হবেনা। গবেষনা করে জানা গেছে, যারা হার্ট অ্যাট্যাক কিংবা ব্রেইন স্ট্রোকে মারা যায়, তাদের বেশির ভাগ মৃত্যুর কারন অতিরিক্ত ব্যাস্ততা আর মানসিক চাপ। যার ফলে, মানুষ যেকোনো সময় যেকোনো বয়সে মারা যেতে পারে। বিগত কয়েক বছরে এভাবে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদের বেশির ভাগেরই বয়স ছিল তুলনামূলক কম, কেবলমাত্র তারা ব্যাস্ততা আর মানসিক চাপের শিকার হয়েছেন, যার পরিণতি অকাল মৃত্যু! এছাড়াও শরীরের আরো অনেক ক্ষতি সাধন হয়ে থাকে শুধুমাত্র সচেতনতার অভাবে। এটাতো গেলো শারিরীক দিক। মানসিক ভাবেও ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় ব্যাস্ততার কারনে।

চাপ সামলাতে না পেরে অনেকেই মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে, স্মৃতিশক্তি লোপ পায়। ব্যাস্ততায় সময় কাটাতে কাটাতে জীবন একঘেয়ে হয়ে পড়ে, বৈচিত্র্যহীন মনে হয় সবকিছু। মাঝেমাঝে মনে হয়, পৃথিবীর সবাই সুখী আমি ছাড়া। আর ব্যাস্ততা এমনি একটা জাল, যেখানে একবার আটকা পড়লে, সে জাল ছিঁড়ে বেরিয়ে আসা খুব কঠিন। আর তখন আমরা চিৎকার করে বলি- Stop the world, I want to get off! কিন্তু এভাবে কি সমস্যার সমাধান হয়? হয়না, কখনোই না। ব্যাস্ততা আর মানসিক চাপ যেন কখনো আত্মহত্যার কারন না হয়ে দাঁড়ায়, সে ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে। আর তার জন্য সবচেয়ে ফলপ্রসূ উপায় হচ্ছে নিজেকে সময় দেয়া। প্রতিদিন সকালে অন্তত গোটা কয়েক মিনিট চা খেতে খেতে নীরবে নিজেকে নিয়ে ভাবুন। দেখবেন, অনেকটা রিফ্রেশমেন্ট নিয়ে দিনটা শুরু করতে পারবেন, নিজেকেও হালকা লাগবে। এভাবে প্রতিদিন সকালে একবার নিজেকে নিয়ে ভাবুন, নিজের সাথে বোঝাপড়া করুন। সপ্তাহে অন্তত একটা দিন বা একটা বিকেল নিজেকে আলাদা করে সময় দিন, যে সময়টুকুতে কোনো চিন্তাভাবনা থাকবেনা।

আর্থিক চিন্তা থাকবেনা, ক্যারিয়ারের চিন্তা থাকবেনা, লাভ লোকসানের চিন্তা থাকবেনা; একদম মুক্ত মনে ঘুরে বেড়ান সেই সময়টুকু। জীবনে টিকে থাকতে গেলে অনেক চিন্তাভাবনা করতে হয়। কিন্তু খেয়াল রাখবেন, সে চিন্তাগুলো যেন আপনার সুখ স্বাচ্ছন্দ্য গ্রাস না করে, নির্ঘুম রাতের কারন হয়ে দাঁড়ায়। মনোজগতে আলাদা একটা জানালা তৈরি করুন। যে জানালা দিয়ে সমস্ত চিন্তাগুলোকে দখিন হাওয়ার মতো বের করে দিতে পারবেন। তাহলে দেখবেন, কতোটা স্বস্তি নিয়ে বাঁচা যায়।

Lisa Pisha বলেছেন-

Loving ourselves is the process of becoming aware of, and honoring our story, what we like, need, want, believe, crave, how we love, how we think, learn and what fills us up…

