শনিবার, ৮ মে ২০২১, ২৫ বৈশাখ ১৪২৮খবরিকা অনলাইনে আপনাকে স্বাগতম।

উপজেলা নির্বাচনে গ্রেফতারের ক্ষমতা পেল সেনাবাহিনী

index_80211
প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) রুটিন দায়িত্বে থাকা নির্বাচন কমিশনার মো. আব্দুল মোবারক বলেছেন, রোববারের নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে সরাসরি হস্তক্ষেপ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ব্যালট বাক্সে হাত দিলেই গুলি চালাতেও বলা হয়েছে। এখন থেকে নির্বাচন ঘিরে যেকোনো অপরাধীকে গ্রেফতার করতে পারবে সেনাবাহিনী।শনিবার বিকেলে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে চতুর্থ ধাপের নির্বাচন পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।তিনি বলেন, ব্যালট বাক্সে কেউ হাত দিলে সরকারি গুলি খরচ করে গুলি চালাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমার এটা চাই না। তবে কেউ এমনটি করলে তাই করা হবে। নির্বাচনকালীন সময়ে কেউ অপরাধ করে পার পাবে না। আইনের আওতায় সর্বশেষ অবস্থা অনুযায়ী কমিশন ব্যবস্থা নেবে। কেউ যদি মনে করে নির্বাচন হয়ে গেলে কমিশন কিছু করতে পারবে না তা ভুল।মোবারক বলেন, সিআরপি-র ১৩১ ধারা অনুযায়ী সেনাবাহিনীর দৃষ্টির মধ্যে কোনো সহিংসতার ঘটনা ঘটলে তারা সরাসরি হস্তক্ষেপ করবে। ভোটারসহ কারো অধিকার ক্ষুন্ন হলে কমিশন চুপ থাকবে না। ভোটারদের ভোটাধিকার ক্ষুন্ন হওয়া কমিশন কখনো বরদাশত করবে না।নির্বাচন কমিশনার মোবারক বলেন, আমরা প্রত্যেক এলাকার সহিংসতা রোধে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর প্রধানদের সঙ্গে কথা বলে সহিংসতার আশঙ্কা থাকলে পূর্বেই ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি।সহিংসতার কারণ প্রসঙ্গে বলেন, নির্বাচনকে মাঠ পর্যায়ে রূপ দেওয়ায় সহিংসতা বেশি হচ্ছে। কারণ এতে করে দলগুলো বিজয়ী হওয়ার জন্য হাইকমান্ড থেকে চাপ দিচ্ছে। তারা পরিসংখ্যানে নিজেদের প্রার্থীর পক্ষে জয় ধরে রাখতে সহিংসতাকে উসকে দিচ্ছে।
উৎস- যুগান্তর