Saturday, November 17Welcome khabarica24 Online

জমিদাতা যখন স্কুল ছাত্রদের কাঁধে !

97d31d3f61de-Jamalpur-pic-1

নতুন কিছু কররে ভাই নতুন কিছু কর। জি নতুন কিছু করার প্রত্যয় নিয়ে থাকেন কিছু মানুষ। নতুন কিছু করে বসেন তাঁরা। নতুন কিছু করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও স্কুলের জমিদাতা। কোমলমতি শিশু-কিশোরদের কাঁধে ও শরিরে জুতো পায়ে হেটে নতুন কিছু কি করলেন্ এই প্রশ্ন সবার!
স্কুলের ছাত্রদের গড়া মানবসেতুর ওপর দিয়ে চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুর হোসেন পাটোয়ারীর হেঁটে যাওয়ার ঘটনা সারা দেশে সমালোচনার ঝড় তুলেছে। এই ঝড়ের মধ্যে ঘটে গেল একই ঘটনা। জামালপুরে গত ২৯ জানুয়ারি স্কুলের ছোট ছোট শিক্ষার্থীর কাঁধের ওপর পা রেখে হেঁটেছেন ওই স্কুলে জমিদাতা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে পড়েছে।
জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার মাহমুদপুর বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের কোমলমতি শিশুছাত্রদের কাঁধে চড়ে হাঁটেন ওই স্কুলের জমিদাতা দিলদার হোসেন ওরফে প্রিন্স। ছাত্রদের কাঁধে দিলদার হোসেনের হেঁটে যাওয়ার ছবি গতকাল বুধবার রাতে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়। এরপর থেকে জেলাজুড়ে তোলপাড়। গত রোববার (২৯ জানুয়ারি) ওই বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে এ ঘটনাটি ঘটে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান উপলক্ষে ওই বিদ্যালয়ের স্কাউট দলের সদস্যরা একটি মানবসেতু নির্মাণ করে। এর ওপর দিয়ে হেঁটে যান অনুষ্ঠানের অতিথি ও বিদ্যালয়ের জমিদাতা দিলদার হোসেন।
ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের মাঠে নবম ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা একটি বাঁশ হাতে নিয়ে শুয়ে মানবসেতু নির্মাণ করেছে। দিলদার ওই মানবসেতুর ওপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন। তিনি যেন পড়ে না যান, এ জন্য দুপাশ থেকে দুজন ব্যক্তি হাত ধরে তাঁকে সহযোগিতা করছেন। কেউ কেউ ওই দৃশ্যের ছবি তুলছেন। এর চার দিকে স্কুলের ছাত্র ও অন্য দর্শনার্থীরা দৃশ্যটি দেখছেন।
এ ব্যাপারে মাহমুদপুর বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আছানতুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘ওই দিন বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান ছিল। একসঙ্গে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন শারীরিক কসরত উপস্থাপন করে। সেই সময় শিক্ষার্থীরা মানবসেতু তৈরি করেছিল কি না, আমি জানি না। তবে ওই অনুষ্ঠানে জমিদাতা দিলদার হোসেন অতিথি ছিলেন না।’ বিষয়টি তিনি খোঁজখবর দেবেন বলে ফোনটি কেটে দেন।
এ বিষয়ে দিলদার হোসেনের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করেও তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

জামালপুরের জেলা প্রশাসক মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেন, ‘অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশ সুপারকে অবহিত করেছি।’