নিজেকে সময় দেওয়ার এবং নিজেকে শারিরীক ও মানসিক ভাবে ভাল রাখার অন্যতম একটা উপায় হচ্ছে, নিজের যা ভাললাগবে তা করা। যেমন, কারো ঘুরতে ভাললাগে। সে মাঝেমাঝে ব্যাস্ততাকে ছুটি দিয়ে ঘুরে আসতে পারে দূরে কোথাও, যেতে পারে প্রকৃতির খুব কাছাকাছি।

এতে করে তার শরীরের প্রতিটা কোষে আনন্দ আর ভাললাগার অনুরনন হবে, যা অনেক বেশি শক্তি সঞ্চয়ে সহায়ক। আর এই শক্তিকে পুঁজি করেই নতুন উদ্যমে এগিয়ে যাওয়া যায়, বোনাস হিসেবে পাওয়া যায় ভাল থাকার আরো অনেকগুলো দিন। কেও কেও মুভি দেখতে ভালবাসে, ছবি আঁকতে ভালবাসে, একা একা গ্রামের মেঠোপথ ধরে হাঁটতে ভালবাসে। প্রত্যেকের ভাললাগার ওপর কেন্দ্র করে নিজেকে কিছুটা অবসর সময় দেওয়া উচিত। খুব গভীরভাবে ভেবে দেখা উচিত, আমার আসলে কি চাই, কেন চাই, কি পেলে আমার আত্মতৃপ্তিবোধ হবে। আরো খেয়াল রাখতে হবে, আমার চাওয়াগুলো অন্য কারো ক্ষতির কারন হবেনা তো? এভাবে নিজের বোধোদয় জাগ্রত করে, নিজের চাওয়াগুলোকে প্রাধান্য দিয়ে সর্বোচ্চ চাহিদা মেটাতে হবে, অন্তত নিজেকে ভাল রাখার জন্য।

এক জীবনে অনেক বছর বেঁচে থেকেও নিজেকে চেনা হয়ে ওঠেনা। খুব কম সংখ্যক মানুষই প্রকৃত অর্থে নিজেকে চিনতে পারে। এর একমাত্র কারন নিজেকে সময় না দেওয়া। নিজেকে সময় না দিলে, কিভাবে বুঝবেন আপনার কি চাই, আপনি কেমন ধরনের মানুষ কিংবা আপনার ভেতর মুখোশের আড়ালে অন্য কোনো রূপ লুকিয়ে আছে কিনা!

নিজেকে না চিনে, না জেনেই পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে; ভাবতেই খুব আফসোস হচ্ছে না? মানবজনম কি আর বারবার আসে। এই এক জীবনে যদি নিজেকে চিনতে না পারেন, আর কোনোদিন চেনার সুযোগ হবেনা। এই আফসোসটা যাতে কোনোদিন না হয়, সেজন্য অনেক ব্যাস্ততার ভীড়েও নিজের জন্য খুব যত্নে একটু সময় বের করুন। দেখবেন বেঁচে থাকা মানেই সংগ্রাম নয়, ভাল থাকাও বেঁচে থাকার একটা অনেক বড় অংশ।

আর নিজেকে কখনো কারো সাথে তুলনা করবেননা। আপনি যে শ্রেণীর জীবনই যাপন করুন না কেন, সবসময়ই ভাববেন আপনার জগতে আপনিই রাজা/রানী। নিজেকে আগাগোড়া ব্যার্থ মানুষ ভাবার কোনো কারন নেই। নিজেকে সময় দিন, দেখবেন সফলতার পেছনে দৌঁড়ানোই জীবন নয়; একটা বিকেল নিজের মতো করে কাটানোও জীবন। তখন আর ব্যার্থতাগুলো আপনাকে গ্রাস করবেনা।

সবশেষে বলবো- নিজেকে ভালবাসুন, নিজেকে সময় দিন, সুস্থ সুন্দর জীবন যাপন করুন; অন্তত এই যান্ত্রিকতার যুগে নিজেকে ভাল রাখতে চাইলে, নিজেকে সময় দেওয়া খুব প্রয়োজন।।।।