Saturday, November 17Welcome khabarica24 Online

জনগণ কোনটি বিশ্বাস করবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধান বিচারপতি বিদেশ যাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগ তোলা হয়েছে। তার আগে বলা হয়েছিল তিনি ক্যান্সারে আক্রান্ত। কিন্তু বিদেশ যাওয়ার আগে তিনি এক চিঠিতে জানিয়ে গেছেন, তিনি অসুস্থ নন। আরো কিছু বিষয় উল্লেখ করেছেন ওই চিঠিতে। এরপরই ১১টি অভিযোগ সামনে নিয়ে আসা হয়।

প্রধান বিচারপতির এসব প্রসঙ্গ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, জনগণ কোনটি বিশ্বাস করবে, তাকে ছুটি দিয়ে বিদেশ পাঠানো, ক্যান্সারের কারণে অসুস্থতা না কি তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ।

তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে সরকারি নাটকের যেন শেষ হচ্ছে না। তিনি (প্রধান বিচারপতি) অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার পর হঠাৎ করে তার বিরুদ্ধে দুনীতি, অর্থপাচার, নৈতিক স্খলনসহ ১১টি অভযোগ দাখিল করা হয়েছে। প্রধান বিচারপতির বিদেশ যাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে নজীরবিহীন ঘটনা।

রিজভী দাবি করেন, বিচার বিভাগের সর্বোচ্চ মর্যাদার আসনটিকে এভাবে কালিমালিপ্ত করার ঘটনা ইতিহাসে আর কখনো ঘটেনি।

বিএনপির এই নেতার দাবি, প্রধান বিচারপতির ওপর আরো বেশি চাপ সৃষ্টি করার জন্যই এমন অভিযোগ করা হয়েছে।

রিজভী বলেন, রাষ্ট্রপতি যদি প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে এতো অভিযোগ পেয়েই থাকেন, তাহলে তিনি সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ প্রয়োগ করলেন না কেন? এ প্রশ্ন এখন আইনাঙ্গনে ঘুরপাক খাচ্ছে।

প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, জোর করে প্রধান বিচারপতিকে ছুটিতে পাঠিয়ে দেশ ছাড়তে বাধ্য করার পর এখন চূড়ান্ত পদক্ষেপ পদত্যাগ করাতেই হঠাৎ এসব অভিযোগ তোলা হয়েছে বলে জনগণ বিশ্বাস করে।

এসময় রিজভী বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তরি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে গত ১৪ অক্টোবর বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনকালে বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তারের বিষয়টি বিবরণে তুলে ধরেন।