Monday, August 21Welcome khabarica24 Online

আবারো উত্তপ্ত কাশ্মির : গুলিতে বিক্ষোভকারী নিহত

নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত লস্কর ই তাইয়্যেবার শীর্ষ কমান্ডার আবু দুজানা। জম্মু-কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে লস্কর ই তাইয়্যেবার শীর্ষ কমান্ডার আবু দুজানা ও অন্য এক গেরিলা নিহত হয়েছে। ওই ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সেখানকার প্রতিবাদী জনতা ব্যাপক প্রতিবাদ বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ইন্টারনেটে নিষেধাজ্ঞা জারিসহ স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। নিরাপত্তাজনিত কারণে শ্রীনগর ও বানিহালের মধ্যে রেল চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

সকালে জম্মু-কাশ্মিরের পুলওয়ামা জেলায় হাকরিপোরা গ্রামে আবু দুজানার সঙ্গে আরিফ লিলহারি নামে অন্য এক লস্কর সদস্য নিহত হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনী পুলওয়ামার কাকাপোরায় আবু দুজানাসহ ২/৩ গেরিলা একটি বাড়িতে লুকিয়ে থাকার খবর পেয়ে আজ সেখানে গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে তল্লাশি অভিযান চালায়। উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সময় আবু দুজানা যেখানে ছিল সেই বাড়িটি নিরাপত্তা বাহিনী উড়িয়ে দেয়।

এদিকে, আবু দজানা নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আজ দক্ষিণ কাশ্মিরের পুলওয়ামাতে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বিক্ষোভরত জনতার সংঘর্ষ হলে এক বেসামরিক ব্যক্তি নিহত ও কমপক্ষে ৪০ বেসামরিক ব্যক্তি আহত হয়। ফিরদৌস আহমদ খান নামে ওই যুবক বুকে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। এদিকে, কুলগাম, হান্দওয়াড়া, পুলওয়ামা ও শ্রীনগর এলাকায় স্কুল-কলেজের ছাত্ররা আজ প্রতিবাদ বিক্ষোভে শামিল হন। কুলগামে সরকারি ডিগ্রি কলেজের কয়েকশ’ ছাত্র এদিন ক্লাস বয়কট করে আবু দুজানার সমর্থনে সেস্নাগান দিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। উত্তর কাশ্মিরের কুপওয়াড়া জেলার হান্দওয়াড়া এলাকায় ছাত্ররা নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ওই ঘটনায় অনেক ছাত্র আহত হয়েছেন। গেরিলা ও বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আজ বিকেলে শ্রীনগরে কাশ্মির বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্ররা বিক্ষোভ দেখায়। তারা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে বিভিন্ন বিভাগে দেশবিরোধী সস্নোগান দেন। এদিন সেখানে গায়েবানা জানাজাও অনুষ্ঠিত হয় বলে এক ছাত্র বলেন। পুলওয়ামা জেলা হাসপাতালের বাইরে নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে ক্ষুব্ধ মানুষজন পাথর ছুঁড়লে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলি চালালে এক সেবিকা ও এক ছাত্রসহ দু’জন আহত হয়েছেন। তাদের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে হাসপাতাল সুপার ডা. আব্দুল রশিদ পাররা বলেন। গোলযোগের আশঙ্কায় কর্তৃপক্ষ কাশ্মির উপত্যাকার সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে।